জাতীয় - প্রচ্ছদ - October 28, 2018

আগামী বছর প্রবৃদ্ধি হবে ৮ দশমিক ২ শতাংশ : প্রধানমন্ত্রী

আগামী বছর প্রবৃদ্ধি ৮ দশমিক ২ শতাংশ হবে বলে আশা ব্যক্ত করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। তিনি বলেন, লক্ষ্য পূরণে সরকারের ধারাবাহিকতা থাকতে হবে।

আজ রোববার রাজধানীতে বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে বাণিজ্য বিষয়ক সম্মেলন ‘ডেসটিনেশন বাংলাদেশ’ অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা। ব্যবসায়ীদের সংগঠন ডিসিসিআই এ অনুষ্ঠানের আয়োজন করে।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, শুধু শহর নয়, গ্রামের উন্নয়নে কাজ করছে সরকার। গ্রামে থেকেও যেনো শহরের সুযোগ সুবিধা পাওয়া যায় সে লক্ষ্যে সরকার কাজ করে যাচ্ছে।

শেখ হাসিনা বলেন, দেশে বর্তমানে ২০ হাজার মেগাওয়াটের বেশি বিদ্যুৎ উৎপাদন হচ্ছ। ২০২১ সালে বাংলাদেশ হবে মধ্যম আয়ের দেশ। তখন বিদ্যুৎ উৎপাদন হবে ৩০ হাজার মেগাওয়াট। ২০৪১ সালে বাংলাদেশ হবে দক্ষিণ এশিয়ার সমৃদ্ধ অর্থনীতির দেশ। তখন বিদ্যুৎ উৎপাদন হবে ৪০ হাজার মেগাওয়াট।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, আমরা বেশ কিছু দীর্ঘমেয়াদী পরিকল্পনা হাতে নিয়েছি। এর মধ্যে ডেল্টা প্লান অন্যতম। ২১০০ সালে দেশের মানুষ কী কী সুবিধা ভোগ করতে, দেশের উন্নয়ন কতটুকু হবে সেই লক্ষ্যমাত্র আমরা নির্ধারণ করে রেখেছি।

শেখ হাসিনা বলেন, সরকারের লক্ষ্যমাত্রা অর্জনে ধারাবাহিকতা দরকার। বাংলাদেশ গণতান্ত্রিক রাষ্ট্র। সামনে জাতীয় নির্বাচন। দেশের মানুষ ভোট দিলে এসব উন্নয়ন শেষ করা সম্ভব হবে। আর ভোট না দিলেও মানুষের পাশে আছি।

তিনি বলেন, পচাত্তরের ১৫ আগস্ট জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে খুন না করা হলে এতোদিনে বাংলাদেশ সমৃদ্ধ অর্থনীতির দেশ হিসেবে বিশ্বের স্বীকৃত পেত।

সরকারের নানা উন্নয়ন পরিকল্পনার কথা তুলে ধরে শেখ হাসিনা বলেন, দেশের মানুষের ভাগ্যেন্নয়নে সুদূর প্রসারী পরিকল্পনা নিয়ে কাজ করছে সরকার। ২০২১ সালের মধ্যে মধ্যম আয়ের দেশ হওয়ার লক্ষ্যে আমরা ২০১০সাল-২০২০ পারসপেকটিভ গ্রহন করি। মধ্যমেয়াদী পরিকল্পনা হিসেবে আমরা পঞ্চবার্ষিকী পরিকল্পনা গ্রহণ করি। এখন সপ্তম পঞ্চবার্ষিকী পরিকল্পনা চলছে।

তিনি বলেন, ২০৪১ সালে উন্নত দেশ হওয়ার লক্ষ্যে আমরা ২০২১ থেকে ২০৪১ পারসপেকটিভ গ্রহণ করেছি। ২০৪১ সালে বাংলাদেশ কেমন হবে সেই পরিকল্পনা বহু আগেই নেওয়া।

অনুষ্ঠানে বাণিজ্যমন্ত্রী তোফায়েল আহমেদ প্রমুখ বক্তৃতা করেন।

 


আরও পড়ুন