ক্যাম্পাস - এপ্রিল ৯, ২০১৯

রাবিতে চলছে বর্ষ বরণের প্রস্তুতি

বাঙ্গালীর হাজার বছরের ঐতিহ্যকে আর একবার ফুটিয়ে তুলতে নব উৎসাহ উদ্দীপনায় নতুন বর্ষকে বরণ করে নেওয়ার ধুম সারা দেশে বিরাজমান। তেমনি দেশের সব শিক্ষা-প্রতিষ্ঠান সহ সর্বস্তরের মানুষ দিনটিকে পালন করার জন্য মুখিয়ে আছে।

অন্যান্য দিনের তুলনায় এ দিনটিকে একটু আলাদা ভাবে স্মৃতিতে রোমন্থন করার প্রয়াস সকলের। আর সেই আয়োজনে পিছিয়ে নেই দেশের অন্যতম শ্রেষ্ঠ বিদ্যাপীঠ রাজশাহী বিশ^বিদ্যালয়। বাঙালীর প্রাণের উৎসব পহেলা বৈশাখ উদযাপনে প্রতি বছরই থাকে বিশ^বিদ্যালয়ের চারুকলা অনুষদ সহ বিভিন্ন বিভাগের নানা আয়োজন।এবারও তার ব্যতিক্রম নয়।এবারের বৈশাখের প্রতিপাদ্য বিষয়: “মস্তক তুলিতে দাও অনন্ত আকাশে”।

এই প্রতিপাদ্যকে সামনে রেখে বর্ষবরণ সফল করতে দিন-রাত অক্লান্ত পরিশ্রম করছে চারুকলা অনুষদ সহ অন্যন্য বিভাগের শিক্ষার্থীরা। লক্ষ্য একটায় বর্ণিল আয়োজনে দিনটিকে উদযাপন করা।

এবারের বৈশাখী আয়োজন কেমন থাকছে এ নিয়ে সরেজমিনে প্রস্তুতি সম্পর্কে দেখা যায় , বৈশাখের মূল আকর্ষণ বাংলার বিলুপ্তপ্রায় ঐতিহ্য কে পুনরায় পরিবেশন করতে লোকজ ঘোড়া, লোকজ পাখি এবং মুখোশের ডামি বানানোর প্রস্তুতি চলছে। অশুভ শক্তিতে প্রতিরোধের প্রতীক হিসেবে মঙ্গল শোভাযাত্রায় বিভিন্ন প্রকার মুখোশ, ব্যানার-ফেস্টুন বানানোর কাজে উৎসব মুখর সময় পার করছে। প্রতিবারের ন্যায় ক্যাম্পাস তথা রাজশাহীর সবচেয়ে বড় মঙ্গল শোভাযাত্রা বের করবে চারুকলা অনুষদ।

এবারের বৈশাখী আয়োজন নিয়ে চারুকলা মৃতশিল্প ও ভাস্কর্য বিভাগের মাস্টার্সের শিক্ষার্থী রানা বলেন , প্রতিবারের ন্যায় এবারও শিক্ষক এবং শিক্ষার্থী মিলে পহেলা বৈশাখ উদযাপন করব। এবারের মঙ্গল শোভাযাত্রায় গ্রাম্য সংস্কৃতিকে ফুটিয়ে তোলার লক্ষ্যে ছেলেরা লুঙ্গি ও গেঞ্জি পরে কৃষক-রাখালের
বেশে , অন্যদিকে মেয়েরা সাধারণত শাড়ি পরে কলস কাধেঁ শোভাযাত্রাকে সৌন্দর্যমন্ডিত করবে।

জানা যায় , চারুকলা অনুষদের তিনটি বিভাগের তিনজন শিক্ষক এবার পহেলা বৈশাখের উদযাপন কমিটির দায়িত্বে রয়েছেন। শিক্ষার্থীদের সহযোগিতায় তারা যৌথভাবে উদযাপনের প্রস্তুতি পরিচালনা করবে।

বৈশাখী আয়োজন নিয়ে প্রাচ্যকলা বিভাগের সহযোগি অধ্যাপক ডা.মো. বুনি আদম বলেন,বরাবরে মতো এবারও বৈশাখ উপলক্ষ্যে আমাদের নানা আয়োজন রয়েছে। চারুকলা অনুষদের তিনটি বিভাগ যৌথভাবে বৈশাখী আয়োজন করতে যাচ্ছে ।মঙ্গল শোভাযাত্রা , বৈশাখী মেলা , সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান, নাট্য
অনুষ্ঠানের সব প্রস্তুতি একদম শেষ পর্যায়ে। শুধু দিনটির অপেক্ষায় আছে শিক্ষার্থীরা।


আরও পড়ুন