হোটেলে ফিরলেন ক্রিকেটাররা, নিরাপত্তা জোরদার

স্পোর্টস রিপোর্ট , মুক্তিযোদ্ধার কন্ঠ
মার্চ ১৫, ২০১৯ ১১:০৪ পূর্বাহ্ণ

নিউজিল্যান্ডের ক্রাইস্টচার্চের মসজিদ আল নূর জাম্বারে বন্দুকধারীদের হামলার ঘটনায় অল্পের জন্য রক্ষা পেয়েছেন বাংলাদেশ ক্রিকেট দলের খেলোয়াড়রা। অনুশীলনের পর জুমআর নামাজ আদায় করতে ওই মসজিদে যাচ্ছিলেন ক্রিকেটাররা। 

শুক্রবার বাংলাদেশ দলের অনুশীলন করার কথা থাকলেও ঘটনার পর ক্রিকেটাররা হোটেলে চলে গেছেন। বিসিবি’র প্রধান নির্বাহী জানিয়েছেন, শনিবারের ম্যাচ বাংলাদেশ খেলবে কি না এই বিষয়ে নিউজিল্যান্ড ক্রিকেট বোর্ডের সঙ্গে আলোচনা করে দ্রুত সিদ্ধান্ত নেয়া হবে।

এদিকে ওই হামলার পর অস্ট্রেলিয়ায় বাংলাদেশ হাই কমিশন ও নিউজিল্যান্ডে বাংলাদেশ কাউন্সিলের সঙ্গে বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের যোগাযোগ হয়েছে। এ ঘটনার পর তাদের নিরাপত্তা জোরদার করা হয়েছে।

স্থানীয় সময় দুপুর পৌণে ২টায় ক্রাইস্টচার্চের হেগলি ওভাল মাঠের খুব কাছের আল নূর জাম্বার মসজিদে এ হামলা হয়। এ ঘটনায় এখন পর্যন্ত ২৭ জন নিহত হয়েছে বলে দাবী করেছে স্থানীয় গণমাধ্যম। হামলার সন্দেহে একজনকে গ্রেফতার করেছে স্থানীয় পুলিশ।

স্থানীয় পত্রিকার বরাত দিয়ে জানা যায় বাংলাদেশ দলের খেলোয়াড়রা যখন মসজিদে প্রবেশ করতে যাচ্ছিল তখন একজন মহিলা তাদের মসজিদের ভেতরে বন্দুকধারীদের অবস্থানের কথা জানায়। 

হামলার পর নিজেদের ভেরিফাইড ফেসবুক পেজে পোস্ট করেছেন তামিম-মুশফিক। তামিম তার পোস্টে লিখেন, বন্দুকধারীর গুলি থেকে আমরা পুরো দল বেঁচে গেছি। এটা খুবই ভীতিজনক একটি অভিজ্ঞতা। সবাই আমাদের জন্য দোয়া করবেন।

মুশফিক লিখেন, ক্রাইস্টচার্চে  মসজিদের গোলাগুলি থেকে আল্লাহ আমাদের রক্ষা করেছেন। আমরা খুবই ভাগ্যবান ছিলাম। আল্লাহকে ধন্যবাদ। আমরা ঘটনার খুব কাছে ছিলাম এবং এই জিনিসগুলো আর অনুভব করতে চাই না। আমাদের জন্য প্রার্থনা করবেন।

বাংলাদেশ ক্রিকেট দলের ডাটা অ্যানালিস্ট শ্রিনিবাস তার টুইটার একাউন্টে লিখেছেন, মাত্রই এক বন্দুকধারীর হাত থেকে রক্ষা পেলাম। এখনো শ্বাস-প্রশ্বাস স্বাভাবিক হচ্ছে না। ভয় কাজ করছে সর্বত্র।

ঘটনাস্থলে থাকা ইএসপিএন ক্রিকইনফো’র বাংলাদেশ করেসপন্ডেন্ট মোহাম্মদ ইসাম টুইটে লিখেন, হেগলি পার্কের খুব কাছেই একটি মসজিদে বন্দুকধারীর হামলা থেকে বেঁচে গিয়েছেন বাংলাদেশ ক্রিকেট দলের সদস্যরা। তারা হেগলি পার্কের পেছন দিয়ে ওভাল মাঠে ফিরেছেন।

টুইটের সঙ্গে একটি ভিডিও-ও শেয়ার করেছেন ইসাম। তাতে দেখা যায়, বাংলাদেশ ক্রিকেট দলের সদস্যরা ওই পার্কের ভেতর দিয়ে নিরাপদে ফিরছেন। এসময় আশপাশে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর গাড়ির শব্দ পাওয়া যাচ্ছিল। এটি যে একটি ভয়ংকর অভিজ্ঞতা, সেটিও নিজেদের মধ্যে আলোচনা করছিলেন ক্রিকেটাররা।

ক্রিকইনফো’র খবরে বলা হয়, পার্কের মধ্য দিয়ে হাঁটার সময় বাংলাদেশি খেলোয়াড়রা অন্য পথচারীদেরও ঘটনাস্থলের দিকে যেতে নিষেধ করেন। পরে তারা হেগলি ওভাল মাঠে ফিরে আসেন। সেখানে ড্রেসিং রুমের মধ্যেই আছেন তারা। দলের লিটন দাস ও নাঈম হাসান, কোচ স্টিভ রোডস এবং দলের বাকি কোচিং স্টাফ হোটেলে অবস্থান করছিলেন। তাদের হোটেলেই থাকতে বলা হয়েছে।

এদিকে ক্রাইস্টচার্চের হেগলি ওভাল মাঠে শনিবার (১৬ মার্চ) বাংলাদেশ-নিউজিল্যান্ডের তৃতীয় টেস্ট হওয়ার কথা রয়েছে। তবে এমতাবস্থায় শনিবার সিরিজের শেষ ম্যাচটি মাঠে গড়াবে কি-না সে ব্যাপারে এখনই কিছু জানাতে পারেনি নিউজিল্যান্ড ক্রিকেট বোর্ডের কর্তাব্যক্তিরা।

Leave A Reply

Your email address will not be published.

সর্বশেষ পাওয়া