মুক্তিযোদ্ধা মেজর জিয়াউদ্দিন আর নেই

মুক্তিযোদ্ধার কথা :

একাত্তরে সুন্দরব্ন অঞ্চলে ৯ নম্বর সেক্টরে মুক্তিবাহিনীর নেতৃত্ব দেওয়া সাব-সেক্টর কমান্ডার ও বঙ্গবন্ধু হত্যা মামলার অন্যতম সাক্ষী অবসরপ্রাপ্ত মেজর জিয়াউদ্দিন আহমেদ ইন্তেকাল করেছেন (ইন্নালিল্লাহে ওয়া ইন্না ইলাইহে রাজিউন)।

শুক্রবার ভোর সাড়ে ৪টার দিকে সিঙ্গাপুরের মাউন্ট এলিজাবেথ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তিনি শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন।

এ মুক্তিযোদ্ধার মৃত্যুর খবর নিশ্চিত করেছেন তার ভাগ্নে শাহানুর রহমান শামীম জানান।

পারিবারিক সূত্রে জানা গেছে, মুক্তিযোদ্ধা মেজর জিয়াউদ্দিন অনেকদিন থেকেই অসুস্থ ছিলেন। শারীরিক অবস্থার অবনতি হওয়ায় গত ১ জুলাই তাকে রাজধানীর স্কয়ার হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।

পরে শারীরিক অবস্থার কিছুটা উন্নতি হলে তাকে কেবিনে আনা হয়। সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় স্ট্রোক করেন তিনি। পরে  ১১ জুলাই সিঙ্গাপুরে নেওয়া হয় তাকে।

এর আগে, সাব সেক্টর কমান্ডার জিয়ার লিভার সম্পূর্ণ নষ্ট হয়ে যায়। তাই দ্রুত লিভার প্রতিস্থাপন করার জন্য তাকে সিঙ্গাপুরে নেওয়া হয়।

মেজর (অব.) জিয়াউদ্দিন ১৯৬৯ সালে পাকিস্তান সেনাবাহিনীতে কমিশন লাভ করে সেকেন্ড লেফটেন্যান্ট পদে যোগ দেন।

১৯৭১ সালে সেনাবাহিনীর মেজর হিসেবে পশ্চিম পাকিস্তানে কর্মরত ছিলেন তিনি। পরে মুক্তিযুদ্ধ শুরু হলে জুলাই মাসে পাকিস্তান থেকে পালিয়ে যোগ দেন মহান মুক্তিযুদ্ধে। দায়িত্ব পান ৯ নম্বর সেক্টরের সুন্দরবন অঞ্চলের সাব সেক্টর কমান্ডার হিসেবে।

মুক্তিবাহিনীর জেড ফোর্সের অধীনে প্রথম ইস্ট বেঙ্গল রেজিমেন্টের অধিনায়ক হিসেবে তাকে নিয়োগ দেওয়া হয়। বীরত্বের সঙ্গে সুন্দরবন অঞ্চলকে শত্রুমুক্ত রাখার জন্য তাকে সুন্দরবনের ‘মুকুটহীন সম্রাট’ বলা হয়ে থাকে।

 

মুক্তিযোদ্ধার কণ্ঠ ডটকম/২৮-জুলাই২০১৭ইং/নোমান

Comments

comments

You might also like More from author

Comments are closed.