খেলার খবর - January 28, 2019

জিরোনার মাঠে জিতলো বার্সেলোনা

লা লিগার এই মৌসুমে জিরোনার বিপক্ষে ঘরের মাঠে পয়েন্ট হারানোর হতাশা ছিল বার্সেলোনার। এবার প্রতিপক্ষের মাঠে তারা সেটা কাটিয়ে উঠলো। সেমেদো ও লিওনেল মেসির লক্ষ্যভেদে ২-০ গোলে জিতেছে তারা।

গত সেপ্টেম্বরে এক পয়েন্ট নিয়ে ন্যু ক্যাম্প ছেড়েছিল জিরোনা। ক্রিস্টিয়ান স্টুয়ানির জোড়া লক্ষ্যভেদে ২-২ গোলে বার্সেলোনার সঙ্গে ড্র করেছিল গত মৌসুমে লা লিগায় উন্নীত দলটি। এবার নিজেদের মাঠেও কাতালানদের কঠিন পরীক্ষা নিয়েছিল তারা। বার্সা গোলরক্ষক মার্ক আন্দ্রে টের স্টেগেন সেই পরীক্ষায় জয়ী হয়েছেন দারুণ কয়েকটি সেভে।

জিরোনার বেশ কয়েকটি আক্রমণে তটস্থ হলেও বার্সা তাদের এলোমেলো রক্ষণের সুযোগ নিয়ে এগিয়ে যায়। ৯ মিনিটে মেসি পাস দেন জোর্দি আলবাকে, তার ক্রস আটকাতে গিয়ে দুর্বল হয়ে পড়ে স্বাগতিকদের রক্ষণভাগ। সেই সুযোগে বক্সের মধ্যে থেকে বাঁ পায়ের শটে লক্ষ্যভেদ করেন সেমেদো।

৫ মিনিট পর জিরোনা সুযোগ পেয়েছিল। বাঁকানো ফ্রি কিকে গোলপোস্টের ছয় গজ দূর থেকে নেওয়া আলকালার হেড অল্পের জন্য লক্ষ্যভ্রষ্ট হয়। ১৬ মিনিটে ব্যবধান দ্বিগুণ করার সুবর্ণ সুযোগ হারায় বার্সা। বক্সের বাইরে থেকে মেসির মাপা পাসে বল পেয়ে এগিয়ে যান ফিলিপ্পে কৌতিনিয়ো। কিন্তু তার শট জিরোনা গোলরক্ষক বোনো রুখে দেন পা দিয়ে।

জিরোনা দ্বিতীয় সুযোগ পায় ৩৬ মিনিটে। ওইবার পোর্তুর চেষ্টা ব্লক করে দেয় অতিথিরা। বিরতির তিন মিনিট আগে গোললাইনে দাঁড়িয়ে জেরার্দ পিকে বাঁচান বার্সাকে। স্টুয়ানির শট টের স্টেগেন রুখলেও ফিরতি শটে পনস গোলমুখে বল পাঠান, কিন্তু তার আগেই স্প্যানিশ ডিফেন্ডার ফিরিয়ে দেন তার চেষ্টা।

দ্বিতীয়ার্ধের শুরুতে আবার স্টুয়ানিকে ব্যর্থ করেন টের স্টেগেন। ৫০ মিনিটে জিরোনা ফরোয়ার্ড বার্সা গোলরক্ষককে একা পেয়েও লক্ষ্যভেদ করতে পারেননি। পরের মিনিটে দ্বিতীয় হলুদ কার্ডের শাস্তিতে লাল কার্ড দেখে মাঠ ছাড়েন স্বাগতিক ডিফেন্ডার বের্নার্দো এসপিনোসা। ১০ জনের দল হলেও জিরোনা আক্রমণে ধার কমায়নি। ৫৫ মিনিটে স্টুয়ানির বাঁকানো শট আবারও বাধা পায় টের স্টেগেনের কাছে।

জিরোনার আক্রমণের কারণে মাত্র এক গোল করে অস্বস্তিতে ছিল বার্সা। শেষ পর্যন্ত ৬৮ মিনিটে মেসির চমৎকার গোলে তাদের স্বস্তি ফেরান। আলবার অ্যাসিস্টে বোনুর মাথার উপর দিয়ে বল তুলে মারেন বার্সা অধিনায়ক। ফাঁকা জালে ঢুকে যায় বল।

দুই গোলে পিছিয়ে পড়া জিরোনা আর ব্যবধান বাড়াতে দেয়নি বোনুর কল্যাণে। ৭৫ মিনিটে লুই সুয়ারেস, দুই মিনিট পর মেসিকে রুখে দেন স্বাগতিক গোলরক্ষক। দ্বিতীয়ার্ধের ইনজুরি সময়ের তৃতীয় মিনিটে আর্জেন্টাইন ফরোয়ার্ডের পাস থেকে বল গোলমুখের সামনে পেয়েও ব্যর্থ হন সুয়ারেস। তার শট আবার প্রতিহত করেন বোনু।

এই জয়ে ২১ ম্যাচে ৪৯ পয়েন্ট নিয়ে অ্যাতলেতিকো মাদ্রিদের (৪৪) সঙ্গে আবারও ব্যবধান বড় করলো বার্সা। নিকট প্রতিদ্বন্দ্বীর সঙ্গে তাদের দূরত্ব এখন ৫ পয়েন্টের।


আরও পড়ুন

২ Comments

  1. It’s actually a great and useful piece of information. I’m happy that you simply shared this helpful info with us. Please keep us up to date like this. Thank you for sharing.

Comments are closed.