করিমগঞ্জ - November 8, 2018

করিমগঞ্জ সরকারি পাইলট মডেল উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষকের বিরুদ্ধে অভিযোগ

করিমগঞ্জ সরকারি পাইলট মডেল উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষকের বিরুদ্ধে নানা অনিয়মের অভিযোগ এনে গত সোমবার (৫ নভেম্বর) করিমগঞ্জ পৌর মেয়র বরাবর লিখিত অভিযোগ করেছেন বঞ্চিত শিক্ষার্থী ও সংশ্লিষ্ট অভিভাবকগণ।

অভিযোগ পত্রে বলা হয় প্রধান শিক্ষক সরকারী নির্দেশনাসমূহ অমান্য করে এসএসসি পরীক্ষার্থী ২০১৯ নির্ধারণ করা হয়েছে।

বঞ্চিত শিক্ষার্থী ও অভিভাবকগণের অভিযোগের ভিত্তিতে মেয়র হাজী আব্দুল কাইয়ূম স্থানীয় সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের সাথে বিষয়টি নিয়ে আলোচনা করলে কোন প্রতিকার মেলেনি।

এরপর তিনি গত মঙ্গলবার (৬ নভেম্বর) কপৌস/করিম/২০১৮/২২৭(৬) নং স্মারকে অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (শিক্ষা ও আইসিটি), কিশোরগঞ্জ বরাবর একটি লিখিত অভিযোগ পত্র প্রেরন করেন। অভিযোগ পত্রে তিনি উল্লেখ প্রধান শিক্ষক সরকারী নির্দেশনা অমান্য করে এসএসসি পরীক্ষার্থী ২০১৯ নির্ধারণ করেছেন। এছাড়াও অভিভাবকগণের জোর আপত্তি জরুরী ভিত্তিতে নিষ্পত্তি না করলে আসন্ন জাতীয় সংসদ নির্বাচন ও সরকারের ভাবমূর্তি মারাত্মকভাবে ক্ষুন্ন হবে বলে তিনি অভিযোগ পত্রে উল্লেখ করেন।

অভিযোগ প্রসঙ্গে প্রধান শিক্ষক মাহবুবুল আলম বলেন, সরকারী নির্দেশনার বাইরে একটি উত্তরপত্রও মূল্যায়ন করা হয়নি। শতভাগ সরকারী নির্দেশনাসমূহ অনুসরণ করে প্রত্যেক পরীক্ষার্থী উত্তরপত্র মূল্যায়ন করা হয়েছে। যারা উত্তীর্ণ হয়েছে তাদেরকেই শুধু মূল পরীক্ষায় অংশগ্রহনের অনুমতি দেয়া হয়েছে।

উল্লেখ্য, বিগত ০৫/০২/২০১৮ তারিখে প্রকাশিত দূর্নীতি দমন কমিশনের পত্র নং- দূদক/প্রতিরোধ/কার্যক্রম/০১(অংশ-২)/১৫/৩৯১০(৪) ও ১৬/৮/২০১৮ তারিখে প্রকাশিত শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের পত্র নং- ৩৭.০০.০০০০.০৭১.৩৮.২০৩.১৮.১০৮৭ এর সূত্র মতে এসএসসি ও এইচএসসি নির্বাচনী (test) পরীক্ষায় এক বা একাধিক বিষয়ে অনুত্তীর্ণ শিক্ষার্থীদের মূল পরীক্ষায় অংশগ্রহনের অনুমতি না দেয়া এবং নির্বাচনী পরীক্ষার উত্তরপত্র ০৬ মাস সংরক্ষণ করার জন্য মাধ্যমিক ও উচ্চমাধ্যমিক শিক্ষা বোর্ড, ঢাকা সারাদেশের সকল প্রতিষ্ঠানের প্রধান শিক্ষক/অধ্যক্ষ বরাবর ১৬/০৯/২০১৮ তারিখে পত্র (নং-৪৫৪) প্রেরন করেন।


আরও পড়ুন