খতম তারাবি নামাজ পড়ার সময় একই পদ্ধতি অনুসরণের আহ্বান

ঢাকাঃ  পবিত্র রমজানে খতম তারাবি নামাজ পড়ার সময় দেশের সব মসজিদে একই পদ্ধতি অনুসরণের আহ্বান জানিয়েছে ইসলামিক ফাউন্ডেশন।
বৃহস্পতিবার ইসলামিক ফাউন্ডেশনের এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ আহ্বান জানানো হয়েছে।

রমজানের প্রথম ৬ দিনে দেড় পারা করে ৯ পারা ও বাকি ২১ দিনে ১ পারা করে ২১ পারা তিলাওয়াতের আহ্বান জানিয়েছে সরকারি সংস্থাটি।

বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, পবিত্র রমজানে দেশের বিভিন্ন মসজিদে খতম তারাবিতে পবিত্র কুরআনের নির্দিষ্ট পরিমাণ পারা তিলাওয়াত না করার রেওয়াজ চালু আছে। এতে কর্ম উপলক্ষে বিভিন্ন স্থানে যাতায়াতকারী মুসল্লিদের কুরআন খতমের ধারাবাহিকতা রক্ষা করা সম্ভব হয় না। এই অবস্থায় ধর্মপ্রাণ মুসল্লিদের মধ্যে একটি অতৃপ্তি ও মানসিক চাপ অনুভূত হয়। কুরআন খতমের পূর্ণ সওয়াব থেকেও তারা বঞ্চিত হন।

এ পরিস্থিতি নিরসনে রমজানের প্রথম ৬ দিনে দেড় পারা করে ৯ পারা ও বাকি ২১ দিনে ১ পারা করে ২১ পারা তিলাওয়াত করলে ২৭ রমজান রাতে অর্থাৎ পবিত্র লাইলাতুল ক্বদরে কুরআন খতম করা সম্ভব।

এর আগে বিষয়টি নিয়ে দেশবরেণ্য আলেম, পীর মাশায়েখ ও ইমামদের সঙ্গে আলোচনা হয়েছে, জানিয়ে বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, তারাও এ পদ্ধতিতে খতম তারাবি পড়ার পক্ষে অভিমত দিয়েছিলেন। সে অনুযায়ী অধিকাংশ মসজিদে এ পদ্ধতি অনুসরণ করা হয়।

তারাবি নামাজ ২০ রাকাত, যা রাসুলুল্লাহ (সা.) ও সাহাবীরা আমল করেছেন। ইসলামের প্রথম যুগ থেকে উলামা ও ফকিহরা তা অনুসরণ করে আসছেন। একই সঙ্গে মসজিদুল হারাম ও মসজিদুন নববীসহ সারা বিশ্বে মুসলমানরা এভাবেই তা পালন করে আসছেন। তারাবিতে কুরআন তিলাওয়াতের উচ্চারণ স্পষ্ট হওয়া বাঞ্চনীয় বলেও বিজ্ঞপ্তিতে উল্লেখ করা হয়েছে।

প্রসঙ্গত, চাঁদ দেখা সাপেক্ষে আগামী ২৭ বা ২৮ মে মুসলমানদের সিয়াম সাধনার মাস রমজান শুরু হচ্ছে। চাঁদ দেখার সংবাদ পর্যালোচনা এবং সংশ্লিষ্ট বিষয়ে সিদ্ধান্ত গ্রহণের লক্ষ্যে আগামীকাল শুক্রবার সন্ধ্যা সোয়া ৭টায় ইসলামিক ফাউন্ডেশনের (বায়তুল মোকাররম) সভাকক্ষে চাঁদ দেখা কমিটির সভা হবে।

Comments

comments

You might also like More from author

Leave A Reply

Your email address will not be published.

মুক্তিযোদ্ধার কন্ঠ