কটিয়াদী - মার্চ ২৭, ২০১৯

কটিয়াদীতে ‘বিদ্রোহী’ প্রার্থীর সর্মথকদের বিরুদ্ধে অজ্ঞাত ২শ ব্যক্তির নামে মামলা

কিশোরগঞ্জের কটিয়াদীতে উপজেলা নির্বাচনে ভোটের আগের রাতে ব্যালটে সিল মারা এবং নির্বাচন স্থগিত করাকে কেন্দ্র করে পুলিশের সঙ্গে ধাক্কাধাক্কি ও দোকান ভাঙচুরের অভিযোগ এনে আওয়ামীলীগের
‘বিদ্রোহী’ প্রাথীর সর্মথকদের বিরুদ্ধে অন্তত ২’শ থেকে ৩’শ ব্যক্তির বিরুদ্ধে অজ্ঞাত মামলা করেছে পুলিশ।

কটিয়াদী মডেল থানার উপ-পরিদর্শক তোফায়েল আহমেদ বাদী হয়ে গতকাল সোমবার এ মামলা দায়ের করেন। যদিও এই মামলায় কোনো আসামীকে মঙ্গলবার কাউকে আটক করা হয়নি।

জানা গেছে, ভোটের আগের রাতে ব্যালটে সিল মারা এবং নির্বাচন স্থগিত করাকে কেন্দ্র করে পুলিশের সঙ্গে ধাক্কাধাক্কি ও দোকান ভাঙচুরের ঘটনা ঘটায় আওয়ামীলীগের ‘বিদ্রোহী’ প্রাথীর সর্মথকরা।

কটিয়াদী মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত অফিসার ইনর্চাজ (ওসি) মো. শফিকুল ইসলাম বলেন, কটিয়াদী উপজেলা নির্বাচনের দিন থানার সামনে অজ্ঞাতনামা লোকজন দোকান ভাঙচুর করে। এ সময় তারা পুলিশের সঙ্গে ধাক্কাধাক্কিতে লিপ্ত হয়ে পুলিশের কাজে বাধার সৃষ্টি করে। এ ব্যাপারে অজ্ঞাতনামা ২’শ
থেকে ৩’শ জনকে আসামি করে থানায় মামলা হয়েছে। অন্যদিকে সিসি ক্যামেরার ভিডিও ফুটেজ দেখে প্রত্যেক আসামিদের গ্রেফতার করা হবে বলে তিনি জানান।

উল্লেখ্য, গত রবিবার কটিয়াদী উপজেলা নির্বাচন চলাকালে কয়েকটি কেন্দ্রে আগের রাতে ব্যালট পেপারে সিল মারার অভিযোগ ওঠলে অভিযোগের ভিত্তিতে সকাল সাড়ে ১০টার দিকে রিটার্নিং কর্মকর্তা তাজুল ইসলাম ৮৯টি কেন্দ্রের সবকটিতেই ভোটগ্রহণ বন্ধ ঘোষণা করেন।

এ ঘটনায় দায়িত্বে অবহেলার অভিযোগে অতিরিক্ত পুলিশ সুপার শফিকুল ইসলাম ও কটিয়াদী থানার ওসি মোহাম্মদ শামসুদ্দিনকে প্রত্যাহার করা হয়। এছাড়াও আগের রাতে ব্যালট পেপারে সিল মারা এবং ভোটগ্রহণ স্থগিত করাকে কেন্দ্র করে স্থানীয় আওয়ামী লীগ নেতা-কর্মীরা বিক্ষোভ করেন।


আরও পড়ুন