হিজড়া ও অনগ্রসর শিক্ষার্থীরা উপকৃত হচ্ছে সরকারের শিক্ষা উপবৃত্তি কার্যক্রমে

প্রতিনিধি , মুক্তিযোদ্ধার কন্ঠ
অক্টোবর ৩, ২০১৮ ৭:১১ অপরাহ্ণ

আহমেদ আবু সাইম, কমিউনিটি মিডয়া ফেলো ।। মানব সম্পদ উন্নয়নে সরকার কর্তৃক যে সকল গুরুত্বপূর্ণ কর্মসূচি গৃহীত হয়েছে, তারমধ্যে উপবৃত্তি প্রদান কর্মসূচি অন্যতম। অর্থের অভাবে শিক্ষার সুযোগ বঞ্চিত হিজড়া ও অনগ্রসর দরিদ্র, মেধাবী ছাত্রছাত্রীদের শিক্ষা নিশ্চিত করার নিমিত্তে দেশের সকল স্কুল, কলেজ, মাদ্রাসায় অধ্যয়নরত শিক্ষার্থীদের উপবৃত্তি প্রদান করা হয়। হিজড়া ও অনগ্রসর জনগোষ্ঠী বাংলাদেশের জনসংখ্যার একটি ক্ষুদ্র অংশ। সমাজসেবা অধিদফতরের জরিপমতে বাংলাদেশে প্রায় ১৩ লক্ষ ২৯ হাজার ১৩৫ জন অনগ্রসর জনগোষ্ঠী এবং ১০ হাজার জন হিজড়া জনগোষ্ঠী রয়েছে। জেলে, সন্যাসী, ঋষি, বেহারা, নাপিত, ধোপা, হাজাম, নিকারী, পাটনী, কাওড়া, তেলী, পাটিকর, বাঁশফোর, ডোমার, রাউত, তেলেগু, হেলা, হাড়ি, লালবেগী, বাল্মিগী, ডোম ইত্যাদি তথাকথিত নিম্নবর্ণের জনগোষ্ঠী এ অনগ্রসর সম্প্রদায়ভুক্ত। স্কুলগামী হিজড়া ও অনগ্রসর শিক্ষার্থীদের শিক্ষিত করে গড়ে তোলার লক্ষ্যে ৪ স্তরে জনপ্রতি মাসিক প্রাথমিক ৩০০, মাধ্যমিক ৪৫০, উচ্চ মাধ্যমিক ৬০০ এবং উচ্চতর ১০০০ টাকা হারে উপবৃত্তি প্রদান করা হচ্ছে। জরিপকৃত, শনাক্তকৃত ও সমাজসেবা অধিদফতর কর্তৃক নিবন্ধিত এবং সরকার কর্তৃক স্বীকৃতি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে অধ্যয়নরত হিজড়া এবং অনগ্রসর শিক্ষার্থীদের নির্ধারিত ফরমে উপজেলা সমাজসেবা অফিসার বরাবরে আবেদন করতে হয়। নীতিমালা অনুসারে যাচাই-বাছাই করার পর শিক্ষা উপবৃত্তিভোগী নির্বাচন করা হয়। অতঃপর নির্বাচিত শিক্ষার্থীদের শিক্ষা প্রতিষ্ঠান প্রধান বা অভিভাবককে অবহিত করে বৈধ অভিভাবকের নামে উপবৃত্তির অর্থ উত্তোলনের ব্যাংক হিসাব খোলা হয়। উপবৃত্তির টাকা বিতরণের স্থান, তারিখ, সময় নির্ধারণ করে উপবৃত্তি প্রাপ্ত প্রতিবন্ধী শিক্ষার্থী তার পরিবার ও শিক্ষা প্রতিষ্ঠান প্রধানকে অবহিত করার মাধ্যমে আনুষ্ঠানিকভাবে উপবৃত্তি বিতরণ করা হয়। বৃত্তিমূলক প্রশিক্ষণের মাধ্যমে কর্মক্ষম হিজড়া ও অনগ্রসর জনগোষ্ঠীর দক্ষতা বৃদ্ধি ও আয়বর্ধনমূলক কর্মকান্ডে সম্পৃক্ত করে তাদের সমাজের মূলস্রোতধারায় নিয়ে আসা হচ্ছে। ৫০ বছর বা তদুর্ধ্ব বয়সের অক্ষম ও অসচ্ছল ব্যক্তিকে বিশেষ ভাতা জনপ্রতি মাসিক ৫০০ টাকা প্রদান করা হচ্ছে। ১৮ বছর বয়সের উর্ধ্ব কর্মক্ষম ব্যক্তিদেরকে ট্রেড ভিত্তিক প্রশিক্ষণ প্রদান করা হয়। উপজেলা অফিস হতে প্রেরিত তালিকা অনুযায়ী জেলা সমাজসেবা কার্যালয়ের মাধ্যমে প্রশিক্ষণটি পরিচালিত করা হয়। প্রশিক্ষণার্থীদেরকে প্রশিক্ষণোত্তর অফেরতযোগ্য ১০ হাজার টাকা আর্থিক সহায়তা প্রদান করা হয়।

Leave A Reply

Your email address will not be published.

সর্বশেষ পাওয়া