এএসও গাইবান্ধার পক্ষ থেকে জেএসসি ও জেডিসি পরীক্ষার্থীদের জন্য শুভকামনা

মোঃ মেহেদী হাসান, গাইবান্ধা।। জেএসসি ও জেডিসি পরীক্ষার্থীদের জন্য কিছু পরামর্শ এবং অ্যান্টি স্মোকিং অর্গানাইজেশন (এএসও) গাইবান্ধার পক্ষ থেকে সবার জন্য রইল শুভ কামনা!
EDUCATION IS THE BACKBONE OF A NATION – শিক্ষাই জাতির মেরুদণ্ড। যে জাতি যত শিক্ষিত সে জাতি তত উন্নত প্রতি বারের মতো এবারো অনুষ্ঠিত হচ্ছে জেএসসি ও জেডেসি পরীক্ষা।
আমাদের এ জীবনে সময় কারো জন্য অপেক্ষা করে না কিছু দিনের মধ্যে কেটে যায় একটি বছর। আর প্রত্যেক বছর অনুষ্ঠিত হয় কিছু পরীক্ষা। এ পরীক্ষা কারো জন্য হয় শেষ বা কারো নতুন জীবন শুরু। এজন্য এ পরীক্ষা সবার জন্য অতি গুরুতপূর্ন। জীবনে কোনো কিছুকে নিচু মনে করতে নেই। যেখানে দেখিবে ছাই উড়িয়া দেখিবে তাই পাইলও পাইতে পারো অমূল্য রতন।
জেএসসি/জেডিসি পরীক্ষা আগামী ১ নভেম্বর থেকে শুরু হবে। চলবে ১৮ নভেম্বর পর্যন্ত। এবার পরীক্ষায় ছাত্রের তুলনায় ছাত্রী অনেক বেশি। ছাত্রীর সংখ্যা ১ লাখ ৭৯ হাজার ২৬৪ জন বেশি। এবারে জুনিয়র স্কুল সার্টিফিকেট (জেএসসি) ও জুনিয়র দাখিল সার্টিফিকেট (জেডিসি) এ দুই পরীক্ষায় মোট পরীক্ষার্থী ২৪ লাখ ৬৮ হাজার ৮২০ জন। এর মধ্যে ছাত্রীর সংখ্যা ১৩ লাখ ২৪ হাজার ৪২। আর ছাত্র ১১ লাখ ৪৪ হাজার ৭৭৮।
জেএসসি/জেডিসি পরীক্ষার্থীদের জন্য কিছু পরামর্শঃ
কৈশরের শিক্ষার্থীদের একটি অতি গুরুত্বপূর্ণ পরীক্ষা হচ্ছে জেএসসি। সারা বছরের প্রস্তুতির পরিসমাপ্তি এবং সনদের মাধ্যমে স্বীকৃতি আসবে এই পরীক্ষার মাধ্যমে। সুতরাং শেষ দিনগুলোতে কিছু নিয়ম কানুন মেনে চলতে হবে। মনে রাখবে এখান থেকেই তোমার স্বপ্নের যাত্রা শুরু। তুমি ডাক্তার/ইঞ্জিনিয়ার/ব্যাংকার/শিক্ষক কি হতে পারবে, তোমার ফলাফলই তা বলে দেবে।
পরীক্ষার সময়সূচি এখনই তোমার পড়ার টেবিলের সামনে অবশ্যই লাগিয়ে রাখবে। এতে পরীক্ষার দিন ও তারিখ সহজেই দেখে নিতে পারবে।
১। পরীক্ষার আগের রাতে করণীয়ঃ পরীক্ষার্থীর জন্য খুবই গুরুত্বপূর্ণ একটি রাত পরীক্ষার আগের রাত। এই রাতে শুধুই পরবর্তী দিনের পরীক্ষার বিষয়ে মনোযোগ দিয়ে বার বার অনুসরণ করতে হবে। যেমন কোন বিষয় – কতটি প্রশ্ন থাকবে কতটি প্রশ্নের উত্তর লিখতে হবে ?
ঠিকমত যেতে হবে। কোন অবস্থাতেই অনেক রাত পর্যন্ত জেগে থাকা যাবে না। ভালোভাবে পরীক্ষা দেওয়ার জন্য ভালো ঘুম যথেষ্ট প্রয়োজন।
২। রাতে ঘুমাতে যাওয়ার আগে করণীয়ঃ পরীক্ষার প্রবেশপত্র পরীক্ষা সংক্রান্ত সামগ্রী অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। তাই ঘুমাতে যাওয়ার আগেই প্রবেশপত্র, কলম, পেনসিল, ইরেজার, স্কেল ইত্যাদি গুছিয়ে রাখবে। কারণ পরের দিন পরীক্ষা কেন্দ্রে যাওয়ার সময় যদি এসব গোছাতে যাও তাহলে সময় অপচয় হবে। তাড়াহুড়োর কারণে অস্তিরতায় ভুগতে হবে। এবং ভুল হতে পারে। তাই পরীক্ষার উপকরণগুলো অবশ্যই রাতে ঠিকঠাক করে রাখবে।
৩। পরীক্ষা কেন্দ্রে প্রবেশের আগে যা করতে হবেঃ Final check up অবশ্যই দেখে নেবে প্রবেশপত্র এবং পরীক্ষা সংক্রান্ত সব সামগ্রী। মনে রাখবা প্রবেশপত্র ও পরীক্ষা সামগ্রী ছাড়া অন্য কোন বই, খাতা বা কাগজ সঙ্গে নেওয়া যাবেনা।
৪। পরীক্ষা কেন্দ্রে মূল করণীয়ঃ কমপক্ষে ১৫ মিনিট আগে অবশ্যই তোমার আসন গ্রহণ করবে। বন্ধুদের সঙ্গে হই চই না করে পরীক্ষার প্রস্তুতি নিয়ে একটু চিন্তা কর।
ক) আগে প্রশ্ন অবশ্যই পড়তে হবে।
খ) প্রশ্ন বুঝে যথাযথ উত্তর দেবে।
গ) উত্তরপত্রে কাটাকাটি করবে না।
ঘ) ছবি অংকনের প্রয়োজন হলে অবশ্যই পেন্সিল দিয়ে আঁকবে।
ঙ) বানান ভুল করা যাবে না।
চ) উত্তরপত্রে ক্রমিক নম্বর প্রশ্নের দাগ নম্বরটি সঠিকভাবে লিখতে হবে।
ছ) উত্তর লেখা শেষে অবশ্যই রিভিশন দেবে।
মনে রাখতে হবে পরীক্ষার হলে সময় বন্টন খুবই গুরুত্বপূর্ণ।
সবাই ভালো থাকেন সুস্থ থাকেন। পরীক্ষার্থীদের সকলের প্রতি রইলো আমাদের সবার দোয়া। আশা করি সবাই ভালো ফলাফল লাভ করবেন।

মুক্তিযোদ্ধার কণ্ঠ ডটকম/৩১-অক্টোবর২০১৭ইং/নোমান

Comments are closed.