ইসলামী আন্দোলনের মিয়ানমার দূতাবাস ঘেরাও কর্মসূচি পুলিশি বাধায় পণ্ড

আশরাফ আলী সোহান: মিয়ানমারের মুসলিম রোহিঙ্গা গণহত্যা বন্ধের দাবিতে আজ বুধবার ইসলামী আন্দোলনের ঢাকাস্থ মিয়ানমার দূতাবাস অভিমুখী মিছিল পণ্ড করে দিয়েছে পুলিশ। এদিকে ২১ সেপ্টেম্বর ঢাকাস্থ জাতিসংঘের অফিস ঘেরাওয়ের কর্মসূচি দিয়েছে দলটি।

বুধবার দুপুর সাড়ে ১২টায় বায়তুল মোকাররম উত্তর গেট থেকে হাজার হাজার নেতাকর্মী মিছিল নিয়ে গুলশানের উদ্দেশে রওনা হন। মিছিলটি পল্টন মোড় ঘুরে বিজয়নগর, কাকরাইল হয়ে শান্তিনগর মোড়ে পৌঁছুলে পুলিশ বাঁধা দেয়। ফলে মিছিলটি গুলশানে মিয়ানমার দূতাবাসে যেতে পারেনি।

পরে মিয়ানমারের মুসলিম রোহিঙ্গাদের ওপর দেশটির সেনাবাহিনীর বর্বর নির্যাতনের বিরুদ্ধে দৃষ্টান্তমূলক কোনো পদক্ষেপ না নেয়ায় ২১ সেপ্টেম্বর জাতিসংঘের ঢাকার অফিস ঘেরাওয়ের কর্মসূচি ঘোষণা করে ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ। শান্তিনগর মোড় থেকে সংগঠনটির পাঁচজনের একটি প্রতিনিধিদল মিয়ানমারের দূতাবাসে স্মারকলিপি দিতে গুলশানে যান। মিছিলে মিয়ানমারের জাতীয় পতাকা পোড়ানো হয়।

ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের আমীর ও পীর সাহেব চরমোনাই মুফতি সৈয়দ মুহাম্মদ রেজাউল করীমের নেতৃত্বে মিছিলে উপস্থিত ছিলেন ইসলামী আন্দোলনের নায়েবে আমির মুফতি সৈয়দ ফয়জুল করীম, প্রেসিডিয়াম সদস্য মাওলানা সৈয়দ মোসাদ্দেক বিল্লাহ আল মাদানি, মহাসচিব অধ্যক্ষ মাওলানা ইউনুছ আহমাদ, অধ্যাপক আশরাফ আলী আকন, মাওলানা ইমতিয়াজ আলম প্রমুখ।

সৈয়দ রেজাউল করিম জানান, আমাদের শান্তিপূর্ণ কর্মসূচি ছিল। কিন্তু পুলিশ বাধা দিয়ে ইসলাম বিরোধী মনোভাবের পরিচয় দিয়েছে। তিনি মিছিলের আগে সমাবেশে বলেন, ‘যাদের মধ্যে মানবতা আছে তারা মিয়ানমারে নিষ্ঠুরতা সহ্য করবে না। আমাদের প্রধানমন্ত্রীর বিবেকও নাড়া দিয়েছে। এজন্য তাকে ধন্যবাদ জানাই।’

 

মুক্তিযোদ্ধার কণ্ঠ ডটকম/সেপ্টেম্বর২০১৭ইং/নোমান

Comments are closed.