দিল্লিতে ব্যস্ত দিন কাটালেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী

ডেস্ক রিপোর্ট , মুক্তিযোদ্ধার কন্ঠ
ফেব্রুয়ারি ৮, ২০১৯ ১০:৪৪ পূর্বাহ্ণ

পররাষ্ট্রমন্ত্রী হিসেবে দায়িত্ব গ্রহণের পর প্রথম আনুষ্ঠানিক সফরে দিল্লি গিয়ে আজ বৃহস্পতিবার (৭ ফেব্রুয়ারি) কর্মব্যস্ত দিন কাটিয়েছেন ড.এ কে আব্দুল মোমেন। সকালে ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির সঙ্গে সাক্ষাৎ করে দিন শুরু করেন তিনি। এর পর ভারতের সাবেক প্রধানমন্ত্রী মনমোহন সিং ও রাজ্যসভার বিরোধীদলের উপ-প্রধান আনন্দ শর্মার সঙ্গে বৈঠক করেন। এসব বৈঠকে সাম্প্রতিক নির্বাচন, উন্নয়ন সহযোগিতা, তিস্তাসহ অন্যান্য আন্তর্জাতিক নদীর পানি ব্যবস্থাপনা, রোহিঙ্গাসহ বিভিন্ন ইস্যুতে তাদের মধ্যে আলোচনা হয়। আগামীকাল পররাষ্ট্র মন্ত্রীপর্যায়ের পঞ্চম যৌথ কনসালটেটিভ কমিশনের দ্বিপক্ষীয় বৈঠকে বাংলাদেশি প্রতিনিধি দলের নেতৃত্ব দেবেন তিনি।

মোদির সঙ্গে বৈঠক

৩০ ডিসেম্বরের নির্বাচনে জয়লাভের পর প্রথম বিদেশি সরকার প্রধান হিসাবে নরেন্দ্র মোদি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে অভিনন্দন জানান। ভারত সফরে গিয়ে  প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির সঙ্গে সাক্ষাৎ করে এজন্য বাংলাদেশের পক্ষ থেকে তাকে ধন্যবাদ জানিয়েছেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী এ কে আব্দুল মোমেন।

পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, রোহিঙ্গাদের জন্য ভারত যে মানবিক সহায়তা পাঠিয়েছে সেজন্যও মোদিকে ধন্যবাদ জানান মোমেন। একইসঙ্গে রোহিঙ্গাদের দ্রুত প্রত্যাবাসনের জন্য ভারত সরকারের সহায়তা প্রত্যাশা করেন তিনি।

এর উত্তরে মোদি পুনর্ব্যক্ত করেন যে ভারত বাংলাদেশের সঙ্গে আছে এবং এই বিষয়ে সহযোগিতা করবে।

বৈঠকে দ্বিপক্ষীয় সম্পর্ক অত্যন্ত চমৎকার হিসাবে অভিহিত করে মোমেন সামনের দিনগুলিতে এই সম্পর্ক আরও ভালো করার ওপর জোর দেন।

তিনি বলেন, দুইদেশ দীর্ঘদিনের সমস্যা শান্তিপূর্ণভাবে সমাধান করতে পেরেছে যা সবাই প্রশংসা করেছে।

এর উত্তরে মোদি বলেন, দুইদেশের মধ্যে অংশীদারিত্ব বৃদ্ধি পাচ্ছে এবং বাংলাদেশের সমৃদ্ধি ও উন্নয়নের জন্য ভারত প্রতিশ্রুতিবদ্ধ।

মোদি আরও বলেন, বাংলাদেশ-ভারত সম্পর্ক একটি মডেল যা সারাবিশ্বে দেখানো সম্ভব।

মনমোহনের সঙ্গে বৈঠক

শেখ হাসিনার নেতৃত্বাধীন আওয়ামী লীগ সরকার তৃতীয় মেয়াদে সরকার গঠন করায় তাকে অভিনন্দন জানিয়েছেন মনমোহন সিং। পররাষ্ট্রমন্ত্রী তার সঙ্গে সৌজন্য  সাক্ষাৎ করতে গেলে তিনি বলেন, রোহিঙ্গাদের প্রত্যাবাসন একটি অগ্রাধিকার পাওয়ার বিষয় এবং এ বিষয়ে ভারত সরকারের নেওয়া যে কোনও উদ্যোগকে সহায়তা দেবেন তারা।

