ভাসমান সবজি ক্ষেত পরিদর্শন করলেন এডিসি জেনারেল

মুক্তিযোদ্ধার কন্ঠ ,
আগস্ট ২২, ২০১৭ ১১:২৮ অপরাহ্ণ

রাজিবুল হক সিদ্দিকী, ভ্রাম্যমান প্রতিনিধি ।।

কিশোরগঞ্জে ভাসমান সবজি ক্ষেত পরিদর্শন করেছেন অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) ও উপসচিব তরফদার মো: আক্তার জামীল।

আজ ২২ আগস্ট ২০১৭ মঙ্গলবার তিনি সদর উপজেলার মহিনন্দ ইউনিয়নের কাশোরারচরের বিলে ভাসমান শাক-সবজি ও আমন বীজতলার ক্ষেত দেখতে যান।

এসময় তিনি ভাসমান সবজি উৎপাদনের ধাপ/বেডগুলো নৌকা যোগে ঘুরে ঘুরে দেখেন এবং ভাসমান বীজতলা ও সবজি চাষে সম্পৃক্ত চাষীদের সাথে কথা বলেন।

তার আগমনের খবর শুনে সবজি চাষীরা ছাড়াও এলাকাবাসীদের অনেকে উপস্থিত হলে তিনি তাদেরকেও বাড়ির আশ-পাশে থাকা পতিত জমি, ডোবা- নালা, পুকুর এবং জলাশয় যেখানে পানি রয়েছে সেগুলোতে ভাসমান শাক-সবজি আবাদের জন্য তাগিদ দেন। তিনি এজন্য জেলা প্রশাসনের পক্ষ হতে কোন ধরণের সাহায্যের প্রয়োজন হলে তা প্রদান করা হবে মর্মেও জানান।

উল্লেখ্য, ভাসমান সবজি চাষে সাধারণত কচুরিপানা ব্যবহার করা হয়ে থাকে। তবে হোগলা, সোলা, নলখাগড়া, বিভিন্ন ধরনের জলজ আগাছা, ধানের খড়, নাড়া, তুষ প্রভৃৃতিও ব্যবহার করা যায়। ভাসমান পদ্ধতিতে সবজি চাষে কোনো ধরনের সার বা সেচের প্রয়োজন হয় না। চাষ শেষে বেডটি জৈব সার হিসেবে জমিতে প্রয়োগ করা যায়। এটি একটি পরিবেশবান্ধব চাষাবাদ পদ্ধতি, যাতে অর্গানিক ফসল চাষ করা যায় এবং এ পদ্ধতিতে জেলেরা চাইলে একই সঙ্গে ফসল এবং মাছও চাষ করতে পারেন।

কিশোরগঞ্জে এ পদ্ধতিতে চাষাবাদ ক্রমশ: জনপ্রিয় হয়ে উঠছে।

 

মুক্তিযোদ্ধার কন্ঠ ডটকম/২২-০৮-২০১৭ইং/ অর্থ

Comments are closed.