স্বকীয়-সক্ষমতায় আস্থা রাখুন, সফলতা আসবেই : জীবন তাপস তন্ময়

মুক্তকলাম ।। মানুষ কী ভাবলো না ভাবলো, এসব দুশ্চিন্তার চেয়ে নিজের কাছে আমরা কতোটা স্বচ্ছ নির্মল অনাবিল সেটাই সবার আগে নিরূপণ করা উচিত। ‘পাছে লোকে কিছু বলে ‘ এই অমূলক ভাবনা ই আমাদের পেছনে সরিয়ে রাখে সমুহ সম্ভাবনা থেকে। সাধারণ মানুষের কোনো স্বতন্ত্র – স্বকীয়তা থাকে না। নিজস্ব কোনো ভাবনা থাকে না। অন্যের ভাবনাকে তারা শুধু নিজের মধ্যে ধারণ করে মাত্র। এর বেশি কিছুই নয়। সাধারণ মানুষের কৃত্রিম ভাবনাকে যারা মূল্য দেয়, তারা কখনওই অসাধারণ কোনো কিছু করতে পারে না। আগে নিজের সক্ষমতার উপর আস্থা রাখা, আরও অধিকতর যোগ্য হয়ে উঠার অনুশীলন-অন্বেষা বজায় রাখা, বিশ্বের আইকন ব্যক্তিত্বদের কথা মাথায় রাখা, নিজের সেরাটা দিয়ে সবার থেকে আলাদা আলোয় উদ্ভাসিত হয়ে উঠাই হোক আমাদের অভিষ্ঠ। আমি নিজেও জানি না আমার যোগ্যতা কতো বড়, কী পারবো না পারবো, তাই আগে থেকেই নিজেকে ছোট- গৌণ-অযোগ্য-অক্ষম-অপাঙক্তেয় ভাবার কিছু নেই। ‘আমি পারবোই’ এই প্রতীতি নিজের মধ্যে ধরে রাখায়ই আসল শোভন কাজ। এর ব্যত্যয় দেখা দিলে, সফলতা কখনওই আর ধরা দেবে না। সম্ভাবনা, সক্ষমতা ও যোগ্যতা থাকতেও অনেকেই ঝরে পড়ে শুধু আত্মবিশ্বাসের চাষাবাদ না করায়। মানুষ মাত্রই ভুল হওয়া স্বাভাবিক। যখনই মনে হবে আমি ভুল করেছি, তখনই অনতি দেরিতে নিজেকে সংশোধন করে ফেলা ই বুদ্ধিমানের কাজ। ক্ষমা একটি মহৎ গুণ। এতে নিজে ছোট হওয়া বোঝায় না, মহানুভবতা ই প্রকাশ পায়। নিজের মর্যাদা বাড়ে। কেউ যখন আপনাকে হিংসা করে, বুঝতে হবে আপনার এই যোগ্যতা দক্ষতা সক্ষমতা সে নিজের মধ্যেও চায়, নিজেকেও সে আপনার মতোই আত্মবিশ্বাসী আর সক্ষম দেখতে চায়। বিচলিত হতে নেই।

নিজের মধ্যে নিজেকে খুঁজে নিন, নিজেকে নিয়েই স্বপ্নের সমান বড় হয়ে ওঠুন। আপনাকে আর ঠেকায় কে?

 

লেখক : সাহিত্যিক, সাংবাদিক, কলামিস্ট।


আরও পড়ুন

1 Comment

  1. hi!,I really like your writing very a lot! share we keep in touch more approximately your article on AOL? I need an expert in this space to unravel my problem. Maybe that is you! Looking ahead to peer you.

Comments are closed.