করিমগঞ্জে আন্তর্জাতিক মানবতাবিরোধী অপরাধ ট্রাইবুন্যালের সাক্ষীদের ৫ দফা দাবী আদায়ের লক্ষে মানববন্ধন ও প্রধানমন্ত্রী বরাবরে স্মারকলিপি প্রদান

মুক্তিযোদ্ধার কন্ঠ ,
অক্টোবর ৫, ২০১৭ ৩:০০ অপরাহ্ণ

আমিনুল হক সাদী, নিজস্ব প্রতিবেদক ।। করিমগঞ্জে আন্তর্জাতিক মানবতাবিরোধী অপরাধ ট্রাইবুন্যালের সাক্ষীদের ৫ দফা দাবী আদায়ের লক্ষে মানববন্ধন ও প্রধানমন্ত্রী বরাবরে স্মারকলিপি দিয়েছে সাক্ষী সুরক্ষা ও সুবিধা আইন বাস্তবায়ন কমিটি।

জানা গেছে, করিমগঞ্জ উপজেলা পরিষদের সামনে বৃহস্পতিবার দুপুরে করিমগঞ্জের সাক্ষী সুরক্ষা ও সুবিধা আইন বাস্তবায়ন কমিটির আয়োজনে ঘন্টাব্যাপী এ মানববন্ধন কর্মসুচী পালন করে। করিমগঞ্জের যুদ্ধাপরাধ মামলার উদ্যেক্তা সাক্ষী সুরক্ষা ও সুবিধা আইন বাস্তবায়ন কমিটির আহবায়ক মো. রেজাউল হাবীব রেজার নেতৃত্বে অনুষ্ঠিত মানববন্ধনে বক্তৃতা করেন, শহিদ পরিবারের সদস্য মো.আদম আলী,মীর গোলাম মোস্তফা,আ.গণি,গোলাপ মিয়া, হাফিজা খাতুন,সাবেক কাউন্সিলর আনিসুর রহমান মেনু,শহিদ পরিবারের সন্তান আনিসুর রহমান টুকু প্রমুখ।

মানববন্ধন শেষে একটি বিক্ষোভ মিছিল উপজেলার প্রধান প্রধান সড়ক প্রদক্ষিণ করে উপজেলা নির্বাহী অফিসারের কার্যালয়ে গিয়ে সমাপ্ত হয় এবং নির্বাহী অফিসারের মাধ্যমে প্রধানমন্ত্রী বরাবরে একটি স্মারকলিপি প্রদান করে।

স্মারকলিপিতে উল্লেখ করা হয়েছে আন্তর্জাতিক মানবতা বিরোধী অপরাধ ট্রাইবুন্যালের একাত্তরের খুনি ধর্ষক লুন্ঠনকারী ও অগ্নিসংযোগকারী রাজাকারদের বিরুদ্ধে সাক্ষ্য প্রদান করেছি। বর্তমানে আমরা উৎকন্ঠায় ও শংকিত অবস্থায় আছি। এমতাবস্থায় আমাদের পাঁচ দফা দাবী আদায়ের লক্ষে সরকারের কাছে আবেদন জানাচ্ছি। দাবী সমুহ হলো, ০১ সাক্ষীদেরকে ঝুঁকিতে রেখে আমরা কোনরুপ নির্বাচন চাই না ০২ সাক্ষীদের সুরক্ষা ও সুবিধা আইন অবিলম্বে পাশ করতে হবে এবং তা অবিলম্বে কার্যকর করতে হবে ০৩ সাক্ষীদেরকে দ্বিতীয় পর্বের মুক্তিযোদ্ধা হিসেবে স্বীকৃতি দিতে হবে ০৪ ক্ষতিগ্রস্থ সাক্ষী ও সহযোগীদের ক্ষতিপুরণ দিতে হবে ০৫ রাজাকার ও রাজাকার প্রজন্মদেরে যে কোন প্রকার নেতৃত্ব খতম করে মুক্তিযুদ্ধের পক্ষের সৎ ও সাহসী ব্যক্তিদের নেতৃত্ব প্রতিষ্ঠা করতে হবে।

স্মারকলিপিটি গ্রহণ করেন করিমগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী অফিসার মাহমুদা। এ সময মুক্তিযোদ্ধা ও মুক্তিযোদ্ধার সন্তান এবং একাত্তরে শহীদ পরিবারের সদস্যরা উপস্থিত ছিলেন।

Comments are closed.