হাওরে অবাধে মাছ ধরার অধিকার প্রদানের দাবি : অকাল বন্যায় ক্ষতিগ্রস্ত কৃষকদের নগদ অর্থ সহায়তা দিল অস্ট্রেলিয়ার বাংলাদেশ মেডিকেল সোসাইটি

মন্তোষ চক্রবর্তী, ভ্রাম্যমাণ প্রতিনিধি ।। কিশোরগঞ্জের বাজিতপুর উপজেলা সদরে আজ শনিবার (২৩ সেপ্টেম্বর) অকাল বন্যায় ক্ষতিগ্রস্ত হাওরের কৃষকদের নগদ অর্থ সহায়তা দেওয়া হয়েছে। অস্ট্রেলিয়ার উত্তরা লের বাংলাদেশ মেডিক্যাল সোসাইটি বাজিতপুর পুনর্বিন্যাস পাঠাগারে ৩০জন নারী-পুরুষকে নগদ এক লাখ পাঁচ হাজার টাকা প্রদান করা হয়।
পাঠাগারে আয়োজিত এক অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন সাংবাদিক ও সংস্কৃতিকর্মী নাসরুল আনোয়ার। প্রধান অতিথি হিসাবে বক্তব্য রাখেন বাজিতপুরের প্রবীণ শিক্ষক মোঃ জিল্লুর রহমান মাস্টার, জয়নাল আবেদীন খান ও মোঃ শামসুল হক। এছাড়া অষ্টগ্রামের কলাপাড়ার ক্ষতিগ্রস্ত কৃষক মোঃ রঙ্গু খাঁ বক্তব্য রাখেন। আলোচনা সভার শেষে বাজিতপুরের ১৫ জন, অষ্টগ্রামের আটজন ও মিঠামইনের আরো সাতজন নারী-পুরুষকে নগদ টাকা তুলে দেওয়া হয়।
প্রধান অতিথি মো. জিল্লুর রহমান মাস্টার তাঁর বক্তব্যে বলেন, ‘এক সময় বিত্তবানরা সহায়-সম্বলহীন মানুষের পাশে এসে দাঁড়াতেন। এখন আর তেমনটি চোখে পড়ে না। আজকে প্রবাসী চিকিৎসকরা হাওরের ফসলহারা মানুষদের পাশে দাঁড়িয়ে দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছেন’।


অনুষ্ঠানের সভাপতি নাসরুল আনোয়ার বলেন, ‘অকাল বন্যায় ফসলহানির পর প্রায় পাঁচ মাস পার হতে চলেছে। হাওরা লের ২৪ লাখ কৃষক পরিবারের মধ্যে ৮০ ভাগ কৃষক ভয়ানক ক্ষতির শিকার হয়েছে। এরমধ্যে মাত্র তিন লাখ ৩০ হাজার কৃষক পরিবারকে সরকার বিশেষ ত্রাণের আওতায় আনে। ফলে এখনো বাদবাকি কৃষক পরিবারগুলোর খাদ্য নিরাপত্তা অনিশ্চিত’।
তিনি বলেন, ‘আর কয়েকদিন পরই নতুন করে বোরো ফসল রোপনের মৌসুম আসছে। এ অবস্থায় কৃষকের যেখানে খাবারের নিশ্চয়তা নেই; সেখানে তারা বোরো ফসলের মাঠে নামবে কী করে!’ হাওরের কৃষককে বাঁচিয়ে রাখতে তিনি অবিলম্বে হাওরে অবাধে মাছ ধরার অধিকার নিশ্চিত করা এবং প্রকৃত কৃষকদের বিনা সুদে কৃষিঋণ প্রদানের দাবি জানান।
বাংলাদেশ মেডিক্যাল সোসাইটি, অস্ট্রেলিয়া উত্তরা লের সভাপতি ডা. মোশাররফ খান, সাধারণ সম্পাদক ডাঃ সাইফুল হাবিব ও সদস্য ডাঃ মাইনুল হাসান টিটু জানান, জীবিকার তাগিদে তাঁরা পৃথিবীর এক কোণে অবস্থান করলেও বাংলাদেশের অসহায় মানুষদের ভোলেননি। সে তাগিদ থেকেই হাওরের ফসলহারা কৃষকদের এ সহায়তা করেছেন।

 

মুক্তিযোদ্ধার কন্ঠ ডটকম/২৩-০৯-২০১৭ইং/ অর্থ

Comments

comments

You might also like More from author

Comments are closed.

মুক্তিযোদ্ধার কন্ঠ