তাড়াইলের পল্লীতে দু’পক্ষের বিরোধে দোকান ঘরে হামলা লুটপাট

তাড়াইল (কিশোরগঞ্জ) প্রতিনিধি: কিশোরগঞ্জের তাড়াইল উপজেলার তালজাঙ্গা ইউনিয়নের আউজিয়া গ্রামে পূর্ব বিরোধে দোকানপাটে হামলা, ভাংচুর ও লুটপাটের ঘটনা ঘটেছে। এলাকাবাসী ও পুলিশ সূত্রে জানা যায়, আউজিয়া গ্রামের মতি ভূঞার বংশের সাথে লক্কু মিয়ার বংশের আগে থেকেই বিরোধ ছিল। এ বিরোধে দু’পক্ষের মাঝে একাধিকবার ধাওয়া পাল্টা ধাওয়া ও সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। গত ৭ সেপ্টেম্বর সংঘর্ষে দু’পক্ষের লোকজন আহত হলেও গুরুতর আশংকাজনক অবস্থায় রয়েছে মতি ভূঞার লোকজন। তাদের মাঝে আওয়াল, উজ্জ্বল ও আল আমিনকে প্রথমে তাড়াইল উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হলেও উন্নত চিকিৎসার জন্য কিশোরগঞ্জ ২৫০ শয্যা জেনারেল হাসপাতালে প্রেরণ করেন চিকিৎসকরা। এদিকে মতি ভূঞা বংশের লোকজন বাড়ীঘরে না থাকায় গ্রামের সুলতান মাস্টারের বাড়ীর সামনের রাস্তার মোড়ে ভাই ভাই জেনারেল স্টোর নামের ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে হামলা চালিয়ে লুটপাট শেষে ভাংচুর করেছে লক্কু বংশের আত্মীয় বিল্লাল, সোহেল, গেনু, মিজান গংরা। সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, ভাই ভাই জেনারেল স্টোরের ব্যবসা প্রতিষ্ঠানটির হাজার হাজার টাকার মালামাল ছড়িয়ে ছিটিয়ে পড়ে রয়েছে। দোকানের ক্যাশ বাক্সের টাকা, মোবাইল ব্যাংকিং ও বিকাশের লক্ষাধিক টাকা লুট করে নিয়ে যাওয়ার অভিযোগ রয়েছে লক্কু মিয়ার লোকজনের বিরুদ্ধে। ঘটনাস্থলে উপস্থিত থাকা লোকজনের নিকট জানতে চাইলে মঞ্জু মিয়া, আঃ ছালাম ও আলামিনসহ গ্রামের অনেকেই বলেন, মেরাজের ব্যবস্থা প্রতিষ্ঠানে প্রতিদিন মোবাইল ব্যাংকিংসহ বিভিন্ন মালামাল বিক্রির প্রায় ২ লক্ষাধিক টাকা ক্যাশে থাকে। আকষ্মিকভাবে দোকানে লুটপাট ও ভাংচুরের ঘটনা ঘটায় নগদ টাকা ও মূল্যবান দামী মালামাল দোকান থেকে দোকানের মালিক সরাতে পারেনি। উপস্থিত লোকজন জানান, ব্যবসা প্রতিষ্ঠানটিতে হামলা ও লুটপাটের ঘটনা পরিকল্পিত। তাছাড়াও এলাকার কয়েকজন আশংকা করে বলেন, যে কোন সময় মতি ভূঞার বাড়ীতে পুণরায় আক্রমন হওয়ার আশংকা রয়েছে। খবর পেয়ে তাড়াইল থানার এস.আই লিটনসহ পুলিশের একটি দল ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে ভিডিও চিত্র ধারণ করেছে বলে জানা গেছে। দোকানপাটে হামলা ও লুটপাটের ঘটনা স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান মোঃ সেলিম খান সত্যতা স্বীকার করে তিনি ক্ষোভ ও নিন্দা প্রকাশ করেন।

Comments

comments

You might also like More from author

Comments are closed.

মুক্তিযোদ্ধার কন্ঠ