দেশের খবর - October 31, 2018

পৌড়ত্বের দায় সরকারের কাধেঁ; চিলমারীর প্রায় চার হাজার প্রবীণজন পাচ্ছেন বয়স্ক ভাতা

আশিকুর রহমান, কুড়িগ্রাম।। দেশের বয়োজ্যেষ্ঠ দুস্থ ও স্বল্প উপার্জনক্ষম অথবা উপার্জনে অক্ষম বয়স্ক জনগোষ্ঠীর সামাজিক নিরাপত্তা বিধান, পরিবার ও সমাজে মর্যাদা বৃদ্ধির লক্ষ্যে ১৯৯৭-৯৮ অর্থ বছরে ‘বয়স্কভাতা’ কর্মসূচি প্রবর্তন করা হয়। সমাজকল্যাণ মন্ত্রণালয়ের অধীনে সমাজসেবা অধিদফতর এই কর্মসূচি বাস্তবায়ন করে থাকে। বর্তমানে দেশের সবগুলো ইউনিয়নে সামাজিক নিরাত্তা বেষ্টনীর আওতায় এই কর্মসূচী বাস্তবায়িত হচ্ছে। বাংলাদেশের মোট জনসংখ্যার প্রায় অর্ধেক দারিদ্র সীমার নিচে বাস করে। এর মধ্যে যারা ভূমিহীন, বিত্তহীন এবং বার্ধক্যের কারণে দৈহিক পরিশ্রমে অক্ষম তারাই সবচেয়ে বেশি দারিদ্রের শিকার। কাজ করতে অক্ষম এসব দরিদ্র জনগোষ্ঠীর জন্য সরকার চালু করেছে বয়স্ক ভাতা।

সামাজিক নিরাপত্তা বেষ্টনীর আওতায় বর্তমানে কুড়িগ্রাম জেলার চিলমারী উপজেলার ৩হাজার ৬৯২ জন ব্যক্তিকে বয়স্ক ভাতা প্রদান করা হচ্ছে। এসব ব্যক্তি প্রতি মাসে ৫০০ টাকা হারে ভাতা সুবিধা পেয়ে আসছেন। চিলমারী উপজেলা সমাজ সেবা অফিসার আবু সুফিয়ান বয়স্ক ভাতা সম্পর্কে বলেন, বয়স্ক ভাতা প্রাপ্তিতে ভাতাভোগীকে আর্থিকভাবে অস্বচ্ছল হতে হবে এবং একজন পুরুষের ৬৫ বছর ও একজন নারীর ৬২ বছর হতে হবে। বয়স্ক জনগোষ্ঠীর আর্থ-সামাজিক উন্নয়ন ও সামাজিক নিরাপত্তা বিধান, পরিবার ও সমাজে তাঁদের মর্যাদা বৃদ্ধি, আর্থিক অনুদানের মাধ্যমে মনোবল জোরদারকরণসহ চিকিৎসা ও পুষ্টি সরবরাহ বৃদ্ধিতে সহায়তা করছে বয়স্ক ভাতা কর্মসূচি। বিশেষত প্রান্তিক জনগোষ্ঠীর প্রবীণ মানুষগুলো এই ভাতা কার্যক্রমের আওতায় আসায় জীবনের বাকি দিনগুলি পার করছেন সচ্ছলতায়। কয়েকজন উপকারভোগী প্রবীণ নারী পুরুষ বলছিলেন, এই ভাতার টাকা তারা তাদের চিকিৎসার কাজে লাগাচ্ছেন। এখন আর তাদের চিকিৎসার জন্য কারো কাছে টাকা চাইতে হয় না।

৮০ বছরের উর্ধে এক প্রবীণ তরফ আলী বলেন, “আগে তো অল্প কিচু জমি জমা আচিলো এহুন তাও নাই, বয়োসকো ভাতায় যে কয়ডা টেকা পাই সেইডা দিয়া এহুন দিন চলতিছে।” আরেক বৃদ্ধা নারী ছহিরন বেগম (৭৮) বলেন, “৪ বছর থিকা টেকা ডা পাইতিছি, নিজে কাপুর চুপুর কিনি সাথে নাতি পুতি গরেও কিছু দিবার পাই। খুবি উপুকার হইচে আমার।”

সরকারের সর্বোচ্চ পর্যায়ের নিবিড় তদারকি এবং সমাজসেবা অধিদফতরের প্রচেষ্টায় বিগত ৪ বছরে বয়স্কভাতা প্রদানে প্রায় শতভাগ সাফল্য অর্জিত হয়েছে। অক্ষমতা কিংবা বয়সের ভাড়ে এসব প্রবীণ বয়স্ক নারী পুরুষদের আর হাত বাড়াতে হচ্ছেনা অন্যের দ্বারে। যার ফলে ধীরে ধীরে দারিদ্রতা হ্রাস পাচ্ছে গোটা দেশের।


আরও পড়ুন