জাতীয় - প্রচ্ছদ - মার্চ ১৯, ২০১৯

নিউজিল্যান্ডের পর এবার অস্ট্রেলিয়া ভ্রমণে সতর্কতা জারি

নিউজিল্যান্ডে বাংলাদেশি নাগরিকদের ভ্রমণের বিষয়ে সতর্কতা জারির পর এবার অস্ট্রেলিয়া ভ্রমণের ক্ষেত্রেও সতর্কতা জারি করা হয়েছে।

মঙ্গলবার পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় থেকে এ তথ্য জানানো হয়েছে।

পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় জানিয়েছে, যেসব বাংলাদেশি অস্ট্রেলিয়ায় রয়েছেন এবং যারা সেখানে ভ্রমণে যেতে চান তারা যেন সব সময় সতর্ক থাকেন, বিশেষ করে পাবলিক প্লেসে। সেখানকার সম্ভাব্য ঝুঁকি সম্পর্কে জানতে গণমাধ্যম এবং স্থানীয়ভাবে তথ্য সংগ্রহের অনুরোধ করা হচ্ছে। ক্যানবেরাতে বাংলোদেশ মিশন তাদের সহায়তার জন্য সব সময় প্রস্তুত আছে। দুটি নম্বরে ফোন করে তথ্য জানা যাবে। নম্বর দুটি হলো-+৬১৪২৪৪৭২৫৪৪, +৬১৪৫০১৭৩০৩৫।

সতর্ক বার্তায় বলা হয়েছে, নিউজিল্যান্ডের ক্রাইস্টচার্চে মসজিদে অস্ট্রেলিয়ার নাগরিক ব্রেন্টন ট্যারান্টের বন্দুক হামালয় ৫০ জন নিহত এবং ৪৮ জন আহত হয়েছেন। এর মধ্যে পাঁচজন বাংলাদেশি বংশোদ্ভূত রয়েছেন। আরো তিনজন বাংলাদেশি আহত অবস্থায় হাসপাতালে চিকিৎসাধীন আছেন। হামলাকারীর বিরুদ্ধে অভিযোগ আনা হয়েছে। হামলার আগে তিনি নিজেকে একজন বর্ণবাদী হিসেবে অভিহিত করে ৭৪ পৃষ্ঠার একটি ম্যানিফেস্টো প্রকাশ করেন। ঘটনার কয়েক ঘণ্টার মধ্যে অস্ট্রেলিয়ার একজন সিনেটর একটি বিবৃতি ইস্যু করে মসজিদের হামলার জন্য মুসলিমদেরকে দায়ী করেন। অস্ট্রেলিয়ার একজন আইনপ্রণেতার মন্তব্যের পর আশঙ্কা করা হচ্ছে অস্ট্রেলিয়াতে বর্ণবাদ বাড়তে পারে।

সোমবার (১৮ মার্চ) নিউজিল্যান্ডে বাংলাদেশি নাগরিকদের ভ্রমণের বিষয়ে ট্রাভেল অ্যাডভাইজরি বা ভ্রমণ সতর্কতা জারি করে বাংলাদেশ। দেশটিতে যারা ভ্রমণের জন্য যেতে চাইছেন তাদের সতর্ক থাকার পরামর্শ দিয়ে এই সতর্কতা নোটিশ জারি করা হয়।

প্রসঙ্গত, গত শুক্রবার (১৫ মার্চ) নিউজিল্যান্ডের ক্রাইস্টচার্চের আল নূর মসজিদ ও লিনউডের আরেকটি মসজিদে একজন বন্দুকধারী ঢুকে এলোপাথারি গুলি চালায়। দেশটির ইতিহাসের সবচেয়ে নৃশংস এই সন্ত্রাসী হামলায় ৫০ নিহত এবং ৪৮ জন আহত হন। হামলাকারী ব্রেন্টন ট্যারান্টকে পরে পুলিশ গ্রেপ্তার করে। ২৮ বছর বয়সী এই অস্ট্রেলীয় নাগরিক স্বঘোষিত শ্বেতাঙ্গ আধিপত্যবাদী। সে ওই হামলার দৃশ্য সরাসরি সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যমে সম্প্রচারও করে।


আরও পড়ুন