স্বামীর পরকীয়ায় বান্ধবীর আগুনে বলি হলেন রেখা

রাজশাহী প্রতিনিধি : বান্ধবীর দেয়া আগুনের ঘটনায় ঘটনায় টানা পাঁচ দিন মৃত্যুর সঙ্গে পাঞ্জা লড়ে শেষ পর্যন্ত হার মানলেন রেখা বেগম। সোমবার বিকেল ৬ টার দিকে চিকিসৎসকরা তাকে মৃত ঘোষণা করেন।

রোববার দুপুর থেকে রেখার অবস্থার অবনতি হয়। রোববার বিকেলে শ্বাস- প্রশ্বাসের কষ্ট বেড়ে যাওয়ায় তাকে অক্সিজেন দিয়ে রাখা হয়েছিলো। আজ দুপুরে অগ্নিদদ্ধ রেখার শারীরিক অবস্থা অশঙ্কাজনক হওয়ায় চিকিৎসকরা তাকে ইনটেনসিভ কেয়ার ইউনিটে (আইসিইউ) (নিবিড় পরিচর্যা কেন্দ্র) রেখে চিকিৎসার কথা বলে রেফার্ড করে দুপুরে।

কিন্তু আইসিইউতে নেয়ার আগেই স্বামীর পরকীয়ার বলি হয়ে শেষ নি:শ্বাস ত্যাগ করেন রেখা। মৃত্যুর বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন রেখা বেগমের ভাগ্নিনা মো. রঞ্জু।

অন্যদিকে, রাজশাহী মেডিকেল কলেজ (রামেক) হাসপাতালের বার্ন ইউনিটের চিকিৎসকরা জানিয়েছেন, রেখার শরীরের ৮০ শতাংশ পুড়ে গেছে। আর তাতেই তার মৃত্যু হয়েছে। এছাড়া তার ডায়াবেটিস ও উচ্চ রক্তচাপ আছে। তাকে বাঁচানো যায়নি শত চেষ্টা করেও।

এর আগে গত বৃহস্পতিবার (০৭ সেপ্টেম্বর) সন্ধ্যা সাড়ে ৭টার দিকে নগরীর দরগাপাড়া এলাকায় রেখার শরীরে পেট্রোল ঢেলে আগুন ধরিয়ে দিয়ে পালিয়ে যায় তার বান্ধবি ফেরদৌসি খাতুন। পরে স্থানীয়রা রেখাকে রামেক হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। রেখার কথার ভিত্তিতে ওই রাতেই অভিযান চালিয়ে ফেরদৌসি খাতুনকে আটক করে পুলিশ। তিনি কশাইপাড়া এলাকার আলম হোসেনের মেয়ে। এর আগে রেখার স্বামী কামরুল হুদাকে গত শানিবার দুপুরে নগরীর বোয়ালিয়া এলাকা থেকে তাকে গ্রেপ্তার করে পুলিশ।

মুক্তিযোদ্ধার কণ্ঠ ডটকম/১২-সেপ্টেম্বর২০১৭ইং/নোমান

Comments are closed.