চট্টগ্রাম- ১ আসনে আ.লীগ ও বিএনপির বৈধ প্রার্থীর নাম ঘোষণা

মোহাম্মদ মাসুদুজ্জামান রাজীব , প্রতিনিধি
ডিসেম্বর ৩, ২০১৮ ১১:২২ পূর্বাহ্ণ
আসন্ন একাদশ জাতীয় সাংসদ নির্বাচনে মীরসরাই উপজেলার সাংসদীয় আসন চট্টগ্রাম -১। এই আসনে  নির্বাচনী তফসীল ঘোষণার পর থেকে আওয়ামীলীগ ও বিএনপি থেকে একাধিক প্রার্থী দলীয় মনোনয়ন সংগ্রহ করেছেন। তাদের অনেকে রাজনৈতিক পরিবার ছাড়া ও ব্যবসায়ী শ্রেণীর বেশ কয়েকজন এবার দলীয় মনোনয়ন নিয়ে সাংসদ নির্বাচনে অংশ নেওয়ার জন্য বেশ প্রচারণা চালিয়েছেন।অবশেষে তাদের অধিকাংশ দলীয় মনোনয়ন না পেয়ে হতাশ হয়ে নীরব ভূমিকা পালন করতেছেন। বিএনপির মনোনয়ন নিয়ে অনেকে মরিয়া হয়ে উঠলেও সবাইকে হতভাগ করে তৃণমূল রাজনীতি  থেকে উঠে আসা নুরুল আমীন এর নাম প্রকাশ করে জাতীয়তাবাদী দল বিএনপি।তিনি একসময় ইউপি সদস্য,ইউপি চেয়ারম্যান ও সর্বশেষ উপজেলা চেয়ারম্যান পদে বিএনপি থেকে বিজয়ী হয়েছিলেন।
ইতিমধ্যে তিনি জাতীয় সাংসদ নির্বাচনে অংশ নিতে উপজেলা চেয়ারম্যান পদ থেকে পদত্যাগ করেছেন। বিএনপি থেকে নুরুল আমীনকে মনোনয়ন দেওয়ায় তৃণমূলের অনেক নেতা কর্মী দলের সিদ্ধান্তকে সঠিক বলে মন্তব্য প্রকাশ করেন।
অপরদিকে আওয়ামীলীগ থেকে  দলীয় বৈধ মনোনীত প্রার্থী হলেন মীরসরাইয়ের তথা সমগ্র বাংলাদেশের বর্ষীয়ান রাজনীতিবীদ ও বাংলাদেশ আওয়ামীলীগ এর কেন্দ্রীয় প্রেসিডিয়াম সদস্য বীর মুক্তিযোদ্ধা ইঞ্জিনিয়ার মোশাররফ হোসেন।তিনি এবার সহ সাতবার আওয়ামীলীগ থেকে মনোনীত হয়েছেন বলে জানা যায়।
সুদীর্ঘ রাজনৈতিক জীবনে তার পদচারণায় মীরসরাইবাসী অনেকাংশে গর্বিত ।জানা যায়  এস রহমান পরিবার শত বছর যাবত এ অঞ্চলে নাগরিক সেবায় নিয়োজিত রয়েছেন।বাংলাদেশ আওয়ামীলীগ  থেকে পুনরায়  এই প্রবীন কেন্দ্রীয় নেতাকে দলীয় প্রার্থী মনোনীত করায় আওয়ামীলীগের তৃণমূল নেতা কর্মীগণ সাধুবাদ জানান।
এছাড়া ও আওয়ামীলীগে তার সমতুল্য এমন অভিজ্ঞ রাজনীতিবিদ নেই বলে দলের একাধিক নেতাকর্মী মন্তব্য করেন।আওয়ামীলীগ থেকে মোশাররফ ও বিএনপি থেকে নুরুল আমীন এই দুজনের দলীয় মনোনয়ন চুড়ান্ত বলে ইতিমধ্যে দলের নেতৃবৃন্দ নিশ্চিত হয়েছেন।মীরসরাই উপজেলায়  আওয়ামীলীগ ঘোষিত নির্বাচনী ইশতেহারগুলো ৯৯ভাগ সম্পন্ন হয়েছে বলে একাধিক সূএ থেকে জানা যায়।এছাড়া ও নতুন চমক হিসেবে যোগ হয়েছে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান বিশেষ অর্থনৈতিক অঞ্চল।যা আজ দৃশ্যমান।এ ছাড়া  ইছাখালী ইউনিয়ন সংলগ্ন পাউবো এর বেঁড়ীবাঁধ ব্যাতীত অএ উপজেলার বিভিন্ন সংযোগ সড়কসহ সকল সড়কগুলোর উন্নয়ন কাজ প্রায় সমাপ্ত। অএ উপজেলায় শতভাগ বিদ্যুৎয়াতনের লক্ষ্য নিয়ে কাজ চলমান রয়েছে।নির্বাচনী ইশতেহারে ঘোষিত সড়ক ও জনপথ বিভাগের পরিত্যক্ত জায়গায় একটি কারিগরী প্রশিক্ষন কেন্দ্র নির্মাণ কাজটি শুধু বাকি রয়েছে।বিএনপি জামায়াত ক্ষমতায় থাকাকালীন সময়ের তুলনায় আওয়ামীলীগ সরকারের আমলে মীরসরাইতে ব্যাপক উন্নয়ন কার্যক্রম সম্পন্ন হয়েছে বলে জানান এই অঞ্চলের সাধারণ জনগোষ্ঠী।
এছাড়া ও সন্ত্রাস,দলীয় হিংসার রাজনীতি অতীতের তুলনায় অনেকাংশে কম হয়েছে বলে মন্তব্য করেন একাধিক সচেতন নাগরিক।অপরদিকে বিএনপি থেকে মনোনীত প্রার্থী তৃণমূল থেকে উঠে আসলে ও তাদের দলে বিভিন্ন কোন্দল রয়েছে বলে জানা যায়।দেশব্যাপী যুদ্ধাপরাধী সংগঠন জামায়াতের রাজনৈতিক নিবন্ধন বাতিল করায় তারাও বিভিন্নভাবে বিভক্ত রয়েছে বলে জানা যায়।সর্বোপরি বিএনপি চট্টগ্রাম -১আসনে আওয়ামীলীগ থেকে বেশী সংগঠিত ও জনপ্রিয় কিনা তা যাচাই করার একমাএ উপায় হচ্ছে ৩০ডিসেম্বর।এই অঞ্চলের জনগণ তাদের ভোটাধিকার প্রয়োগের মাধ্যমে একজন যোগ্য রাজনীতিবিদকে মীরসরাইবাসীর কল্যাণে কাজ করার সুযোগ দিয়ে বিজয়ী করবেন বলে মত প্রকাশ করেন একাধিক রাজনৈতিক বিশ্লেষক।

 

Leave A Reply

Your email address will not be published.

সর্বশেষ পাওয়া