হাওড়ের মানুষ এখন আর পিছিয়ে নেই : এমপি তৌফিক

আমিনুল হক সাদী, নিজস্ব প্রতিবেদক ।। কিশোরগঞ্জ ৪ আসনের সংসদ সদস্য রাষ্ট্রপতিপুত্র আলহাজ্ব প্রকৌশলী রেজওয়ান আহাম্মদ তৌফিক এমপি বলেছেন, হাওড়ের মানুষ এখন আর পিছিয়ে নেই। সর্বক্ষেত্রে তারা এখন এগিয়ে যাচ্ছে। তাদের দিন বদলেছে, আগের দিন এখর আর নেই। প্রত্যন্ত হাওড়ের বাসিন্দাও এখন ঢাকা বিশ্ব বিদ্যালয়ের থেকে প্রথম স্থান লাভ করার গৌরব অর্জন করছে।
বুধবার দুপুরে কিশোরগঞ্জ মুক্তিযোদ্ধা সংসদ কার্যালয়ে ইটনা সমিতির আয়োজিত সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্য কালে তিনি এসব কথা বলেন।

তিনি বলেন, আদামাধা লেখাপড়া করবেন না কম পড়বেন ভাল করে শিখবেন, সর্বদায় মান সম্মত শিক্ষা গ্রহণ করতে হবে। আর ভালো করে শিক্ষা লাভ করলেই আমরা তথা হাওরবাসী এগিয়ে যাবে আরও। তথ্য প্রযুক্তির যুগে এখন কেউ লেখাপড়ায়ও ফাঁকি দিতে পারবে না। দেখা যায় হাওড়ের অনেক প্রতিষ্ঠানে শিক্ষক ও শিক্ষার্থীর উপস্থিতি কম। সে ক্ষেত্রে ফেসবুকে তাৎক্ষনিকভাবে খবর পেয়ে যাই কোন প্রতিষ্ঠানে কে বা কারা আসেনি। পানিতে থাকলেও টিপ মারলেই খবর বেরিয়ে আসে। তাই শিক্ষক ও শিক্ষার্থীদেরকে আরও সতর্ক হওয়ার আহবান জানান তিনি।
তিনি আরও বলেন,বর্তমান সরকার হাওরবাসীর জন্য বিভিন্ন প্রকল্প গ্রহণ করেছে।ব্যাপক কাজ হাতে নিয়েছে। বিশেষ করে হাওড়ের অনগ্রসর জনগোষ্ঠীর জন্য বিভিন্ন টেকনিক্যাল শিক্ষা প্রতিষ্ঠান গড়ে তোলার উদ্যোগ নিয়েছে।
সেবা বিনোদন সমন্বয় সম্প্রীতি প্রতিপাদ্যকে সামনে রেখে ইটনা সমিতির সভাপতি মো.আব্দুল মালেক অ্যাডভোকেট এর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি ছিলেন, ইটনা উপজেলা পরিষদের চেয়রম্যান অধ্যক্ষ চৌধুরী কামরুল হাসান ,জেলা পরিষদ সদস্য অ্যাডভোকেট আবুল কাওছার খান মিল্কী। বক্তব্য রাখেন, জেলা মুক্তিযোদ্ধা ইউনিটের সাবেক কমান্ডার মো.মাহবুবুল আলম, মো.আসাদ উল্লাহ, রাষ্ট্রপতি মো.আব্দুল হামিদ কলেজের অধ্যক্ষ মো.ইসলাম উদ্দিন, ইটনা উপজেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট মো.খলিলুর রহমান, ইটনা সমিতির সহসভাপতি মো.গিয়াস উদ্দিন খান মিল্কী। সভার শুরুতে সমিতির লক্ষ্য উদ্দেশ্য ও কার্যক্রম এবং উপজেলার ইতিহাস তুলে ধরে স্বাগত বক্তব্য রাখেন, ইটনা সমিতির সাধারণ সম্পাদক আলহাজ্ব মো.মেহের উদ্দিন। সংবর্ধনা অনুষ্ঠান বাস্তবায়ন কমিটির আহবায়ক মো.আলী হোসেন ও সহ নাধারণ এস এম মোস্তাফিজুর রহমানের পরিচালনায় অনুষ্ঠানে শিক্ষার্থীদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন,তাকরীম,ফাহমিদা আক্তার তৃপ্তি প্রমুখ।

পরে অতিথিবৃন্দ ইটনা উপজেলার ২০১৪ ও ২০১৫ সালের ১০৩ জন মেধাবী সৃজনশীল প্রতিভার অধিকারী শিক্ষার্থীদের বরণ,সংবর্ধণা এবং বৃত্তি প্রদান করে। প্রত্যেক শিক্ষার্থীকে সনদও দেওয়া হয়েছে। এছাড়াও চারজন অভিভাবককে সংবর্ধনা প্রদান করা হয়। অতিথিবৃন্দকেও সম্মাননা ক্রেষ্ট দেওয়া হয়। এ সময় সমিতির আজীবন সদস্য, কার্যকরী সদস্য, শিক্ষক শিক্ষার্থী, মুক্তিযোদ্ধা, সাংবাদিক ও গন্যমান্য লোকজন উপস্থিত ছিলেন।

 

মুক্তিযোদ্ধার কণ্ঠ ডটকম/০৬-০৯-২০১৭ইং/ অর্থ

Comments

comments

You might also like More from author

Comments are closed.

মুক্তিযোদ্ধার কন্ঠ