রাশিয়ার সঙ্গে ট্রাম্পের সম্পৃক্ততা থাকার ঘোষণা রিপাবলিকানদের

Muktijoddhar Kantho , Muktijoddhar Kantho
মার্চ ১৩, ২০১৮ ১:০৫ অপরাহ্ণ

 ২০১৬ সালের নির্বাচন ও রাশিয়ার হস্তক্ষেপ বিষয়ে তদন্ত করে মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের প্রচারণা দলের কোনও সম্পৃক্ততা পাওয়া যায়নি বলে জানিয়েছেন যুক্তরাষ্ট্রের হাউস ইন্টিলিজেন্স কমিটির রিপাবলিকান সদস্যরা । তবে ডেমোক্র্যাটরা এই তদন্তকে অসম্পূর্ণ দাবি করে তীব্র বিরোধিতা করেছেন। ব্রিটিশ বার্তা সংস্থা রয়টার্স এ খবর জানিয়েছে।

হাউস ইন্টিলিজেন্স কমিটির রিপাবলিকান প্রতিনিধিরা বলেন, তারা স্বীকার করেন সামাজিক মাধ্যমে প্রোপাগান্ডা ও ভুয়া খবর ছড়ানোর মাধ্যমে রাশিয়া নির্বাচনে প্রভাব বিস্তারের চেষ্টা করেছে। কিন্তু কেন্দ্রীয় গোয়েন্দা সংস্থা-সিআইএ, জাতীয় নিরাপত্তা সংস্থা-এনএসএ ও কেন্দ্রীয় তদন্ত ব্যুরো-এফবিআই’র মতের বিপক্ষে অবস্থান নিয়েছেন তারা। এসব সংস্থার প্রতিবেদনে বল হয়েছে, রাশিয়া ট্রাম্পকে সহায়তার জন্য এসব করেছে।

রিপাবলিকান প্রতিনিধি মাইক কোনাওয়ে রয়টার্সকে বলেন, আমরা তদন্তের সাক্ষাৎকার পর্ব শেষ করেছি। এখন খসড়া প্রতিবেদন তৈরির কাজ চলছে।

ওই কমিটির ডেমোক্র্যাট প্রতিনিধি অ্যাডাম সিফ এর তীব্র বিরোধিতা করেন। তিনি এই তদন্তকে মৌলিকভাবে অসম্পূর্ণ বলে অ্যাখ্যা দেন। ডেমোক্র্যাটরা তাদের নিজেদের প্রতিবেদন প্রকাশ করবে বলেও জানিয়েছে। সিফ বলেন, হাউসে একমাত্র বৈধ তদন্তে এমন লোক দেখানো সমাপ্তির মাধ্যমে রিপাবলিকানরা দেশকে বাঁচানোর পরিবর্তে প্রেসিডেন্টকে বাঁচাতে চাইছে। ইতিহাস এ পদক্ষেপকে খারাপভাবে চিত্রিত করবে।

যুক্তরাষ্ট্রের ২০১৬ সালের প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে হস্তক্ষেপের অভিযোগে রাশিয়ার ১৩ নাগরিকের বিরুদ্ধে অভিযোগ আনে যুক্তরাষ্ট্রের ফেডারেল ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন (এফবিআই)। এছাড়া তিনটি রুশ কোম্পানির বিরুদ্ধে হস্তক্ষেপের অভিযোগ করা হয়েছে। অভিযোগের প্রধান তদন্তকারী ও এফবিআই’র সাবেক পরিচালক রবার্ট মুলার ১৬ ফেব্রুয়ারি অভিযুক্তদের নাম ঘোষণা করেন।

 ২০১৬ সালে মার্কিন প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে রাশিয়ার হস্তক্ষেপ ছিল বলে দাবি করে যুক্তরাষ্ট্রের গোয়েন্দা সংস্থাগুলো। অভিযোগ ওঠে, ডেমোক্র্যাট প্রার্থী হিলারি ক্লিনটনের ক্ষতি করার এবং ডোনাল্ড ট্রাম্পের ভাবমূর্তি বড় করার চেষ্টা করে রাশিয়া। এই প্রচেষ্টার অংশ হিসেবে হিলারি ক্লিনটনের ই-মেইল হ্যাক করে বিভিন্ন মাধ্যমে প্রকাশ করা হয়। এরপর বিষয়টি নিয়ে এফবিআই’র সাবেক পরিচালক রবার্ট মুলারের নেতৃত্বে তদন্ত শুরু হয়।

Comments are closed.