তথ্য প্রযুক্তি - অক্টোবর ১১, ২০১৫

দেশে ফেসবুক ব্যবহারকারী ১ কোটি ৭০ লাখ

Facebook-BD
তথ্য প্রযুক্তি ডেস্কঃ ব্যাংলাদেশে দ্রুত গতিতে বাড়ছে ফেসবুক ব্যবহারকারীর সংখ্যা। এই মুহূর্তে ৫ কোটি ইন্টারনেট গ্রাহকের মধ্যে শুধু ফেসবুক ব্যবহারকারীর সংখ্যা ১ কোটি ৭০ লাখ। বাংলাদেশে ফেসবুকে ১৩ থেকে ১৭ বছর বয়সী ব্যবহারকারীর সংখ্যা ১৭ শতাংশ এবং ১৮ থেকে ২২ বছর বয়সীদের হার ৪২ শতাংশ। শনিবার বসুন্ধরা সিটিতে অনুষ্ঠিত সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যম,

অনলাইনে শিশুদের নিরাপত্তা ও সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ব্যবহারের ক্ষেত্রে দায়িত্ববোধ-বিষয়ক দুই পর্বের সেমিনারে এ তথ্য পাওয়া গেছে। দ্য ইন্টারনেট সোসাইটি বাংলাদেশের ঢাকা শাখার উদ্যোগে ‘এশিয়া ইন্টারনেট সিম্পোজিয়াম ২০১৫’ শীর্ষক আয়োজনে অনুষ্ঠিত হয় এ দুটি সেমিনার।

বাংলাদেশে গত বছর একই সময়ে ফেসবুক ব্যবহারকারীর সংখ্যা ছিল ১ কোটি। এর মধ্যে ৮২ লাখ পুরুষ এবং ২২ লাখ নারী ছিল। শুধু ১৫ থেকে ৩৫ বছর বয়সীর সংখ্যা ছিল ৭৪ লাখ। এর আগে গত বছর ৩১ মার্চ পর্যন্ত দেশে ফেসবুক ব্যবহারকারী ছিল ৭০ লাখ। এর মধ্যে ৫৬ লাখ অর্থাৎ প্রায় ৮০% পুরুষ। অন্যদিকে ২০১৩ সালের ১ জানুয়ারিতে বাংলাদেশে ফেসবুকের ব্যবহারকারী ছিল ৩৩ লাখ ৫২ হাজার ৬৮০ জন। আগস্ট ১৩, ২০১৩ ফেসবুকে বাংলাদেশের ব্যবহারকারীর সংখ্যা হয় ৫৪ লাখ। এর মধ্যে ৪২ লাখ পুরুষ এবং ১২ লাখ মহিলা। জুন মাসের ৫ তারিখে এই সংখ্যা ছিল যথাক্রমে ৩০ লাখ ও ৮ লাখ। সেই সময় মাত্র ৬৮ দিনের ব্যবধানে প্রায় ১৬ লাখ ব্যবহারকারী বৃদ্ধি পায়। সেই সময়ে মূল মিডিয়াতে ব্যাপকভাবে ফেসবুকের নাম এসেছে। সন্ত্রাসবিরোধী আইনে ফেসবুকের উল্লেখ, রামুর ঘটনা, চাঁদের বুকে সাঈদী ইত্যাদি নানান কারণে অনেকে ফেসবুকের প্রতি আকৃষ্ট হয়েছে।

২০১৩ সালে ফেসবুকের এই অস্বাভাবিক বৃদ্ধির আর একটি কারণ তৃতীয় প্রজন্মের থ্রিজি ইন্টারনেট ও স্মার্টফোন। বর্তমানে মোবাইল থেকে ফেসবুক ব্যবহারের সংখ্যা বাড়ছে দ্রুততার সঙ্গে। সেই সঙ্গে একাধিক মোবাইল অপারেটরের দেওয়া জিরো ফেসবুকও বিপুলসংখ্যক নতুন ব্যবহারকারী এনে দিয়েছে ফেসবুককে। ২০১৩-এর তুলনায় চলতি বছরের বাড়ার হার কমে যাওয়ার পেছনে অন্যতম কারণ রাজনীতির একটু ধীরে চলা অথবা রাজনৈতিক খবরাখবর কমে যাওয়া বলে সংশ্লিষ্টরা জানিয়েছেন। বাংলাদেশে ২০১২ সালের প্রথম দিন ফেসবুক ব্যবহারকারীর সংখ্যা ছিল ২৩ লাখের বেশি। পুরো ২০১২ সালে বেড়েছে মাত্র ১০ লাখ।

