কিশোরগঞ্জ সদর - ডিসেম্বর ৫, ২০১৮ ১১:২৬ অপরাহ্ণ

হাসপাতাল ছাড়ার মুহূর্তে যা যা করলেন এডিসি জেনারেল

গত ১ ডিসেম্বর ২০১৮ তারিখ শনিবার সন্ধ্যায় এডিসি জেনারেল তরফদার মোঃ আক্তার জামীল ডায়রিয়ায় আক্রান্ত হন। ঐ রাতে ডাক্তারের পরামর্শক্রমে প্রাথমিক চিকিৎসা গ্রহণ করে অফিসার্স ডরমেটরিতেই অবস্থান করেন। নির্বাচনের কাজে পরদিন শনিবার সকালে অফিস করতে গেলে অবস্থার অবনতি উপলব্ধি করে তিনি নিজেই আধুনিক সদর হাসপাতাল, কিশোরগঞ্জে ভর্তি হন। হাসপাতালে ভর্তির পরমুহূর্তেই সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে তার অসুস্থতার খবর চারদিকে ছড়িয়ে পড়ে। টানা ৪ দিন ডাক্তারদের চিকিৎসা, সাধারণ মানুষদের অকৃত্রিম ভালোবাসা আর দোয়ায় চিকিৎসা শেষে আজ সকাল ১১ টায় তিনি হাসপাতাল থেকে ছাড়পত্র নেন।

কাজ পাগল এই এডিসি জেনারেল হাসপাতালের বদ্ধ কেবিনে কাজের জন্য অস্থির হয়ে উঠছিলেন। প্রথম দিন থেকেই বেডে শুয়ে শুয়েই ফোন কলের মাধ্যমে বিভিন্ন কাজের তদারকি করেছেন। শেষ দিনে হাসপাতাল ছাড়ার মুহূর্তেও সবাই কে অবাক করেছেন তার কর্মের মাধ্যমে।

যে কক্ষটিতে তিনি অবস্থান করেছিলেন সেই কক্ষের বাথরুমের কমোডের নষ্ট ফ্লাসটিও নিজ উদ্যোগে সংস্কার করিয়েছেন, বাথরুমে নতুন ফিটিংস লাগিয়েছেন। ত্যাগ করার পূর্ব মুহূর্তে বাহির থেকে ক্লিনার আনিয়ে টাইলসে জমে থাকা পুরনো ময়লা পরিষ্কার করিয়ে দিয়েছেন। সৌন্দর্য বর্ধনের জন্য কক্ষটিতে একটি সুদৃশ্য ওয়ালম্যাট টানিয়ে দিয়েছেন। সুন্দর স্বাস্থ্যসেবার জন্য হাসপাতাল কর্তৃপক্ষকে ধন্যবাদ জানিয়ে কক্ষের দরজায় একটি পত্র লাগিয়ে দিয়ে এসেছেন। এছাড়া হাসপাতাল ত্যাগের মুহূর্তেও পাশের কেবিন ও ওয়ার্ডের রোগীরা কেমন স্বাস্থ্যসেবা পাচ্ছেন তা দেখতে যান। এসময় তার সাথে হাসপাতালের উপপরিচালক ডা. সুলতানা রাজিয়া ও কর্তব্যরত চিকিৎসকরা অবস্থিত ছিলেন।

উল্লেখ্য, সিভিল সার্জন অফিসের আয়োজনে হাসপাতালের কনফারেন্স রুমে “লাইফস্টাইল এবং হেলথ্ এডুকেশন ও প্রমোশন প্রোগ্রাম” এর আওতায় জেলা পর্যায়ে একটি কর্মশালা চলছিল। কর্মশালায় সভাপতিত্ব করছিলেন সিভিল সার্জন ডা. মোঃ হাবিবুর রহমান। এডিসি জেনারেল সিড়ি বেয়ে নামার পথে ঢুকে পড়লেন সেই কর্মশালায়। খানিকটা সময় সেখানে অবস্থান করে কর্মশালায় নিজ বক্তব্য উপস্থাপন শেষে সকলের অনুরোধে ডরমেটরিতে ফিরে যান। জানা যায় সন্ধ্যায় আরো আরো একটি সভায় অংশ নিবেন তিনি।

 

মুক্তিযোদ্ধার কণ্ঠ/এন