মৌলভীবাজারের ২ রাজাকারের ফাঁসি, ৩ জনের আমৃত্যু কারাদ

মুক্তিযোদ্ধার কন্ঠ ,
জানুয়ারি ১০, ২০১৮ ১০:৪৬ অপরাহ্ণ

ঢাকা ।। একাত্তরে মুক্তিযুদ্ধ চলাকালে মানবতাবরোধী অপরাধের মামলায় মৌলভীবাজারের পাচঁ আসামির মধ্যে নেছার আলী (৭৫) ও উজের আহমেদ চৌধরীকে (৬৩) মৃত্যুদণ্ডদিয়েছেন আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনাল। অপর তিন অভিযুক্ত সামছুল হোসেন তরফদার ওরফে আশরাফ (৬৫), ইউনুছআহমদ (৭১) ও মোবারক মিয়াকে (৬৬) আমৃত্যু কারাদণ্ড দেওয়া হয়েছে।আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনালের চেয়ারম্যান বিচারপতি শাহিনুর ইসলামের নেতৃত্বে তিন সদস্যের বেঞ্চ বুধবার এ রায় দেন। এটি ট্রাইব্যুনালের ৩০ তম মামলার রায়।আসামিদের বিরুদ্ধে পাঁচ ধরনের অভিযোগ আনা হয়। এক নম্বর অভিযোগে পাঁচজনের যাবজ্জীবন কারাদণ্ড, দুই নম্বর অভিযোগে তিনজনের যাবজ্জীবন, তিন নম্বর অভিযোগেদুইজনের পাঁচ বছর করে কারাদণ্ড, চার নম্বর অভিযোগে ৫ জনের আমৃত্যু কারাদণ্ড, পাঁচ নম্বর অভিযোগে দুই জনের মৃত্যুদণ্ড ও তিনজনের যাবজ্জীবন কারাদণ্ড দেওয়া হয়েছে।রায়ের পর প্রসিকিউটর ব্যারিস্টার তুরিন আফরোজ জানান,এ রায়ে আদালত দুটি পর্যবেক্ষণ দিয়েছেন। এই বিচার একাত্তরের অপরাধের ভয়াবহতাকে স্মরণ করিয়ে দেয়। আরেকটি হলো, সাজা কমানোর জন্য বয়স কোনো অজুহাত হতে পারে না।

বুধবার সকাল ১১টায় ওই পাঁচ আসামির বিরুদ্ধে ২০২ পৃষ্ঠার রায় পড়া শুরু হয়। রায় ঘোষণার সময় আসামি ইউনুছআহমদ ও উজের আহমেদ চৌধুরী ট্রাইব্যুনালে উপস্থিত ছিলেন। কাশিমপুর কারাগার থেকে সকালেই তাদের আদালতে আনা হয়। বাকি তিন আসামি পলাতক রয়েছেন।আরও পড়ুন :বিশ্বের ভয়ংকর ৫ কারাগার যা অপরাধীদের জন্য নরক সমতুল্য! (ভিডিওসহ)গত ২০ নভেম্বর প্রসিকিউশন ও আসামিপক্ষের যুক্তিতর্ক শেষে মামলাটি রায়ের জন্য অপেক্ষমাণ (সিএভি) রেখে আদেশ দেয় ট্রাইব্যুনাল।ট্রাইব্যুনালে রাষ্ট্রপক্ষে ছিলেন প্রসিকিউটর সুলতান মাহমুদ সীমন, রেজিয়া সুলতানা চমন ও আবুল কালাম। আসামিপক্ষে ছিলেন আবদুস সোবহান তরফদার, মুজাহিদুল ইসলাম শাহিন।প্রসিকিউটর সুলতান মাহমুদ সীমন সাংবাদিকদের বলেন, এ আসামিদের বিরুদ্ধে প্রসিকিউশনের পক্ষ থেকে হত্যা, গণহত্যা, আটক, অগ্নিসংযোগ ও লুটপাটসহ পাঁচটি অভিযোগ আনা হয়েছে। আমরা প্রসিকিউশনের পক্ষ থেকে সবগুলো অভিযোগ সন্দেহাতীতভাবে প্রমাণ করতে সক্ষম হয়েছি। সেই তথ্য-প্রমাণের ভিত্তিতেই ট্রাইব্যুনাল রায় দিয়েছেন।২০১৪ সালের ১২ অক্টোবর ওই পাঁচ আসামির বিরুদ্ধে তদন্ত শুরুর পর ২০১৬ সালের ২৬ মে ট্রাইব্যুনালে আনুষ্ঠানিক অভিযোগ দাখিল করে প্রসিকিউশন। একই বছর ৮ ডিসেম্বর এই ৫ জনের বিরুদ্ধে অভিযোগ গঠনের মধ্য দিয়ে আনুষ্ঠানিকভাবে বিচার শুরু হয়।সবশেষ যুক্তিতর্কের পরে ২০১৭ সালের ২০ নভেম্বর মামলাটি সিএভি করেন। প্রসিকিউশনের পক্ষে ১৩ জন সাক্ষী-জবানবন্দি দেন।

Comments are closed.