তাড়াইল - March 11, 2019

তাড়াইল বাজার কেন্দ্রীয় কালীমন্দিরে চলিতেছে ৪০ প্রহরব্যাপী হরিনাম সংকীর্তন

কিশোরগঞ্জের তাড়াইল বাজার কেন্দ্রীয় শ্রীশ্রী কালীমন্দিরে চলিতেছে ৪০ প্রহরব্যাপী তারকব্রহ্ম হরিনাম সংকীর্তন।

জানা যায়, দেশমাতৃকা এবং বিশ্বের সকল জীবের শান্তি ও কল্যাণ কামনায় সার্বজনীন কালীমন্দিরের ভক্তবৃন্দের উদ্যোগে ৪০(৫দিন) প্রহরব্যাপী তারকব্রহ্ম হরিনাম সংকীর্তন বিগত ৮মার্চ থেকে শুরু হয়ে আজ তৃতীয় দিন অতিবাহিত হচ্ছে। আগামী ১২ মার্চ মঙ্গলবার দিবাগত ভোর রাতে শেষ হবে হরিনাম সংকীর্তন।তারপর ১৩ মার্চ বুধবার শুরু হবে ষোলকালীন লীলাকীর্তন ।চলবে ১৪ মার্চ বৃহস্পতিবার দিবাগত ভোর রাত অর্থাৎ সূর্যোদয় পর্যন্ত।শুক্রবার ১৫ মার্চ দধিমঙ্গল ও মোহন্ত বিদায়।

পুরো অনুষ্ঠানটির পৌরহিত্য করছেন কিশোরগঞ্জ থেকে আগত শ্রী মৃদুল গোস্বামী। নাম কীর্তন পরিবেশন করছেন,খুলনা থেকে আগত নব নিত্যানন্দ সম্প্রদায়,নরসিংদী থেকে আগত ভক্ত হরিদাস সম্প্রদায়,সাতক্ষীরার গীত গোবিন্দ সম্প্রদায় ও মামা ভাগ্নে সম্প্রদায়, হবিগঞ্জের মানব মুক্তি সম্প্রদায়,নেত্রকোনার যুগল কিশোর সম্প্রদায় ও ভক্তি বিলাস সম্প্রদায় এবং কিশোরগঞ্জের গোপীনাথ জিউর সম্প্রদায়।

ষোলকালীন লীলাকীর্তন পরিবেশন করবেন কলকাতা ভারত থেকে আগত কীর্তনীয়া শিবানী শর্মা ও কীর্তনীয়া প্রমীলা দাসী এবং বগুড়া থেকে আগত শ্রীমতি সীমা রায় কৃষ্ণপ্রিয়া।

এর আগে বিগত ৩ মার্চ রবিবার থেকে ৬ মার্চ বুধবার পর্যন্ত শ্রীমদ্ভগবতগীতা পাঠ করেন দিনাজপুরের ভক্তপ্রবর শ্রী জিতেন্দ্রীয় দাস প্রভু এবং নেত্রকোনার ভক্তপ্রবর শ্রী গৌরদাস সুব্রত ।বৃহস্পতিবার ৭ মার্চ ময়মনসিংহের শ্রী সুশান্ত গৌরচরণ দাসানুদাস সহযোগীদের নিয়ে অধিবাস কীর্তন পরিবেশন করেন ।

উক্ত শ্রীশ্রী হরিনাম সংকীর্তন ও ষোলকালীন লীলাকীর্তন উৎসব কমিটির সভাপতি শ্রী নিরঞ্জন সরকার ও সাধারণ সম্পাদক শ্রী রামপ্রসাদ পাল জানান উৎসব অঙ্গন একটি মিলন মেলায় পরিণত হয়েছে ।ধর্মপ্রাণ হিন্দু ভক্তবৃন্দসহ সকল ধর্মের লোকজনের আনাগোনা ও সহযোগিতা করার কারণে মহামিলনের আবির্ভাব হয়েছে ।তাছাড়া প্রতিদিন সকল ভক্তবৃন্দের জন্য সার্বক্ষণিক প্রসাদ বিতরণ অব্যাহত আছে ।


আরও পড়ুন