দেশের খবর - April 8, 2019

বীর মুক্তিযোদ্ধার কবর খুঁড়লেন নিজে হাতে ইউএনও

ময়মনসিংহের গফরগাঁওয়ে যথাযথ রাষ্ট্রীয় মর্যাদায় বীর মুক্তিযোদ্ধা আবদুল ওয়াহাব আকন্দের দাফন সম্পন্ন হয়েছে।

রোববার (৭ এপ্রিল) বিকেলে জালেশ্বর মধ্যপাড়া জামে মসজিদ মাঠে নামাজে জানাজা শেষে গফরগাঁয়ের উপজেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে নির্বাহী কর্মকর্তার (ইউএনও) উপস্থিতিতে পুলিশের একটি চৌকস দল জাতির এই বীর সন্তানকে গার্ড অব অনার দেয়। এর আগে উপজেলা নির্বাহী অফিসার কাজী মাহবুব উর রহমান ও অফিসার ইনচার্জ মোহাম্মদ আব্দুল আহাদ খান, স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যন নাজমুল ঢালী জাতীয় পতাকায় আচ্ছাদিত কফিনে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা নিবেদন করেন। পরে পারিবারিক কবরস্থানে দাফন করা হয়।

এর আগে উপজেলা নির্বাহী অফিসার কাজী মাহবুব উর রহমান বীর মুক্তিযোদ্ধা আবদুল ওয়াহাব আকন্দের পারিবারিক গোরস্থানে গিয়ে কবর খুঁড়েন। লাশের খাঁটিয়া বহন করেন ইউএনও এবং ওসি।

বীর মুক্তিযোদ্ধা শেখ আহমেদ ১৯৭১ সালে মহান স্বাধীনতা যুদ্ধে অংশগ্রহণ করেন। তিনি রবিবার দুপুরে সালটিয়া ইউনিয়নের জালেশ্বর গ্রামে নিজ বাড়িতে মৃত্যেু বরণ করেন।মৃত্যকালে তার বয়স হয়েছিল ৭১ বছর।

এদিকে বীর মুক্তিযোদ্ধা আব্দুল ওয়াহাব এর মৃত্যুতে শোক প্রকাশ করে তার শোকাহত পরিবারের প্রতি সমবেদনা জানিয়েছেন ডাক ও টেলিযোগাযোগ মন্ত্রণালয়ের স্থায়ী কমিটির সদস্য এমপি ফাহমী গোলন্দাজ বাবেল ও উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা কমান্ড।

উপজেলা নির্বাহী অফিসার কাজী মাহবুব উর রহমান বলেন, আমাদের অর্থাৎ বাংলাদেশের যত গর্ব রয়েছে এদের মধ্যে শ্রেষ্ঠ গর্ব হল বাঙালির মহান মুক্তিযুদ্ধ। আর এই মুক্তিযুদ্ধ শব্দটি উচ্চারণের সাথে সাথেই আর একটি গর্বিত শব্দ মাথা উঁচু করে দাঁড়ায়, সেটি হলো মুক্তিযোদ্ধা। জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের নেতৃত্বে জীবন বাজি রেখে মহান মুক্তিযুদ্ধে অংশ নিয়ে আমাদের স্বাথীনতা এনে দিয়েছে মুক্তিযোদ্ধারা। আর স্বাধীন দেশের নাগরিক হিসাবে মুক্তিযোদ্ধাকে সম্মান জানানো প্রত্যেক নাগরিকের কর্তব্য।


আরও পড়ুন