আটক ভারতীয় পাইলটের মুক্তি আজ সন্ধ্যায়

পাকিস্তানে আটক ভারতীয় পাইলটকে শুক্রবার সন্ধ্যায় ভারতীয় বিমানবাহিনীর কর্মকর্তাদের কাছে হস্তান্তর করা হবে বলে জানিয়েছে ভারতীয় সংবাদমাধ্যমগুলো। নিউজ এইটিনের প্রতিবেদনে বলা হয়, শুক্রবার সন্ধ্যায় ওয়াগা সীমান্তে পাইলট অভিনন্দন বর্তমানকে গ্রহণ করবেন বিমানবাহিনীর কর্মকর্তারা। এর আগে ‘শান্তির নিদর্শন’র অংশ হিসেবে তাকে মুক্তি দেওয়ার ঘোষণা দেন পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান। তবে সীমান্তরক্ষী বাহিনীর কর্মকর্তারা জানিয়েছেন, মুক্তির নির্দিষ্ট কোনও সময় এখনও জানা যায়নি। 

মঙ্গলবার (২৬ ফেব্রুয়ারি) ভারতীয় বিমান বাহিনী পাকিস্তানের আকাশসীমায় ঢুকে বিমান থেকে বোমাবর্ষণ করে। পরদিন বুধবার (২৭ ফেব্রুয়ারি) সকালে দুটি ভারতীয় যুদ্ধবিমান ভূপাতিত ও এক পাইলটকে আটক করে পাকিস্তান। পাল্টাপাল্টি হামলায় দুই দেশের মধ্যে উত্তেজনা বৃদ্ধির প্রেক্ষাপটে বৃহস্পতিবার পাকিস্তানের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের এক মুখপাত্র বার্তা সংস্থা এএফপিকে বলেন, ‘উত্তেজনা নিরসনে ভূমিকা রাখলে আমরা ভারতীয় পাইলটকে হস্তান্তর করতে প্রস্তুত’।

পরে পার্লামেন্টে দেওয়া এক ভাষণে ইমরান খান বলেন, তিনি এই বিষয়ে ভারতীয় প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির সঙ্গে কথা বলার চেষ্টা করেন। তিনি বলেন, ‘আমি তাক বলেছি যে আমরা কোনও উত্তেজনা চাই না। তবে আমাদের এই ইচ্ছাক দুর্বলতা ভাববেন না।’ এরপর ইমরান খান বলেন, ‘আমাদের কাছে একজন ভারতীয় পাইলট রয়েছেন। শান্তির নিদর্শন হিসেবে তাকে আমরা মুক্তি দিচ্ছি।’ সেসময় পার্লামেন্ট সদস্যরাও তাকে সমর্থন দেন। পরিস্থিতি আরও উত্তপ্ত না করতে ভারতের প্রতি আহ্বান জানান তিনি। ইমরান বলেন, এটাকে আর টেনে নেবেন না, পাকিস্তান প্রতিশোধ নিতে বাধ্য হবে।

কর্মকর্তাদের ‍উদ্ধৃত কর বার্তা সংস্থা আইএএনএস এর প্রতিবেদনে বলা হয়, বিএসএফকে এখনও মুক্তির কোনও নির্দিষ্ট সময় বলা হয়নি। তারা জানায়, ‘পািইলটকে হয়তো রাওয়ালপিন্ডি থেকে প্রথমে লাহোরে এনে জেনেভা কনভেনশনের নিয়মানুযায়ী আন্তর্জাতিক রেডক্রস কমিটিকে হস্তান্তর করা হবে। ভারত আমার পর প্রতিরক্ষা ও নিরাপত্তা কর্মকর্তাদের সঙ্গে আগে কথা বলবেন অভিনন্দন। 

ইতোমধ্যে বৃহস্পতিবার দিল্লি পৌঁছেছেন অভিনন্দনের বাবা-মা। তার বাবা ভারতীয় বিমান বাহিনীর অবসরপ্রাপ্ত এয়ার মার্শাল। 

গত ১৪ ফেব্রুয়ারি কাশ্মিরের পুলওয়ামায় ভারতের ‘সেন্ট্রাল রিজার্ভ পুলিশ ফোর্সের’ গাড়িবহরে আত্মঘাতী বোমা হামলায় বাহিনীটির অন্তত ৪০ জন সদস্য প্রাণ হারান। পাকিস্তানভিত্তিক জঙ্গিগোষ্ঠী জইশ-ই-মোহাম্মদ হামলার দায় স্বীকার করে। মঙ্গলবার সেই জইশ-ই মোহাম্মদের ঘাঁটি ধ্বংসের কথা বলেই ৭১-পরবর্তী ইতিহাসে প্রথমবারের মতো পাকিস্তান নিয়ন্ত্রিত কাশ্মিরের আকাশসীমায় ঢুকে বিমান হামলা চালায় ভারত।


আরও পড়ুন