“মজা মারে ফজা ভাই, জামীল স্যারের রাত কামাই”

শফিকুল ইসলামঃ 

কিশোরগঞ্জের বন্যা কবলিত হাওর অঞ্চলের মানুষের জন্য জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে নিরন্তর কাজ করে চলেছেন আমাদের কিশোরগঞ্জের অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) তরফদার মো: আক্তার জামীল। আগাম বন্যায় যাতে হাওর এলাকার মানুষ ক্ষতিগ্রস্ত না হয় সেজন্য তিনি গত ২ এপ্রিল ২০১৭ তারিখে জেলা দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা কমিটির সভা করেন এবং সকলের মতামতের ভিত্তিতে সিদ্ধান্ত গ্রহণ করেন। এরপর গত ৬ তারিখ তিনি সরেজমিনে ইটনা ও মিঠামইনের বন্যা কবলিত স্থানসমূহ পরিদর্শন করেন। সাথে সফরসঙ্গী হিসেবে পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী পরিচালক ও সাংবাদিকবৃন্দ ছিলেন। তিনি সেখানে ক্ষতিগ্রস্ত মানুষের সাথে কথা বলেন এবং ৫ এপ্রিল ২০১৭ তারিখে দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ মন্ত্রণালয় হতে আসা ২ লক্ষ টাকা ও ১০০ মেট্রিক টন চাল তাদের জন্য বরাদ্দ প্রদান করেন। এরপর সন্ধ্যায় মাগরিবের নামাজের পর আঁধারে হাওরের পথ ঠেলে দেখা করেন মিঠামইনের মাননীয় সংসদ সদস্য রেজওয়ান আহমেদ তৌফিকের সাথে। সাথে ছিলেন পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী পরিচালক। তাদের সাথে যোগ দেন ইটনা ও মিঠামইনের উপজেলা নির্বাহী অফিসারবৃন্দ। পরে অনেক রাতে ফেরেন জেলা শহরে। আমিও এ সময় সাথে ছিলাম। গতকাল এসেছিলেন দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ মন্ত্রণালয়ের মাননীয় মন্ত্রী মোফাজ্জল হোসেন চৌধুরী মায়া এবং উক্ত মন্ত্রণালয়ের মাননীয় সচিব জনাব শাহ কামাল, ত্রাণ অধিদপ্তরের মহাপরিচালক মো: রিয়াজ আহমেদ, মন্ত্রণালয়ের যুগ্ম-সচিব অর্ধেন্দু শেখর রায়। গভীর রাত অবধি তাদের প্রটোকলের সমস্ত কাজ নিষ্পন্ন করে বাসায় ফিরেন। ভোরে আবার রওনা দেন ঢাকার উদ্দেশ্যে বিভাগীয় কমিশনার অফিসে সকাল ১১:০০ টার মিটিং ধরার জন্য। মিটিং শেষে গতকাল রাতেই ফেরেন কিশোরগঞ্জ। জানতে পারেন মহামান্য আসছেন মিঠামইনে বন্যাকবলিত এলাকা দেখতে। এসেই মহামান্যের সফরের এবং অফিসের অন্যান্য কাজ শুরু করেন। এদিকে আবার বৈশাখী উৎসব ১৪ তারিখ, ১৭ তারিখ মুজিবনগর দিবস। আজ আবার গিয়েছিলাম তাঁর অফিসে। রাত ১১:০৩ বাজে। সবাই চলে গেছে। তিনি একাকী একজন কম্পিউটার অপারেটরকে নিয়ে অফিসে কাজ করছেন। একেই বলে প্রশাসনিক ব্যস্ততা। যে কাজ করে সে শুধু কাজই করে। অন্যরা কেবল সমালোচনা করে, খুঁত খোঁজে। তাই বলছিলাম “মজা মারে ফজা ভাই, জামীল স্যারের রাত কামাই”। স্যার আপনি নিজের আনন্দে, সৎভাবে কাজ করুন, নি:স্বার্থভাবে, দেশের জন্য। আমরা জানি এটা আপনি করবেন আজীবন। আপনার জন্য শুভ কামনা নিরন্তর।

লেখকঃ সিনিয়র শিক্ষক, ইউনাইটেড স্কুল এন্ড কলেজ, কিশোরগঞ্জ।

 

মুক্তিযোদ্ধার কন্ঠ ডটকম/১৩-০৪-২০১৭ইং/ অর্থ 

Comments

comments

You might also like More from author

Leave A Reply

Your email address will not be published.