পূর্বের এক হিসেবে ২১৩টি ফেসবুক ব্যবহারকারী দেশের মধ্যে বাংলাদেশের অবস্থান ৫৬। ব্যবহারকারীর সংখ্যার দিক দিয়ে যুক্তরাষ্ট্র ও ইন্দোনেশিয়ার পরে ভারতের অবস্থান। তবে শতাংশের হিসাবে দক্ষিণ এশিয়ায় মালদ্বীপে সবচেয়ে বেশি সংখ্যক ফেসবুক ব্যবহার হয়। এদিকে যুক্তরাষ্ট্রের নিউইয়র্কে ২১ সেপ্টেম্বর হওয়া ডিজিটাল উন্নয়নের জন্য জাতিসংঘের ব্রডব্যান্ড কমিশনের সভায় আনুষ্ঠানিকভাবে প্রকাশিত ২০১৫ সালের বিশ্ব ব্রডব্যান্ড পরিস্থিতি নিয়ে প্রকাশিত প্রতিবেদনের তথ্য অনুযায়ী বাংলাদেশ মোবাইল ইন্টারনেট ব্যবহারের ক্ষেত্রে প্রতিবেশি দেশ ভারত-পাকিস্তানের চেয়ে এগিয়েছে। বাংলাদেশে সক্রিয় মোবাইল ব্রডব্যান্ড সাবসক্রাইবার প্রতি ১০০ জনে ৬ দশমিক ৪। সে হিসেবে ব্রডব্যান্ড ইন্টারনেট ব্যবহারে বিশ্বের ১৮৯টি দেশের মধ্যে বাংলাদেশের অবস্থান ১৪৯। সেখানে ভারতের অবস্থান ১৫৫ এবং পাকিস্তানের অবস্থান ১৫৬।

এদিকে বাংলাদেশে ফেসবুকের ক্রমবর্ধমান বৃদ্ধির কারণে ফেসবুক কর্তৃপক্ষ এ দেশে আঞ্চলিক অফিস করার কথা জানিয়েছিল। গত বছর ১৭ মে ফেসবুকের সদর দফতর পরিদর্শন শেষে তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক ফেসবুক পরিচালকদের বাংলাদেশ সফর করার আমন্ত্রণ জানিয়ে এসেছেন। পরিদর্শন শেষে ফেসবুকের হেড অব পলিসি প্রোগাম লিসা ফস্টার ও ফেসবুকের উর্ধ্বতন কর্মকর্তারাদের সাথে বৈঠক করেন বাংলাদেশের প্রতিনিধিদল। বৈঠকে বাংলা ভাষায় ফেসবুক, বাংলাদেশে আঞ্চলিক অফিস স্থাপন ও স্থানীয়ভাবে গবেষণা ও উন্নয়নের মাধ্যমে লোকাল অ্যাপ্লিকেশন তৈরি করে দেশের তরুণ প্রজন্মের জন্য জনপ্রিয় অনলাইন সামাজিক যোগাযোগ নেটওয়ার্ক ফেসবুক-এ শিক্ষা সহায়ক টুলস প্রচলনের আহ্বান জানান বাংলাদেশ কম্পিউটার সমিতি (বিসিএস) এবং বাংলাদেশ অ্যাসোসিয়েশন অব সফটওয়্যার অ্যান্ড ইনফরমেশন সার্ভিসেস (বেসিস)। ওই বৈঠকে পলক বলেন, আগামী ২০২১ সালের মধ্যে বাংলাদেশে ফেসবুক ব্যবহারকারীর সংখ্যা ১০ কোটিতে পৌঁছাবে।


আরও পড়ুন