তাড়াইল - April 2, 2019

তাড়াইলে বিশ্ব অটিজম সচেতনতা দিবস পালিত

‘সহায়ক প্রযুক্তির ব্যবহার, অটিজম বৈশিষ্ট্যসম্পন্ন ব্যাক্তির অধিকার’ এই প্রতিপাদ্যকে সামনে রেখে কিশোরগঞ্জের তাড়াইলে বিশ্ব অটিজম সচেতনতা দিবস- ২০১৯ পালন করা হয়েছে।

উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের আয়োজনে ও নন কমিউনিকেবল ডিজিজ কন্ট্রোল প্রোগ্রাম স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের বাস্তবায়নে ১২তম বিশ্ব অটিজম সচেতনতা দিবস উপলক্ষে মঙ্গলবার সকাল ৯ টায় (২ এপ্রিল) এক বর্ণাঢ্য র‍্যালি ও আলোচনা সভার আয়োজন করে। উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের পরিবার ও পরিকল্পনা কর্মকর্তা(চলতি দ্বায়িত্বে) আবাসিক মেডিকেল অফিসার ডা.বদরুল হাসানের নেতৃত্বে ও সভাপতিত্বে র‍্যালিটি উপজেলা সদরের প্রধান সড়ক প্রদক্ষিণ শেষে উপজেলা স্বাস্হ্য কমপ্লেক্সের সভাকক্ষে আলোচনা সভায় মিলিত হয়। এ সময় অন্যান্যদের মাঝে উপস্থিত ছিলেন, জুনিয়র কনসালটেন্ট (শিশু) ডা.সাখাওয়াত হোসেন, ডা.জিনাত রায়হানা, উপজেলা শিক্ষা কর্মকর্তা ফাতেমা সুলতানা,উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা একেএম গোলাম কিবরিয়াসহ স্বাস্থ্য বিভাগের কর্মকর্তা ও কর্মচারী প্রমূখ।

উপজেলা স্যানিটারি ইন্সপেক্টর ও নিরাপদ খাদ্য পরিদর্শক আবদুর রউফ তালুকদারের সঞ্চালনায় আলোচনা সভায় বক্তারা বলেন, প্রতিবন্ধী বা অটিজম শিশুদের প্রতি দায়িত্বশীল এবং সহানুভূতিশীল হতে হবে। তাদের অবহেলা করা যাবে না। শিক্ষা ও প্রশিক্ষণের মাধ্যমে তাদের দেশের সম্পদ বানাতে হবে। তারা যাতে এগিয়ে যেতে পারে সেজন্য সমাজের সুস্থ সবাইকে সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দিতে হবে। কেননা, অটিজম আক্রান্তরা সমাজের বোঝা নয়। তাদের শিক্ষা ও প্রশিক্ষণ দেওয়ার মাধ্যমে দেশের সম্পদে পরিণত করতে হবে।  

ডা. বদরুল হাসান বলেন, উপযুক্ত শিক্ষা ও প্রশিক্ষণ পেলে অটিস্টিক শিশুরা রাষ্ট্রের উন্নয়নে অবদান রাখতে সক্ষম।অটিস্টিক শিশু-কিশোরদের সঠিক পরিচর্যা,শিক্ষা ও স্নেহ-ভালোবাসা দিয়ে গড়ে তোলা হলে তারা সমাজ ও রাষ্ট্রের বোঝা না হয়ে অপার সম্ভাবনা বয়ে আনবে।


আরও পড়ুন