করিমগঞ্জ - তাড়াইল - নভেম্বর ২৮, ২০১৮ ১১:৪৩ অপরাহ্ণ

কিশোরগঞ্জ-৩ আসনে স্বতন্ত্র প্রার্থী ড. মিজানুল হক

একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে মনোনয়ন দাখিলের শেষ দিন আজ । শেষ দিনে স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসাবে মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছেন ড. মিজানুল হক ও মনিরুজ্জান নয়ন।

আজ বিকালে সহকারি রিটার্নিং অফিসার ও করিমগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী অফিসার শারমিন সুলতানার নিকট স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসাবে ড. মিজানুল হক ও মনিরুজ্জামান নয়ন মনোনয়ন ফরম জমা দেন। স্বতন্ত্র প্রার্থী ছাড়াও বিএনপি মনোনীত প্রার্থী এ্যাডভোকেট জালাল মোহাম্মদ গাউস ও ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ মনোনীত আলমগীর হোসেন মনোনয়নপত্র জমা দেন। এছাড়াও আজ বিকালে কিশোরগঞ্জ জেলা রিটার্নিং অফিস কার্যালয়ে এ আসনে বিএনপি মনোনীত দ্বিতীয় প্রার্থী সাইফুল ইসলাম সুমন (ভিপি) মনোনয়নপত্র জমা দেন।

স্বতন্ত্র প্রার্থী ড. মিজানুল হক এর আগে একাদশ সংসদ নির্বাচনে বাংলাদেশ আওয়ামীলীগের দলীয় মনোনয়ন ফরম সংগ্রহ করেছিলেন কিন্তু দল তাঁকে মনোনয়ন দেয়নি। উল্লেখ্য যে ড. মিজানুল হক বাংলাদেশ আওয়ামীলীগের মনোনীত প্রার্থী হিসাবে ১৯৯১ ও ১৯৯৬ সালের নির্বাচনে জয়লাভ করে সংসদ সদস্য হয়ে সপ্তম (১৯৯৬) জাতীয় সংসদে সংসদীয় হিসাব সম্পর্কিত কমিটির সভাপতির দায়িত্ব পালন করেন। ২০০১ সালে অষ্টম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে আওয়ামীলীগের দলীয় প্রার্থী হয়ে বিএনপি দলীয় প্রার্থী ড. ওসমান ফারুকের নিকট পরাজিত হন। ২০০৮ সালে নবম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে মহাজোটের প্রার্থী হিসাবে জাতীয় পার্টির এডভোকেট মুজিবুল হককে এ আসনে প্রার্থী করা হলে স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসাবে নির্বাচন করার ঘোষনা দেন। পরে দলীয় হাইকমান্ডের নির্দেশে নিজেকে প্রত্যাহার করে মহাজোটের নির্বাচন করেন। ২০১৪ সালে দশম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে জাতীয় পার্টির মুজিবুল হক চুন্নুকে মহাজোটের প্রার্থী করলে তিনি হরিণ মার্কা নিয়ে স্বতন্ত্র নির্বাচন করে পরাজিত হন।

মনিরুজ্জামান নয়ন প্রথমবার এ আসনে নির্বাচন করার জন্য স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসাবে মনোনয়নপত্র জমা দেন। তিনিও এ আসন থেকে আওয়ামীলীগের মনোনয়ন ফরম সংগ্রহ করেছিলেন।

গতকাল মঙ্গলবার ২৭ নভেম্বর মহাজোটের প্রার্থী হিসাবে কিশোরগঞ্জ-৩ (করিমগঞ্জ-তাড়াইল) আসনের বর্তমান সাংসদ ও বাংলাদেশ সরকারের শ্রম ও কর্মসংস্থান মন্ত্রণালয়ের মাননীয় প্রতিমন্ত্রী এ্যাডভোকেট মুজিবুল হক চুন্নু করিমগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী অফিসার ও সহকারী রিটার্নিং অফিসারের নিকট মনোনয়নপত্র জমা দেন।