৭ বছরের শিশুর চিঠিতে বদলে যাচ্ছে নিউ জিল্যান্ডের বৈষম্যমূলক রোড সাইন

আন্তর্জাতিক রিপোর্ট , ওশেনিয়া
জুলাই ৩১, ২০১৮ ১২:০৬ অপরাহ্ণ

নিউ জিল্যান্ডে ৭ বছরের এক কন্যাশিশুর পদক্ষেপে বদলে গেল রাস্তায় থাকা লিঙ্গ বৈষম্যমূলক রোড সাইন। প্রভাবশালী ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যম দ্য গার্ডিয়ানের খবরে বলা হয়েছে, ওই শিশুর লেখা এক চিঠির প্রেরণায় ‘লাইনমেন’ নামের রোড সাইন পরিবর্তন করে ‘লাইন ক্রু’ লেখার সিদ্ধান্ত নিয়েছে।

নিউ জিল্যান্ডে ‘লাইনমেন’ শব্দ দিয়ে তাদেরকে বোঝানো হয়, যারা রাস্তায় বিদ্যুতের সরবরাহ লাইনে কোনও সমস্যা হলে অথবা কোথাও বিদ্যুৎ সংযোগ দেওয়ার প্রয়োজন হলে সেই কাজটি করে থাকেন। দ্য গার্ডিয়ানের খবরে বলা হয়েছে, জিও ক্যারিউ নামের ৭ বছরের ওই শিশু ইস্টবর্ন শহরে নিজের দাদার বাড়িতে যাচ্ছিল। এমন সময় সে রাস্তায় ‘লাইনমেন’ শব্দের সাইনটি দেখতে পায়। শব্দটি তাকে ভাবিয়ে তোলে। এক পর্যায়ে সে সিদ্ধান্ত নেয়, সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষকে এ নিয়ে চিঠি লিখবে।

সিদ্ধান্ত অনুযায়ী, দেশটির পরিবহন দফতরের মুখ্য কর্মকর্তা ফার্গুস গিমিকে চিঠি লেখে ক্যারিউ। ওই চিঠিতে  প্রশ্ন তোলে, ‘কেন ওই সাইনে ‘লাইনম্যান’ লেখা হয়েছে। বিদ্যুতের সরবরাহ লাইনে তো নারী-পুরুষ উভয়ই কাজ করে। আমি মনে করি, এই সাইন যথাযথ নয়, ভুল। আপনি কি একমত?’ চিঠিতে ক্যারিউ আরও লেখে, বড় হয়ে আমি বিদ্যুতের সরবরাহ লাইনে কাজ করতে চাই না। কারণ করার মতো আরও ভালো ভালো কাজ আছে আমার বিবেচনায়। তবে কোনও কোনও নারী তো লাইনউইমেন হতে চাইতে পারে। আপনি কি ‘লাইনমেন’ রোডসাইনটি বদলে ‘লাইনওয়ার্কার’ অথবা ওই জাতীয় কিছু একটা করে দিতে পারেন; যেটা যথাযথ হয়?’

ক্যারিউ-এর লেখা চিঠির উত্তর দিয়েছেন পরিবহন দফতরের শীর্ষ কর্মকর্তা গিমি। ক্যারিউকে পরামর্শের জন্য ধন্যবাদ জানিয়ে লিখেছেন, তার কথা অনুযায়ী রোডসাইনটি পরিবর্তনের সিদ্ধান্ত নিয়েছে নিউ জিল্যান্ডের পরিবহন দফতর। চিঠিতে গিমি লিখেছেন, ‘আমরা ক্যারিউ-এর পরামর্শটি ইতিবাচকভাবে গ্রহণ করেছি। মহত্তর চিন্তা যে কারও মস্তিষ্ক থেকেই আসতে পারে, এমনকী ৭ বছরের শিশুর কাছ থেকেও। ক্যারিউ-এর জন্য শুভকামনা’। চিঠিতে গিমি জানিয়েছেন, ক্যারিউ-এর পরামর্শ মতো সাইনটি পরিবর্তন করা হবে। তবে ‘লাইনওয়ার্কার’ শব্দটি অপেক্ষাকৃত বড় হওয়ায় ‘লাইনমেন’ এর পরিবর্তে এখন থেকে তারা ‘লাইনক্রু’ শব্দটি সাইন হিসেবে ব্যবহার করবে। তবে এই পরিবর্তনের সিদ্ধান্ত বাস্তবায়নে খানিকটা সময় লাগবে।

ক্যারিউ-এর মা তার মেয়ে ও শীর্ষ পরিবহন কর্মকর্তার চিঠি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে শেয়ার করে লিখেছেন, মেয়ের এমন ভূমিকায় তিনি গর্বিত।

 

Comments are closed.

LATEST NEWS