কটিয়াদীতে শীতের আগাম সবজি ফুলকপি, শিম, টমেটো! তুলনামূলক দাম বেশি

মোঃ ছিদ্দিক মিয়া, কটিয়াদী (কিশোরগঞ্জ) প্রতিনিধি : শীত না এলেও শীতের সবজি আসতে শুরু করেছে কটিয়াদীরের বাজারগুলোতে। তবে দাম তুলনামূলক বেশি।বাজারভেদে দামেরও হেরফের রয়েছে।

সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, কটিয়াদী উপজেলার নতুন বাজার,পুরাতন বাজার,বাসষ্ট্যান্ড বাজার, নদীরবাঁধ বাজার সহ সব বাজারেই শীতের সবজি আসা শুরু করেছে ।এদিকে দামের ক্ষেত্রে বেশ ভিন্নতাও পাওয়া গেছে। বিভিন্ন ধরনের শীতের সবজি নিয়ে বসেছেন বিক্রেতারা।সবজির মধ্যে শিম বিক্রি হচ্ছে প্রতি কেজি ১৫০ থেকে ২০০ টাকায়, ফুলকপি প্রতিটি ৪৫ থেকে ৫০টাকা, বাঁধাকপি প্রতিটি ৪০ থেকে ৪৫ টাকা ও বেগুন প্রতি কেজি ৬০ থেকে ৭০ টাকায়। এ ছাড়া প্রতি কেজি ধনে পাতা ২৫০-২৮০ টাকা, গাজর ৭০ টাকা, মুলা ৪০ টাকা, করলা ও চিচিঙ্গা ৫০ টাকা, বরবটি ৭০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে।

ক্রেতারা, বিক্রেতারা আরও জানান এখনো নতুন আলু আসেনি আগামী এক মাসের মধ্যেই নতুন আলুও বাজারে পাওয়া যাবে। তবে এখন আলুর দাম বেশি হলেও নতুন আলু আসলে দাম কমবে। বাজারের সবজি বিক্রেতা বলেন, কয়েক সপ্তাহ ধরেই শীতের নানা ধরনের সবজি বিক্রি শুরু হয়েছে। দিন দিন সরবরাহ বাড়ছে। তবে নতুন বলে দাম কিছুটা বেশি। সবজি বিক্রেতা আঃ কুদ্দুছ জানায়, মাস খানিক পরেই সবজির দাম কমে যাবে। এখন দাম তুলনামূলক একটু বেশি।

বিক্রেতারা বলছেন, সবজিগুলো বাজারে নতুন ওঠানোর সময় দাম বেশিই রাখা হয়। কৃষকদের কাছ থেকে বেশি দামে কিনতে হয় বলে বিক্রিও করতে হয় বেশিদামে। তবে শীত বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে সবজির সরবরাহ বেড়ে গেলে দামও কমে আসবে।

আরেক বিক্রেতা জানালেন, বিক্রেতাদের বেশি দামে সবজি কিনতে হচ্ছে। এ কারণে তাঁরা ক্রেতাদের কাছে দাম বেশি রাখছেন। বাজারে এক ক্রেতা মোঃ আলী’ জানায়, বাজারে বেশি দামে সবজি কিনতে হয়েছে। শীতের সবজির সঙ্গে বিক্রি হচ্ছে জলপাইও। অনেকে ডাল বা টকের তরকারি হিসেবে জলপাই ব্যবহার করেন। অনেকে জলপাইয়ের আচার বানান। জলপাই বিক্রি হচ্ছে ৪০ থেকে ৫০ টাকা কেজিতে।

মুক্তিযোদ্ধার কণ্ঠ ডটকম/০২-নভেম্বর২০১৭ইং/নোমান

Comments are closed.