কুলিয়ারচরে দূর্ভোগের শিকার পথচারীরা, সরকারি টাকা অপব্যবহারের নমুনা…..

মুহাম্মদ কাইসার হামিদ, ভ্রাম্যমাণ প্রতিনিধি।। কিশোরগঞ্জের কুলিয়ারচর উপজেলার উছমানপুর ইউনিয়নে সরকারের ৩১ লক্ষ ৮৩ হাজার ৫৩৬ টাকা ব্যয়ে নির্মিত দুটি সেতু কোন কাজে লাগছেনা এলাকাবাসীর।

দুটি সেতু নির্মাণ হওয়ার ফলে পথচারীরা দূর্ভোগের শিকার হচ্ছে । এলাকাবাসী জানান সেতু নির্মাণের আগে রাস্তা নির্মাণ হওয়ার দরকার ছিল। তা না করে উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন অফিস কর্তৃক সরকারী টাকা ব্যয়ে দুটি সেতু নির্মাণ করে । যা এলাকাবাসীর কোন কাজেই আসছেনা । সেতু নির্মাণ হওয়ার কারণে এই রাস্তা দিয়ে এলকাবাসীর যাতায়াতে বিঘœ ঘটছে।

জানা যায়, গত অর্থ বছরের ৩০জুন উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন অফিস কর্র্তৃক উপজেলার উছমানপুর ডিসি রাস্তা হতে ছিনাইপুরী কুলিয়ারচর-বাজিতপুর রাস্তা পর্যন্ত রাস্তায় মুসলিম মিয়ার বাড়ীর জমির পাশে ১৫লক্ষ ৯১ হাজার ৭৬৮ টাকা ব্যয়ে নির্মিত সেতুটির দু’পাশে রাস্তায় সিটিউল অনুযায়ী মাটি ভরাট না করায় সেতুটি কোন কাজেই আসছে না। সেতুটি নির্মাণের কাজ করেন, কিশোরগঞ্জ জেলার অষ্ট্রগ্রাম উপজেলার টিকাদারী প্রতিষ্ঠান মের্সাস শহীদুল ইসলাম জেমস ।

এ ব্যাপারে টিকাদারী প্রতিষ্ঠান মের্সাস শহীদুল ইসলাম জেমস এর দায়িত্বে থাকা বিশম্বর বাবুর সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন , কিছু দিনের মধ্যেই সেতুর দু’পাশে সংযোগ রাস্তায় মাটি ভরাটের কাজ শুরু করা হবে । অপর দিকে একই ইউনিয়নের উছমাপুর ডিসি রাস্তা নয়নের দোকানের মোড় হতে রেললাইনের পাশে ঈদগাহ নিকট পর্যন্ত রাস্তায় ১৫লক্ষ ৯১ হাজার ৭৬৮ টাকা ব্যয়ে নির্মিত সেতুটির দু’পাশে রাস্তায় সিটিউল অনুযায়ী মাটি ভরাট না করায় ওই সেতুটিও কোন কাজেই আসছে না। উক্ত সেতু নির্মাণের কাজ করেন কুলিয়ারচর উপজেলার টিকাদারী প্রতিষ্ঠান মেসার্স সামিয়া এন্টারপ্রাইজ ।

এ ব্যাপারে টিকাদারী প্রতিষ্ঠান সামিয়া এন্টারপ্রাইজের টিকাদার শাহ নবীর সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, যতটুকু জায়গায় মাটি ভরাট হয়নি উক্ত জায়গায় মাটি ভরাটের কাজ কিছু দিনের মধ্যেই শুরু হবে । দু’টি, সেতুর ব্যাপারে উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা মোঃ নজরুল ইসলাম বলেন, মাটি ভরাট না করার কারণে দু’টি সেতুর চূড়ান্ত প্রতিবেদন দেওয়া হয়নি।

Comments

comments

You might also like More from author

Comments are closed.

মুক্তিযোদ্ধার কন্ঠ