রোহিঙ্গাদের গণহত্যার প্রমাণ মুছে ফেলতে তাদের মৃতদেহ পুড়িয়ে দিচ্ছে মিয়ানমার সেনাবাহিনী

আন্তর্জাতিক রিপোর্ট ।। মিয়ানমারের সেনা ও বেসামরিক নাগরিকরা রোহিঙ্গাদের গণহত্যার প্রমাণ মুছে ফেলতে তাদের মৃতদেহগুলো জড়ো করে পুড়িয়ে দিচ্ছে। আরকান প্রজেক্ট নামে একটি সংখ্যালঘু গ্রুপ এ তথ্য জানিয়েছে।

আরকান গ্রুপ রাখাইন রাজ্যে রোহিঙ্গাদের ওপর সেনা নিপীড়ন ও সহিংসতার ওপর নজরদারি চালাচ্ছে। সংস্থাটির পরিচালক ক্রিস লিওয়ার  জানিয়েছেন, রাথিডাউয়ং অঞ্চলের  একটি বসতিতে তার সংগঠন ১৩০জন রোহিঙ্গাকে হত্যার তথ্য-প্রমাণ সংগ্রহ করেছে। ওই অঞ্চলের আরো তিনটি গ্রামে আরো অর্ধশত লোককে হত্যার খবর পাওয়া গেছে।

বিবিসিকে দেওয়া সাক্ষাৎকারে তিনি বলেছেন, ‘কমপক্ষে ১৩০জনকে হত্যা করা হয়েছে। তবে আমরা মনে করছি এ সংখ্যা আরো অনেক বেশি।’

লিওয়ার বলেন, ‘নিরাপত্তার বাহিনীর সদস্যরা গ্রামগুলো ঘিরে ফেলে এবং এরপর তারা নির্বিচারে গুলিবর্ষণ করে। তবে আমরা জানতে পেরেছি, গত বছরের অক্টোবর ও নভেম্বরে যে সহিংসতা হয়েছিল সে সময়ের তুলনায় স্থানীয় বৌদ্ধ ধর্মাবলম্বীরা সেনাবাহিনীর সঙ্গে এ সহিংসতায় আরো বেশি করে যোগ দিচ্ছে।’

তিনি বলেন, ‘ আমরা আরো জানতে পেরেছি, কোনো প্রমাণ যাতে না থাকে সেজন্য হত্যার পর সেনাবাহিনী ও বেসামরিক নাগরিকরা  মৃতদেহগুলো জড়ো করে এবং পুড়িয়ে দেয়।’

আরকান প্রজেক্টের এ প্রতিবেদনের সত্যতা কোনো নিরপেক্ষ সূত্র থেকে অবশ্য যাচাই করা যায়নি। তবে সংস্থাটি দাবি করেছে তাদের পর্যবেক্ষক দল এখনো মিয়ানমারের ভেতরে কাজ করছে।

Comments are closed.