দেশের খবর - October 20, 2018

ময়মনসিংহে মহাআনন্দে দুর্গাপূজা বিসর্জন ব্রহ্মপুত্র নদে

চারদিকে ঢাকের বাজনার সঙ্গে নাচছিলেন হাজারো মানুষ। কেউ কেউ দেবীর উদ্দেশে দিচ্ছিলেন উলুধ্বনি। আবার কেউ কেউ মায়ের বিসর্জনে অশ্রুসিক্ত। এমন উৎসবমুখর পরিবেশে প্রতিমা বিসর্জন দিয়েছেন সনাতন ধর্মাবলম্বীরা। এই বিসর্জনের মাধ্যমে শেষ হলো হিন্দুদের সবচেয়ে বড় ধর্মীয় আয়োজন শারদীয় দুর্গোৎসব।

শুক্রবার বিকেল থেকে ব্রহ্মপুত্র নদীর তীরে স্মৃতি বালুরঘাটে ময়মনসিংহ মহানগর পূজা কমিটির নেতৃত্বে প্রতিমা বিসর্জনের আনুষ্ঠানিকতা সম্পন্ন হয়। বিজয়া দশমীর সকালে মণ্ডপে মণ্ডপে সিঁদুর খেলার মধ্য দিয়ে দেবী দুর্গার দর্পণ বিসর্জন দেওয়া হয়। হিন্দু নারীরা দেবীর প্রতিমায় সিঁদুর পরিয়ে দিয়ে নিজেরাও একে অন্যকে সিঁদুর পরান। এরপরই বেজে ওঠে বিষাদের সুর।

বিসর্জনের উদ্দেশ্যে ট্রাক ও পিকআপ ভ্যানে করে ময়মনসিংহে কালি মন্দিও মেলাঙ্গন থেকে কেন্দ্রীয় বিজয়া শোভাযাত্রা বের হয়ে প্রতিমা কাচিজুলি মোড়ে আসে। কেন্দ্রীয় কালিবাড়ি  শোভাযাত্রায় যোগ দিতে ময়মনসিংহ  বিভিন্ন মন্দির ও পূজামণ্ডপ থেকে শোভাযাত্রাগুলো কাচিঁজু্লি মোড়ে এসে জড়ো হয়। এরপর গান-ঢাকের তালে তালে নাচতে থাকেন সবাই। বিকাল থেকে বিভিন্ন দিক থেকে শোভাযাত্রা কাচাঁরিঘাটে উদ্দেশে রওনা হয়। সেখান থেকে প্রতিমা নিয়ে ট্রাকে করে ঢাকের তালের পাশাপাশি ‘দুর্গা মা-ই কি, জয়’ স্লোগান দিতে দিতে ঘাটের দিকে এগিয়ে যান বিভিন্ন বয়সী মানুষ।

প্রতিমা বহনকারী ট্রাকগুলো বিকেল থেকে মধ্য রাত পর্যন্ত কাচাঁরিঘাটে এসে জমা হয়। এরপর ট্রাক থেকে একে একে ঘাটে নিয়ে যাওয়া হয় প্রতিমা। প্রতিমা বিসর্জনের ধর্মীয় রীতি অনুযায়ী চারদিকে জল ছিটিয়ে এবং আরও কিছু নিয়ম মেনে কাঁধে করে প্রতিমা নৌকায় তোলা হয়। নৌকায় করে প্রতিমা মাঝ নদীতে নিয়ে গিয়ে বিসর্জন দেওয়া হয়। বিসর্জনের সময় ঘাটে দাঁড়ানো হাজারো ভক্ত দেবী দুর্গার উদ্দেশ্যে উচ্চস্বরে নানা ধ্বনি দিতে থাকেন।

ভক্ত রিপন দাস মুক্তিযোদ্ধার কন্ঠকে বলেন, ‘মন ভালো নেই। মা আসলেন, আবার দ্রুত চলে গেলেন। মায়ের জন্য খুব খারাপ লাগছে। আবার এক বছর পর দেখা মিলবে।’

প্রতিমা বিসর্জনের কেন্দ্রীয় শোভাযাত্রায় নেতৃত্ব দেন ময়মনসিংহ  মহানগর পূজা উদযাপন পরিষদ। পূজা উদযাপন কমিটির নেতারা জানান, দর্পণ বিসর্জনের মাধ্যমে মূলত সকালেই দেবীর শাস্ত্রীয় বিসর্জন সম্পন্ন হয়। বিকেলে শুধু আনুষ্ঠানিক শোভাযাত্রা সহকাওে দেবী দুর্গা ও অন্যান্য দেব-দেবীর বিসর্জন দেয়া হয়।

 এ সময় উপস্তিত ছিলেন ময়মনসিংহ পৌরসভার নবগঠিত সিটি কপোরেশনের প্রশাসক সাবেক মেয়র ইকরামুল হক টিটু। এ সময় অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন, নির্বাহী কর্মকর্তা তারিকুল ইসলাম, ময়মনসিংহ জেলা প্রশাসক ড: সুবাস চন্দ্র বিশ্বাস, জেলা পুলিশ সুপার শাহ্ মো: অাবিদ হোসেন,জেলা ম্যাজিস্ট্রেট মো: নায়রুজ্জামান,স্যানিটরী ইন্সপেক্টর দীপক মজুমদারসহ জেলা ও মহানগর পূজা উদযাপন পরিষদের নেতৃবৃন্দ।

 


আরও পড়ুন

৩ Comments

  1. I simply want to say I’m beginner to blogging and honestly savored this page. Very likely I’m planning to bookmark your blog post . You amazingly come with beneficial article content. Thanks for sharing your website page.

Comments are closed.