ক্যাম্পাস - ফেব্রুয়ারি ২৪, ২০১৯

মুক্তিযোদ্ধা সন্তানদের উপর পুলিশি হামলায় রাবিতে প্রতিবাদী সমাবেশ

গণভবনের সামনে মুক্তিযোদ্ধা সন্তান ও প্রজন্মদের উপর পুলিশের উপর বর্বরোচিত হামলায় প্রতিবাদী সমাবেশ করেছে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়  মুক্তিযোদ্ধা সন্তান ও প্রজন্মরা। 

রবিবার সকাল ১১টা কেন্দ্রীয় পাঠাগার সামনে প্রতিবাদী সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়। ইসলামিক স্টাডিস বিভাগের মাস্টার্স শিক্ষার্থী মুনির হোসেন সঞ্চালনায় ও মুক্তিযোদ্ধা সন্তান ও প্রজন্মের আহবায়ক অমর কুমার রায় সভাপতিত্বে বাংলা বিভাগের প্রফেসর বীর মুক্তিযোদ্ধা সরকার সুজিত কুমার বলেন, মুক্তিযোদ্ধা সন্তানরা চকবাজারের ট্যাজিডির নিহতদের জন্য  শোক প্রকাশ করে মোমবাতি প্রজ্জলন শেষে ছয় দফা জানিয়ে গণভবনে  সামনে শান্তিপূর্ণ অবস্থান করে।সেসময় পুলিশি হামলা চালায়। সব জায়গায় মুক্তিযোদ্ধা সন্তাবরা অপমানিত -অপদস্ত হবে প্রশাসনের কাছে, তারা পথে ঘাটে মার খাবে? সকল জায়গায় মুক্তিযোদ্ধা সন্তানদের উপর হামলা করা হচ্ছে, কেন? তারা  কোন অপরাধ করেনি।

ন্যায্য দাবি জানিয়েছিলো।তিনি আরো বলেন, মুক্তিযোদ্ধা সন্তান ও প্রজন্মের উমর বর্রবরোচিত হামলা তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানাই এবং সুষ্ঠ তদন্ত করে যারা জড়িত যাদের আইনের আওতায় আনা হোক।

মুক্তিযোদ্ধা সন্তান ও প্রজন্মদের আহবায়ক ওমর কুমার রায় বলেন, ছয়দফা দাবি জানিয়ে মুক্তিযোদ্ধা সন্তান ও প্রজন্মরা প্রধানমন্ত্রী বাসভবনে সামনে শান্তিপূর্ণ অবস্থান করছিলো, হঠাৎ পুলিশ মুক্তিযোদ্ধা  সন্তানদের উপর মারধর করে এবং ২৮ জনকে আটক করে পুলিশ।  কিন্তু কেন?  মুক্তিযোদ্ধা সন্তানরা কি তাদের দাবি জানাতে পারে না। প্রধানমন্ত্রী কাছে অনুরোধ দেশ যখন দ্রুত গতিতে এগিয়ে যাচ্ছে তখন কুচক্রী মহল মুক্তিযোদ্ধা সন্তাদের উপর সুযোগ- সুবিধা গুলো সহ্য করতে পারছেনা, এজন্য উঠে পরে লেগেছে। আমরা পুলিশি হামলা তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানাই।

সুষ্ঠ তদন্ত করে বিচারের আওতায় এসে শাস্তি দাবি জানাচ্ছি এবং মুক্তিযোদ্ধা সন্তানদের ছয় দাবি মেনে নেওয়ার অনুরোধ জানাচ্ছি।

প্রতিবাদ সমাবেশে  আরো বক্তব্য রাখেন, মুক্তিযোদ্ধা সন্তান জ্যাতিবসু বর্মন, মুহতাসিম বিল্লাহ মারুফ,নাসির উদ্দিন।প্রতিবাদী সমাবেশে রায় সমাবেশ অর্ধশতাদিক মুক্তিযোদ্ধা সন্তান ও প্রজন্মরা উপস্থিত ছিলো।এর আগে চকবাজার ট্যাজিটি  নিহতদের প্রতি গভীর শোক প্রকাশ করে কালো ব্যাচ ধারণ করে এবং, নিহতদের পরিবারের প্রতি সহযোগিতা করার জন্য  প্রধানমন্ত্রীকে আহবান জানানো হয়।

উল্লেখ্য, গত ২২ ফেব্রুয়ারী চকবাজার অগ্নিকান্তে নিহতদের শোক প্রকাশ করতে ধানমন্ডী আওয়ামীলীগ কার্যালয় সামনে মোমবাতি প্রজ্জলন শেষে  ছয় দফা দাবিতে প্রধানমন্ত্রী কার্যালয় সামনেশান্তিপূর্ণভাবে অবস্থান করে মুক্তিযোদ্ধা সন্তান ও প্রজন্মরা। এসময় পুলিশি বাঁধা প্রয়োগ করলে অর্ধশতাধিক আহত হয় এবং ২৮ জনকে আটক করে পুলিশ।অসুস্থের ঢাকা মেডিকেল ভর্তি করা হয়েছে।


আরও পড়ুন

1 Comment

Comments are closed.