খেলার খবর - জানুয়ারি ২৮, ২০১৭

দ্রুত সেরে উঠছেন ইমরুল

ক্রীড়া ডেস্ক,

নিউজিল্যান্ড সফরে ওয়েলিংটন টেস্টে বাঁ ঊরুতে চোট পেয়েছিলেন ইমরুল কায়েস। ফলে ক্রাইস্টচার্চে দ্বিতীয় টেস্টে তিনি খেলতে পারেননি, আগেভাগেই ফিরে আসেন দেশে। সেই চোট থেকে সেরে উঠছেন ইমরুল। ভারতের বিপক্ষে একমাত্র টেস্টে বাঁহাতি এই ওপেনারের খেলা নিয়ে কোনো শঙ্কা নেই। তবে তাকে নিয়ে সতর্ক থাকতে হবে বলে জানালেন বিসিবির প্রধান চিকিৎসক দেবাশিস চৌধুরী।

শনিবার ইমরুলের চোটের অবস্থা নিয়ে দেবাশিস চৌধুরী বলেন, ‘ওর উন্নতির অগ্রগতি খুবই সন্তোষজনক। এভাবে যদি উন্নতি করতে থাকে তাহলে আমরা আশা করছি ১ তারিখ থেকে ওকে খেলায় ফিরিয়ে আনতে পারব। কিন্তু এটা মনে রাখতে হবে, ওর চোট যেহেতু মাংসপেশীতে, এই চোট ফিরে আসতে পারে। পুরোপুরি সুস্থ না হয়ে ফিরলে ওর আবার চোট পাওয়ার শঙ্কা থাকবে। এটা আমাদের সতর্কতার সাথে দেখতে হবে। পুনর্বাসন এভাবে চলতে থাকলে আশা করছি, সে সপ্তাহ খানেকের মধ্যে ফিরে আসবে।’

আবার চোট পেলে ইমরুলকে দেড় থেকে দুই মাসের জন্য মাঠের বাইরে চলে যেতে হবে। তাকে নিয়ে তাই সতর্ক থাকতে হবে বলে জানালেন দেবাশিস  চৌধুরী, ‘আমাদের পরামর্শ একটাই, এবার যদি একই জায়গায় চোট পায় তাহলে দেড় থেকে দুই মাসের জন্য মাঠের বাইরে চলে যেতে হবে। তাহলে শ্রীলঙ্কা সফরও মিস করবে। আগে আমাদের সেটা থামাতে হবে। এটা টিম ম্যানেজমেন্টও জানে। ও নিজেও ব্যাপারটা জানে। সিদ্ধান্ত খেলোয়াড়কেই নিতে হবে। কারণ, ব্যথা তো আর মাপা যায় না।’

ভারতের বিপক্ষে ৯ ফেব্রুয়ারি থেকে শুরু টেস্টের আগে দুই দিনের একটি প্রস্তুতি ম্যাচ খেলবে বাংলাদেশ। ইমরুল প্রস্তুতি ম্যাচে খেলবেন কি না, এটা সময়ই বলে দেবে। তবে পুরোপুরি সুস্থ হয়েই তাকে মাঠে ফিরতে হবে বলে জানালেন দেবাশিস, ‘আমাদের ইমরুলের ব্যাপারটা আরেকটু চিন্তা করতে হবে। ওকে সময় দিতে হবে। এই মুহূর্তে ওর এমআরআই বলছে, ওর অগ্রগতি খুবই সন্তোষজনক। কিন্তু আমরা পুরোপুরি সেরে না উঠে খেলায় ফেরার ঝুঁকি নিতে চাই না। পুরোপুরি সুস্থ হয়ে মাঠে ফিরুক। কয়েকটা অপশন আসতে পারে, একটা হচ্ছে প্রস্তুতি ম্যাচে খেলবে কি না। এটা সময়ই বলে দেবে আপনাকে। এই মুহূর্তে চিন্তা করার কিছু নেই।’

‘টেস্ট শুরু হতে হতে কিন্তু ওর সেরে উঠার সময় হয়ে যাবে। আমরা যদি ওর সেরে উঠার প্রক্রিয়ায় ব্যাঘাত সৃষ্টি করি তাহলে এটা দেরি হয়ে যাবে। এখানে টিম ম্যানেজমেন্টকে সিদ্ধান্ত নিতে হবে, ওকে পুনর্সানের অধীনে রেখে নিয়ে যাবেন নাকি প্রস্তুতি ম্যাচে খেলাবেন। এগুলো খুবই কঠিন সিদ্ধান্ত। ও নিজেও চোট থেকে ফেরার পর প্রস্তুতি ম্যাচে খেলতে চাইতে পারে। ওটা খেলতে গেলে আবার আঘাত পেয়ে যেতে পারে’- যোগ করেন দেবাশিস চৌধুরী।

 

মুক্তিযোদ্ধার কণ্ঠ ডটকম/ ২৮ -০১-২০১৭ইং  / মো: হাছিব

 


আরও পড়ুন