কুলিয়ারচরে জেএসসি পরীক্ষার ফরম ফিলাপে ৪গুণ অতিরিক্ত ফি আদায়ের অভিযোগ; পর্ব-১

মুহাম্মদ কাইসার হামিদ , ভ্রাম্যমাণ প্রতিনিধি মুক্তিযোদ্ধার কন্ঠ
জুলাই ৩০, ২০১৮ ১০:১২ অপরাহ্ণ

মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক শিক্ষা বোর্ড, ঢাকা কর্তৃক গত ১১ জুলাই পত্র নং ৫৩৮/মাধ্য:পরী:/২০০৩/৯৬ পত্রমূলে ২০১৮ সালের জেএসসি পরীক্ষার ফরম ফিলাপে প্রতি পরীক্ষার্থীদের পরীক্ষার বোর্ড ফি বাবদ ১শ টাকা ও কেন্দ্র ফি বাবদ ১শ ৫০ টাকা নির্ধারণ করা হলেও কিশোরগঞ্জের কুলিয়ারচর উপজেলার লক্ষীপুর দ্বি-মূখী উচ্চ বিদ্যালয়ে ৪ গুণ অতিরিক্ত ফি আদায়ের অভিযোগ উঠেছে।

অভিযোগ সূত্রে জানা যায়, আজ ৩০ জুলাই সোমবার বিদ্যালয় চলাকালে শিক্ষার্থীরা প্রধান শিক্ষক মোঃ জসীম উদ্দিন (খোকন) এর নিকট অতিরিক্ত ফি আদায় বন্ধের দাবী জানালে, ঐ প্রধান শিক্ষক ছাত্রদের জানিয়ে দেয় ১২শ ৫০ টাকা থেকে ১টাকাও কম নেওয়া হবে না এবং যারা অর্ধবার্ষিক পরীক্ষায় অকৃতকার্য হয়েছে তাদের প্রতি অকৃতকার্য বিষয়ে বাধ্যতামূলক ৫০ টাকা করে জরিমানা দিতে হবে। যা সরকারি বিধি বর্হিভূত। নির্ধারিত ফি ছাড়া ৪গুণ ফি আদায়ের বিষয়ে জানতে চাইলে বিদ্যালয় পরিচালনা পর্ষদের সদস্য মোঃ মহি উদ্দিন ভূইয়া ও মোছাঃ নিপা আহম্মেদ বলেন, জে এস সি পরীক্ষায় সরকার নির্ধারিত ফি আদায় ব্যতিত অতিরিক্ত ফি আদায়ের বিষয়ে বিদ্যালয় পরিচালনা পর্ষদের সভাপতি ও প্রধান শিক্ষক তাদের কোনো রকম অবগত করেন নি।

অতিরিক্ত ফি আদায়ের ব্যাপারে প্রধান শিক্ষক মোঃ জসীম উদ্দিন খোকনের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, ফরম ফিলাপের জন্য ৪শ ৫০ টাকা, ৩ মাস কোচিং ফি বাবদ বাধ্যতামূলক ৫শ টাকা ও ৭ বিষয়ে মডেল টেষ্ট ফি বাবদ ৩শ টাকা বাধ্যতামূলক নির্ধারণ করা হয়েছে। অপর প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, বিদ্যালয় চালাতে গেলে বিভিন্ন প্রকার খরচ আছে। তাই অতিরিক্ত টাকা নিতে হয়।

বিদ্যালয় পরিচালনা পর্ষদের সদস্য মোঃ আব্দুল খালেক ও মোঃ নূরুল ইসলাম বলেন, বিদ্যালয় পরিচালনা পর্ষদের এক মিটিংয়ে বলা হয়েছিল জেএসসি পরীক্ষার ফরম ফিলাপ বাবদ বোর্ড নির্ধারিত ফি ছাড়া যাহাতে অতিরিক্ত কোন ফি আদায় করা না হয়। তারপরেও কিভাবে ১২শ ৫০ টাকা ফি নির্ধারণ করা হয়েছে তা আমাদের জানা নেই।

বিদ্যালয় পরিচালনা পর্ষদের সভাপতি কুলিয়ারচর সরকারি ডিগ্রী কলেজের অধ্যক্ষ মোঃ ইদ্রিস মিয়ার সাথে একাধিক বার মোবাইল ফোনে যোগাযোগ করার চেষ্টা করেও তাঁর সাথে যোগাযোগ করা সম্ভব হয়নি।

অতিরিক্ত ফি আদায়ের ব্যাপারে অভিভাবকদের মাঝে ক্ষোভের সৃষ্টি হয়েছে। এ ব্যাপারে আগামীকাল মঙ্গলবার সকালে এক প্রতিবাদ সভা অনুষ্ঠিত হবে বলে জানা যায়।

অতিরিক্ত ফি আদায়ের বিষয়ে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (অতিরিক্ত দায়িত্বে) ও উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) জ্যোতিশ্বর পালের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, বিষয়টি আমার জানা নেই। খোঁজ নিয়ে বিধি মোতাবেক ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

অভিযোগ রয়েছে উপজেলার অন্যান্য মাধ্যমিক স্কুল, মাদ্রাসা, কিন্ডার গার্টেন গুলোতে জেএসসি ও জেডিসি পরীক্ষার ফরম ফিলাপে অতিরিক্ত ফি আদায় করা হচ্ছে। বিস্তারিত পরবর্তী সংবাদে পর্যায়ক্রমে প্রকাশিত হবে।

Leave A Reply

Your email address will not be published.

সর্বশেষ পাওয়া