ক্যাম্পাস - আগস্ট ১৩, ২০১৮

রাবি পরীক্ষার ফিলআপ এ অনলাইন পদ্ধতি, গতি এনেছে কাজে

রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ে পরীক্ষার ফরম ফিল আপে ম্যানুয়াল পদ্ধতি ছেড়ে অনলাইন পদ্ধতিতে চালু হওয়ায় পূর্বের তুলনায় ভোগান্তি কুমেছে পাশাপাশি গতি এসেছে প্রশাসনিক কাজে। প্রশাসনের এই উদ্যোগের সুফল মিলতে শুরু হয়েছে ইতোমধ্যেই। অনলাইন পদ্ধতিতে ভর্তি কার্যক্রম আসায় সময় ও শ্রম দুইটায় লাঘব হচ্ছে তাদের। নির্ভুলভাবে ফরম পূরণ করতে পারায় খুশি শিক্ষার্থীরাও।

সুবিধার কথা জানিয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের পরীক্ষা নিয়োন্ত্রক অধ্যাপক বাবুল ইসলাম বলছিলেন, ‘এমনও সময় হয়েছে পরীক্ষার আগের দিন পর্যন্ত শিক্ষার্থীদের ফরম পূরণের সময়সীমা দেওয়া থাকত। ম্যানুয়াল পদ্ধতিতে কাজ করায় সময় লাগত বেশি। শিক্ষার্থীদের নিজ হাতে পূরণ করতে হতো একাধিক তথ্য যাতে ভূলের সংখ্যা, কাটা ছেড়া থাকত। একই সাথে অসদুপায় অবলম্বন করে পরীক্ষায় বসতে চেষ্টা করতো শিক্ষার্থীরা। অনলাইন পদ্ধতির কারণে সেই সমস্যাগুলো এখন আর পোহাতে হচ্ছে না।

তিনি আরও বলেন, ‘প্রয়োজনীয় তথ্য সার্ভারে থাকায় কোর্স টাইটেলগুলো বসালেই পূরণকৃত প্রস্তুত ফরম প্রদর্শিত হচ্ছে। এবং নির্ধারিত ফি পরিশোধের মাধ্যমে পরীক্ষার প্রবেশ পত্র ডাউনলোড করে নিতে পারছে শিক্ষার্থীরা। তাদের সময় বেঁচেছে, শিক্ষক কর্মকর্তাদের লাঘব হচ্ছে শ্রম। এছাড়া ম্যানুয়াল পদ্ধতি বাদ করে দিয়েছি আমরা।’
পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক দপ্তর সূত্রে জানা গেছে, ৬ মাস আগে এ বছরের ১২ ই ফেব্রুয়ারি থেকে পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক অধ্যাপক বাবুল ইসলামের হাত ধরেই শুরু করা হয় অনলাইন পদ্ধতির ফরম পূরণের কার্যক্রম। ওই সময় থেকে ১৩ আগস্ট পর্যন্ত বিশ্ববিদ্যালয়টির বিভিন্ন বিভাগের ১ম বর্ষ থেকে মাস্টার্স বর্ষে এই পদ্ধতি অনুসরণ করে মোট ২১৩টি পরীক্ষার অনুষ্ঠিত হয়েছে।

শিক্ষার্থীদের সাথে কথা বললে বিষয়টির সত্যতা মিলে। সদ্য ফরম পূরণ করা বিশ্ববিদ্যালয়ের ইসলামের ইতিহাস ও সংস্কৃতি বিভাগের শিক্ষার্থী আবু সাঈদ বলছিলেন, ‘ফরম পূরণের কাজটি অল্প সময়ের মধ্যেই নির্ভূলভাবে করতে সক্ষম হয়েছি। কোন ঝামেলা ছাড়াই আমার মতো অন্য শিক্ষার্থীরাও হাতে লিখে ফরম পূরণের থেকে রেহাই পাচ্ছেন এই পদ্ধতির কারণে। অল্প কিছু তথ্য পূরণ করলেই আমার প্রয়োজনীয় তথ্য প্রদর্শিত হচ্ছে কম্পিউটারের পর্দায়। ডাউনলোড দিয়ে প্রিন্ট করলেই কাজ শেষ। বিশ^বিদ্যালয় পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক দপ্তরের এমন কাজ অবশ্যই প্রশংসার দাবি রাখে’।

এদিকে শুধু পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক দপ্তর নয় বিভাগ কর্তৃপক্ষেরও কাজের জটিলতা কমেছে বলে জানান বিশ্ববিদ্যালয় পপুলেশন সায়েন্স এন্ড হিউম্যান রিসোর্স বিভাগের সভাপতি ড. নজরুল ইসলাম ম-ল।
তিনি বলেন, ‘শিক্ষার্থীদের প্রবেশ পত্র নিয়ে কর্মকর্তা বা অন্যদের দ¦ারা যে হ্যারাসমেন্টের শিকার হতে হতো সেগুলো কমেছে। কমেছে বিভাগের কাজের জটিলতা।’’

তবে কিছু শিক্ষার্থীর ভোগান্তি বেড়েছে দাবি করছেন অনেকে। যাদের নিজস্ব কম্পিউটার বা স্মার্টফোন সুবিধা নেই তাদের দোকানে গিয়ে লম্বা লাইন দিতে হচ্ছে। তবে ভুল হলে কাটা ছেঁড়া ছাড়াই সংশোধন করা যাচ্ছে।

ফরম পূরণ পদ্ধতি:

ফরম পূরণের জন্য বিশ্ববিদ্যালয় ওয়েব সাইট িি.িৎঁ.ধপ.নফ ব্যবহার করতে হবে শিক্ষার্থীদের। সাইটের (ঊীধস পড়হঃৎড়ষষবৎ) পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক শাখার ঙহষরহব ঋড়ৎস ঋরষষ টঢ় ংুংঃবস অংশে ক্লিক করার মাধ্যমে প্রদর্শিত হবে একটি লগ ইন বক্স। যেখানে চাওয়া হবে বিশ^বিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ হতে শিক্ষার্থীদের সরবরাহকৃত নিজস্ব আইডি ও পাসওয়ার্ড। আইডি পাসওয়ার্ড দিলে খুলে যাবে পাতাটি। এর পর বাম পাশে প্রদর্শিত হবে শিক্ষার্থীর তথ্য এবং ডান পাশে সবুজ বাতি দেওয়া ফরম ফিল আপ ক্লিক করলেই চলে আসবে ফরম। তখন প্রয়োজনীয় তথ্য সংযোগ করলেই কাজ শেষ।


আরও পড়ুন