পাকুন্দিয়ার সাংবাদিক হত্যা চেষ্টার প্রতিবাদে কিশোরগঞ্জে মানববন্ধন

শফিক কবীর, স্টাফ রিপোর্টার ।। কিশোরগঞ্জের পাকুন্দিয়া প্রেসক্লাবের সাধারণ সম্পাদক খন্দকার আছাদুজ্জামানকে হত্যাচেষ্টার ঘটনায় জড়িত আসামীকে গ্রেফতার করেও ছেড়ে দেয়ার প্রতিবাদে ও পাকুন্দিয়া থানার ওসি মোহাম্মদ সামসুদ্দিনের বিচার ও অভিলম্বে প্রত্যাহারের দাবিতে কিশোরগঞ্জের সাংবাদিক সমাজ মানববন্ধন কর্মসুচি পালন করেছে। দুপুরে শহরের কালীবাড়ি মোড়ে ঘন্টাব্যাপী এ মানববন্ধন কর্মসুচি পালিত হয়।

সংগঠনের সভাপতি ইন্ডিপেন্ডেন্ট টিভির জেলা প্রতিনিধি সাইফউদ্দীন আহমেদ লেনিনের সভাপতিত্বে এ মানববন্ধন কর্মসুচিতে বক্তৃতা করেন দৈনিক শতাব্দীর কন্ঠ পত্রিকার সম্পাদক আহমেদ উল্লাহ, কিশোরগঞ্জ প্রেস ক্লাবের সাবেক সাধারণ সম্পাদক সুবীর বসাক, কিশোরগঞ্জ জেলা টেলিভিশন সাংবাদিক ফোরামের সাধারণ সম্পাদক সাকাউদ্দিন আহাম্মদ রাজন, কিশোরগঞ্জ প্রেস ক্লাবের সাধারণ সম্পাদক সাইফুল মালেক চৌধুরী, পাকুন্দিয়া প্রেস ক্লাবের সভাপতি প্রবীণ সাংবাদিক এম এ রশিদ ভুঁইয়া, গুরুদয়াল সরকারি কলেজের সাবেক জিএস এনায়েত করিম অমি, কিশোরগঞ্জ জেলা জাতীয় সাংবাদিক সংস্থার সভাপতি মো. রেজাউল হাবিব রেজা, হোসেনপুর প্রেস ক্লাবের সভাপতি প্রদীপ কুমার সরকার, জেলা কৃষক লীগের সাধারণ সম্পাদক সাংবাদিক আনোয়ার হোসেন বাচ্চু, ,এটিএন নিউজের জেলা প্রতিনিধি শফিক আদনান,কিশোরগঞ্জ ইতিহাস ঐতিহ্য সংরক্ষণ পরিষদের সাধারণ সম্পাদক সাংবাদিক আমিনুল হক সাদী,কৃষকলীগ নেতা আলমগীর হোসেন প্রমুখ।

বক্তারা বলেন, গত ৩১ আগস্ট নির্ভীক সাংবাদিক খন্দকার আছাদুজ্জামানকে হত্যার উদ্দেশ্যে কুপিয়ে গুরুতর জখম করে সন্ত্রাসীরা। এ ঘটনায় জড়িত সন্ত্রাসী নজরুল নামে এক আসামীকে ধরেও পুলিশ ছেড়ে দিয়েছে । তাছাড়া উল্টো গুরুতর জখমপ্রাপ্ত সাংবাদিক খন্দকার আছাদুজ্জামানকে আসামী করে মিথ্যা আরেকটি মামলা দায়ের করেছে। তাই সন্ত্রাসীদের মদদদাতা ওসি মোহাম্মদ সামসুদ্দীনের বিচার ও অভিলম্বে প্রত্যাহার ও সাংবাদিকের নামে দায়ের করা মিথ্যা মামলা প্রত্যাহার করার দাবি জানানো হয়। দাবি মানা না হলে আগামী রবিবার সকালে কিশোরগঞ্জ পুলিশ সুপারের কার্যালয়ের সামনে অবস্থান ধর্মঘটের ঘোষণা দিয়েছেন সাংবাদিকরা।

এ মানববন্ধন কর্মসুচিতে জেলার বিভিন্ন উপজেলা প্রেস ক্লাবের সাংবাদিক ও নাগরিক সমাজের প্রতিনিধিরা অংশ নেন।

 

 

মুক্তিযোদ্ধার কণ্ঠ ডটকম/০৭-০৯-২০১৭ইং/ অর্থ

Comments

comments

You might also like More from author

Comments are closed.

মুক্তিযোদ্ধার কন্ঠ