আখাউড়ায় মন্ডপে মন্ডপে পূজার ধুম, শুরু হলো দূর্গোৎসব

মোঃ দ্বীন ইসলাম খাঁন , ব্রাহ্মণবাড়িয়া
অক্টোবর ১৬, ২০১৮ ১০:১৬ পূর্বাহ্ণ

সোমবার মহাষষ্ঠীর মধ্য দিয়ে হিন্দু ধর্মাবলম্বীদের সবচেয়ে বড় ধর্মীয় উৎসব শারদীয় দুর্গাপূজা শুরু হয়েছে। আখাউড়া কেন্দ্রীয় মন্দির রাধামাধব আখড়াসহ উপজেলার ২১টি পূজা মন্ডপে চলছে এই উৎসব। ঢাকের বোল কাঁসার ঘণ্টা, শাঁখের ধ্বনিতে মুখর হয়ে উঠেছে উপজেলার সব পূজামন্ডপ গোলো।

এদিকে দুর্গাপূজার প্রথম দিন আখাউড়া কেন্দ্রীয় মন্দির রাধামাধব আখড়াসহ উপজেলার বিভিন্ন পূজা মন্ডপ পরির্দশন করেছেন আখাউড়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোহাম্মদ শামছুজ্জামানসহ উপজেলা প্রশাসনের কয়েকজন কর্মকর্তা।

পরির্দশনের সময় উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোহাম্মদ শামছুজ্জামান ভক্তদেরকে শুভেচ্ছা জানিয়ে পুজা মন্ডপ কমিটির নেতৃবৃন্দের সাথে সার্বিক বিষয়ে খোজ খবর নেন। পরে তিনি আখাউড়া কেন্দ্রীয় মন্দির রাধামাধব আখড়ার পরির্দশন খাতায় লিখেন, সকল ধর্মের মানুষের সার্বজনীন এই উৎসব আনন্দের সাথে সম্প্রীতির সাথে পালন করবে। দুর্গাপুজা উৎসবের সুন্দর পবিত্র আমেজ ছড়িয়ে পড়ুক আখাউড়ার প্রতিটি ঘরে ঘরে।

এসময় উপস্থিত ছিলেন আখাউড়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মোশারফ হোসেন তরফদার, আখাউড়া থানার ওসি তদন্ত মোহাম্মদ আরিফুল আমিন, উপজেলা প্রকৌশলী হাফিজুল হক, উপ-সহকারী প্রকৌশলী আকবর আলী, দারিদ্র বিমোচন কর্মকর্তা মাহফুজুল হক, পুজা উদযাপন কমিটির নেতা হীরালাল সাহা, সুবল চন্দ্র ঘোষ, বিধান চন্দ্র দাস, অলক চক্রবর্তী, স্থানীয় পৌরসভার কাউন্সিলর মন্তাজ মিয়া ও মানিক মিয়া প্রমুখ। পরে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তাসহ উপজেলা প্রশাসনের বিভিন্ন কর্মকর্তারা আখাউড়া মনিয়ন্দ ও উত্তর ইউনিয়নের বিভিন্ন পূজা মন্ডপ পরির্দশন করেন।

এদিকে আজ সোমবার পূজার প্রথম দিনে আখাউড়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মোশারফ হোসেন তরফদার ও আখাউড়া থানার ওসি তদন্ত আখাউড়া পৌরসভার বিভিন্ন পূজা মন্ডপ পরির্দশন করেন। এসময় আখাউড়া থানার ওসি মোশারফ হোসেন তরফদার জানান, প্রত্যেকটি পূজা মন্ডপে নিরাপত্তার অবস্থা তিনি নিজে ঘুরে দেখছেন এবং এ বিষয়ে খোজ খবর নিচ্ছেন।

তিনি আরো জানান, প্রত্যেকটি পূজা মন্ডপ পুলিশ বাহিনী কঠোর নিরাপত্তায় রেখেছে।

পূজা উদযাপন কমিটির নেতৃবৃন্দরা জানায়, আজ ১৫ অক্টোবর মহাষষ্ঠীতে দশভুজা দেবী দুর্গার অধিবাসের মধ্য দিয়ে শুরু হয়েছে মূল পূজার আনুষ্ঠানিকতা। ১৬ অক্টোবর মহাসপ্তমী, ১৭ অক্টোবর মহাষ্টমী ও কুমারী পুজো, ১৮ অক্টোবর মহানবমী এবং ১৯ অক্টোবর বিজয়া দশমী ও প্রতিমা বিসর্জনের মধ্য দিয়ে শেষ হবে পাঁচ দিনের দুর্গোৎসব। পাঁচ দিনব্যাপী মণ্ডপে চলবে পূজা-অর্চনা, ভক্তিমূলক সঙ্গীতানুষ্ঠান, মহাপ্রসাদ বিতরণ, সন্ধ্যায় আরতি প্রতিযোগিতা।

Leave A Reply

Your email address will not be published.

সর্বশেষ পাওয়া