আন্তর্জাতিক - নভেম্বর ৯, ২০১৮

বিক্রি হলো স্টিফেন হকিংয়ের সেই চেয়ার

চলতি বছর পৃথিবীকে বিদায় জানিয়েছেন আধুনিক যুগের অন্যতম শ্রেষ্ঠ পদার্থবিজ্ঞানী স্টিফেন হকিং। তবে রেখে গেছেন বিজ্ঞানের মহামূল্যবান গবেষণাপত্রের অনেক পাণ্ডুলিপি আর তার জীবনসঙ্গী হুইল চেয়ারটি। সেই চেয়ারটি বৃহস্পতিবার নিলামে বিক্রি হয়েছে। খবর সিএনএন’র।

বৃহস্পতিবার নিলামে তোলা হয়েছিল ওই হুইল চেয়ারটিসহ তার ব্যবহৃত কিছু জিনিষপত্র, চিঠি, গবেষণাপত্রের পাণ্ডুলিপিসহ অনেক কিছুই। ব্রিটেনের নিলামকারী সংস্থা ‘ক্রিস্টিজ’এর আয়োজিত একটি অনলাইন নিলামে হকিংয়ের ব্যবহার করা মোটরচালিত একটি হুইলচেয়ার, একাধিক নিবন্ধের পাণ্ডুলিপি ও বেশ কিছু মেডেল বিক্রি হয়েছে। এছাড়াও নিলামে তোলা হয়, তার সাক্ষর করা ও আঙুলের ছাপ দেওয়া ‘আ ব্রিফ হিস্ট্রি অফ টাইম’এর একটি কপি ও ১৯৬৫ সালে লেখা একটি গবেষণাপত্র।

হকিংয়ের ব্যবহার করা সেই হুইলচেয়ারটি বিক্রি হয় ৩ লাখ ৯৩ হাজার ডলারে। যা বাংলাদেশি টাকায় প্রায় ৩ কোটি ৩০ লাখ টাকা। এছাড়া তার লেখা ‘প্রপার্টি অফ এক্সপ্যান্ডিং ইউনিভার্সেস’ নামের একটি গবেষণাপত্র ৭ লাখ ৬৭ হাজার ডলারে বিক্রি হয়। যা বাংলাদেশি টাকায় প্রায় সাড়ে ৬ কোটি। হকিংয়ের সাক্ষর করা ‘আ ব্রিফ হিস্ট্রি অফ টাইম’ বইয়ের কপিটি বিক্রি হয় ৬৫ লাখ টাকায়। তার মেডেলগুলোর দাম ওঠে ১ কোটি ৩০ লক্ষ টাকা।

এছাড়াও তার কিছু গুরুত্বপূর্ণ কাগজপত্র নিলামে তোলা হয়। যার মধ্যে ছিল, স্যর আইজ্যাক নিউটনের সাক্ষর করা ব্যাঙ্ক ঋণ সংক্রান্ত একটি দলিল, চার্লস ডারউইনের লেখা কিছু চিঠি ও নিউটন সম্পর্কে অ্যালবার্ট আইনস্টাইনের একটি লিখিত অভিমত।

নিউটনের সাক্ষর করা দলিলটি ৫ কোটি ৩২ হাজার টাকায় বিক্রি হয়েছে। আর ডারউইনের চিঠিগুলো বিক্রি হয়েছে ১ কোটি ৪২ লাখ টাকায়। এছাড়া আইনস্টাইনের লেখাটির দাম ওঠে ১ কোটি ৩০ লাখ টাকা।

জানা গেছে, নিলামে ওঠামাত্রই সবগুলো খুব দ্রুত বিক্রি হয়। নিলামে তোলা এসব জিনিষপত্রের মোট মূল্য পাওয়া গেছে ১৮ লাখ পাউন্ডেরও বেশি। বাংলাদেশি টাকায় যার পরিমাণ দাঁড়ায় প্রায় ২০ কোটি টাকা।

নিলাম থেকে যে টাকা উঠে এসেছে, তার একটা বড় অংশ হকিং পরিবারের হাতে তুলে দেওয়া হবে বলে জানিয়েছে নিলামকারী সংস্থাটি।

 


আরও পড়ুন

২ Comments

Comments are closed.