ভারতের সাবেক প্রধানমন্ত্রী আশা প্রকাশ করেন তিস্তাসহ অন্যান্য অনিষ্পন্ন বিষয়গুলো দুইদেশ সমাধান করতে পারবে।

মনমোহনকে শেখ হাসিনার শুভেচ্ছা পৌঁছে দিয়ে পররাষ্ট্রমন্ত্রী দুইদেশের মধ্যে চমৎকার সম্পর্কের বিষয়ে সন্তোষ প্রকাশ করেন।

যৌথ কনসালটেটিভ কমিশনের বৈঠক

আগাামীকাল শুক্রবার অনুষ্ঠেয় যৌথ কনসালটেটিভ কমিশনের বৈঠকে ভারতের পক্ষে নেতৃত্ব দেবেন দেশটির পররাষ্ট্রমন্ত্রী সুষমা স্বরাজ। বাংলাদেশের প্রতিনিধি দলকে সঙ্গে নিয়ে ওই বৈঠকে বসে দ্বিপক্ষীয় বিভিন্ন বিষয় নিয়ে আলোচনা করবেন এ কে আব্দুল মোমেন। তবে বৈঠকে প্রাধান্য পাবে রাজনৈতিক সম্পর্ক উন্নয়ন, বাণিজ্য, বিদ্যুৎ ও জ্বালানি, নিরাপত্তা সহযোগিতা, কানেক্টিভিটি, সীমান্ত ব্যবস্থাপনা, সামরিক সহযোগিতা, নৌ-পরিবহন, মানুষে মানুষে যোগাযোগ ইত্যাদি।

বাংলাদেশ প্রতিনিধিদলে প্রয়োজনীয় সব মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তারা রয়েছেন মন্ত্রীকে আলোচনায় সহযোগিতার জন্য।

সমঝোতা স্মারক

দুইদেশের সরকার তিনটি ভিন্ন বিষয়ে সমঝোতা স্মারক চূড়ান্ত করেছে। পররাষ্ট্রমন্ত্রীর সফরের এগুলো স্বাক্ষর হওয়ার কথা রয়েছে। বাংলাদেশের দুর্নীতি দমন কমিশন ও ভারতের কেন্দ্রীয় ব্যুরো অফ ইনভেস্টিগেশন, বাংলাদেশ টেলিভিশন ও প্রসার ভারতী এবং দুই দেশের স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের মধ্যে সমঝোতা স্মারকগুলো স্বাক্ষর হবে। এছাড়া আরও দুটি সমঝোতা স্মারক নিয়ে উভয় পক্ষে আলোচনা চূড়ান্তের পথে রয়েছে।

প্রসঙ্গত দুইদেশের মধ্যে চতুর্থ যৌথ কনসালটেটিভ কমিশনের বৈঠক ২০১৭ সালে ঢাকায় অনুষ্ঠিত হয়েছিল।

Leave A Reply

Your email address will not be published.

সর্বশেষ পাওয়া
কবি আবদুল হাই মাশরেকীর জন্মশতবর্ষ উৎসবে ময়মনসিংহে দুই বাংলার কবি-সাহিত্যিকের মিলন মেলা কুলিয়ারচরে এসএসসির ভুয়া প্রশ্নপত্র সংগ্রহ ও অর্থ সংগ্রকারী প্রতারক চক্রের ১ সদস্য আটক আফগানিস্তানের ২০ ওভারে ২৭৮ রানের বিশ্বরেকর্ড! 'মার্কিন নিয়ন্ত্রণ কেন্দ্রে ঢুকেছে ইরান' ডাকসু নির্বাচনে ছাত্রলীগের প্যানেল চূড়ান্ত ভারতের বেঙ্গালুরুতে বিমান ঘাঁটিতে ভয়াবহ অগ্নিকাণ্ড, ৩০০ গাড়ি পুড়ে ছাই ছাত্রী উত্ত্যক্ত করার দায়ে ছাত্রলীগ নেতার কারাদণ্ড পুরান ঢাকায় আর রাসায়নিকের ব্যবসা করতে দেয়া যাবে না : প্রধানমন্ত্রী সাবেক মন্ত্রীকে বিয়ে করছেন সানাই আসামে বিষাক্ত মদপানে নিহতের সংখ্যা বেড়ে ৮৪