‘অং সান সু চি ও খালেদা জিয়া একই সুরে কথা বলছেন’

রাজনৈতিক রিপোর্ট : তথ্যমন্ত্রী হাসানুল হক ইনু বলেছেন, মিয়ানমারের স্টেট কাউন্সেলর অং সান সু চি এবং বিএনপি চেয়ারপার্সন খালেদা জিয়া একই সুরে কথা বলছেন।

আজ জাতীয় প্রেসক্লাবে বিশ্ব শান্তি দিবস উপলক্ষে বিশ্ব শান্তি পরিষদ আয়োজিত এক আলোচনা সভায় তিনি বলেন, ‘তারা শান্তির জন্য নয়।

তারা সহিংসতার প্রবক্তা। ’

সংগঠনের প্রেসিডিয়াম সদস্য ফজলে হোসেন বাদশা এমপির সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে সূচনা বক্তব্য রাখেন সংগঠনের সাধারণ সম্পাদক ড. ইঞ্জিনিয়ার এম এ কাশেম। আরও বক্তব্য রাখেন সাবেক রাষ্ট্রদূত মমতাজ হোসেন, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শান্তি ও সংঘর্ষ বিভাগের চেয়ারম্যান ড. তওহিদুল ইসলাম, গণতন্ত্রী পার্টির সাধারণ সম্পাদক ডা. শাহাদাত হোসেন প্রমুখ।

খালেদা জিয়াকে ‘সাম্প্রদায়িক’ এবং অং সান সু চি-কে ‘ধর্মনিরপেক্ষতা-বিরোধী’ হিসেবে অভিহিত করে হাসানুল হক ইনু বলেন, ‘তাদের বক্তব্যের ফলাফল হিসাবে এ অঞ্চলে সহিংসতা ও অস্থিতিশীলতার সৃষ্টি হবে। ’ তিনি রোহিঙ্গা শরণার্থীদের দ্রুত মিয়ানমারে প্রত্যাবর্তন, তাদের সম্মানজনক পুনর্বাসন, ক্ষয়ক্ষতি ও ভোগান্তির জন্য ক্ষতিপূরণ ও রোহিঙ্গাদের জন্য মিয়ানমারের নাগরিকত্ব এবং রোহিঙ্গা জনগোষ্ঠির উপর গণহত্যার জন্য দায়িদের বিচার দাবি করেন।

তিনি আবারও জোর দিয়ে বলেন, বাংলাদেশ, মিয়ানমার ও জাতিসংঘের ত্রিপক্ষীয় উদ্যোগই হচ্ছে রোহিঙ্গা সংকট সমাধানের সবচেয়ে ভালো উপায়।

তিনি চলমান রোহিঙ্গা সংকট মোকাবেলায় সরকারি- মানবিক, কূটনৈতিক এবং রাজনৈতিক- এই তিনধরনের কৌশলের উপর গুরুত্বারোপ করে বলেন, এই তিনটির সমন্বয় দীর্ঘদিনের রোহিঙ্গা সমস্যার সমাধানে বড়রকমের সাফল্য বয়ে আনবে।

রোহিঙ্গা জনগোষ্ঠির প্রতি সমবেদনা জানিয়ে তথ্যমন্ত্রী বলেন, বিপদের সময় মানবতার জন্য বাংলাদেশ যথাসাধ্য করছে।

যেসব দেশ ও সংগঠন সংকট মূহুর্তে রোহিঙ্গাদের সাহায্যার্থে এগিয়ে এসেছে, মন্ত্রী বিশেষভাবে তাদের প্রশংসা করেন।

তিনি গণমাধ্যমের প্রশংসা করে বলেন, ‘আমরা আশা করি, গণমাধ্যম মিয়ানমারের আরাকান রাজ্যের প্রকৃত ঘটনা প্রকাশ অব্যাহত রাখবে। ’

রোহিঙ্গা জনগোষ্ঠির বিরুদ্ধে সংগঠিত নিষ্ঠুরতার ব্যাপারে বৈশ্বিক প্রতিক্রিয়াকে স্বাগত জানিয়ে বলেন, গণমাধ্যমে ব্যাপক প্রচারের কারণেই মূলত সম্ভব হয়েছে।

Comments

comments

You might also like More from author

Comments are closed.

মুক্তিযোদ্ধার কন্ঠ