ক্যাম্পাস - এপ্রিল ৭, ২০১৯

বই নিয়ে প্রবেশের দাবিতে অনশনে রাবি শিক্ষার্থীরা

রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় (রাবি) কেন্দ্রীয় গ্রন্থাগারে নিজস্ব বই নিয়ে প্রবেশের দাবিতে অবস্থান কর্মসূচিসহ অনশন করেছে শিক্ষার্থীরা। রোববার গ্রন্থাগারের প্রধান ফটকের সামনে সকাল ১০ টা থেকে দুপুর ২টা পর্যন্ত চার ঘন্টাব্যাপী এ কর্মসূচি পালন করে তারা। এতে অংশ নেয় বিভিন্ন বিভাগের প্রায় শতাধিক শিক্ষার্থী।

কেন্দ্রীয় গ্রন্থাগারের প্রধান ফটক বন্ধ রেখে তার সামনেই কার্পেট বিছিয়ে অবস্থান করে শিক্ষার্থীরা। এসময় নিজস্ব বই নিয়ে ভিতরে প্রবেশ করতে চাই, আমাদের দাবি মানতে হবে, মানতে হবে। গ্রন্থাগার থেকে ঘাড় ধাক্কা দিয়ে বের করা চলবেনা, চলবেনা। করতালির সঙ্গে সঙ্গে এসব স্লোগান দিতে থাকে শিক্ষার্থীরা। পরে দুপুর একটার দিকে ঘটনাস্থলে হাজির হন বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্র উপদেষ্টা প্রফেসর ড. লায়লা আরজুমান বানু। তার সঙ্গে কয়েকজন সহকারী প্রক্টরও উপস্থিত ছিলেন। তাদের উপস্থিতিতে আরও উত্তেজিত হয় আন্দোলনরত শিক্ষার্থীরা। এসময় তারা শিক্ষার্থীদের দাবি মেনে আশ্বস্ত করার চেষ্টা করেন। দাবি আদায় না হওয়া পর্যন্ত কর্মসূচি ছাড়বেন না বলে ঘোষণা দেন শিক্ষার্থীরা। একপর্যায়ে শিক্ষার্থীরা দাবি করেন ভিসি স্যারের আশ্বস্ত ছাড়া এ কর্মসূচি অব্যাহত রাখবেন বলে জানান তারা। পরবর্তীতে ছাত্র উপদেষ্টা এক মাসের মধ্যে তাদের দাবি বাস্তবায়নের আশ্বাস দিলে তারা কর্মসূচি স্থগিত ঘোষণা করেন।

অনশনে অংশ নেওয়া একাধিক শিক্ষার্থী জানান, বিশ^দ্যিালয়ের বাতিঘর হচ্ছে গ্রন্থাগার। সেই গ্রন্থাগারই নানা সমস্যাই জর্জরিত। এছাড়াও নিজস্ব বই প্রবেশে নিষেধাজ্ঞা রয়েছে। যার ফলে গ্রন্থাগারের পুরো আসন ফাঁকা থাকে। এভাবে চলতে থাকলে বিশ্ববিদ্যালয়ে পঠন পাঠন চর্চা না হয়ে জ্ঞান শূণ্য হয়ে পড়বে।

এছাড়াও সাধারণ শিক্ষাথীরা কেন্দ্রীয় গ্রন্থাগার সকাল ৮ টা হতে রাত ১০ টা পর্যন্ত দৈনিক ১৪ ঘন্টা খোলা, শুক্রবার বিকাল ৩ টা থেকে রাত ১০ টা এবং শনিবার সকাল ৮ টা হতে রাত ১০ টা পর্যন্ত খোঁলা রাখার দাবি জানান তারা।

বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্র উপদেষ্টা প্রফেসর ড. লায়লা আরজুমান বানু বলেন, বিশ্ববিদ্যালয় একটা নিয়মের মধ্যে দিয়ে চলে। চাইলেই হুট করে নিয়ম পরিবর্তন করা যায় না। একটা প্রক্রিয়া অবলম্বন করে পরিবর্তন করতে হয়। শিক্ষার্থীদের দাবি গুলো একাডেমিক মিটিং তুলে সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে বলে জানান।


আরও পড়ুন