তাড়াইল - এপ্রিল ১৩, ২০১৯

তাড়াইলে সনাতন ধর্মালম্বীদের অষ্টমী স্নান সম্পন্ন

কিশোরগঞ্জের তাড়াইলে সনাতন ধর্মালম্বীদের অষ্টমী স্নান সম্পন্ন হয়েছে।

আজ শনিবার  (১৩ এপ্রিল ) ভোরবেলা থেকেই তাড়াইল সদর বাজার সংলগ্ন মাখনাপাড়া গ্রামের পাশ দিয়ে বয়ে যাওয়া নরসুন্দা নদীতে উপজেলার হাজার হাজার নারী-পুরুষ হিন্দু ধর্মের পূণ্যার্থী এই অষ্টমী স্নানে অংশ নেন। তিথি অনুযায়ী সকাল ৮টা ৩০ মিনিট পর্যন্ত পূণ্যস্নানের সূচী থাকলেও দূর দূরান্ত থেকে আগত পূণ্যার্থীরা এর পরেও নদীতে স্নান করতে দেখা গেছে ।সারিবদ্ধভাবে ব্রাহ্মণগণ নদী তীরে বসে পূণ্যার্থীদের মন্ত্রজপের মাধ্যমে ফুল বেলপাতা ফল নিবেদনের মধ্য দিয়ে এই অষ্টমী স্নানের আচার পালন করতে দেখা গেছে। প্রতিবারের ন্যায় মাখনাপাড়া গ্রামের ‘মহামায়া যুব সংঘ’ আগত পূণ্যার্থীদের সব রকম সুযোগ সুবিধার দেখভাল করেন।সহযোগিতা করেন তাড়াইল থানা পুলিশ।অষ্টমী স্নানঘাট সংলগ্ন বিভিন্ন ধরনের খাদ্য সামগ্রী,মাটির তৈরি খেলনা, বাঁশের তৈরি জিনিস,কাঠের তৈরি আসবাবপত্র,নাগরদোলা সহ মেলার আয়োজন করে কমিটি ।এতে বিভিন্ন বর্ণ-ধর্মের নারী পুরুষ ও শিশুদের মিলন মেলায় পরিণত হয়।

হিন্দু ধর্মমতে পুরানে আছে গোড়ালী যুগে জমদগ্নি নামক এক ঋষি ছিল। তিনি তার পুত্র রামকে আদেশ দিলেন মাতাকে হত্যা করার জন্য। পিতার আদেশ পালন করার লক্ষ্যে তিনি কুঠার দিয়ে মাকে হত্যা করলেন!

মার্তৃ হত্যার পাপের কারণে যে কুঠার দিয়ে মাকে হত্যা করেছিল সেই কুঠার তার হাতে আঠার মতো লেগে গেল। কোনো অবস্থায়ই সেই কুঠার হাত থেকে ছাড়াতে পারছিল না সে।

তখন তিনি জ্ঞানী গুনীদের পরামর্শে পাপ মোচন করতে তীর্থ ভ্রমণে বের হন। ভারতবর্ষের সমস্ত তীর্থ ভ্রমণ করেও সেই কুঠার হাত থেকে সরানো যায়নি। অবশেষে বাংলাদেশের নারায়নগঞ্জের লাঙ্গলবন্দ নামক স্থানে পুরাতন ব্রহ্মপুত্র নদে স্নান করেন তিনি। এই স্নান করার পরই হাত থেকে কুঠার অপসারিত হয়।

সেই থেকে হিন্দু ধর্মাবলম্বীদের অষ্টমী স্নান শুরু। আর তাই পাপ মোচনের আশায় এই তিথিতে স্নান করেন তারা।এই অষ্টমী তিথিতেই ব্রহ্মপুত্র নদের জল তাড়াইল উপজেলার মধ্যে বয়ে যাওয়া নরসুন্দা নদীতে প্রবেশ করার ফলে এখানেই শতবছর যাবৎ অষ্টমী স্নান সম্পন্ন করে আসছে হিন্দু পূণ্যার্থীরা।

হিন্দু ধর্মাবলীর জন্য এই অষ্টমী স্নান অনেক গুরুত্বপূর্ণ।পাপ মোচনের আশায় সমাগম হয়  মানুষের ।

যাবতীয় সংকীর্ণতা আর পঙ্কিলতার আবরণ থেকে মুক্তির আশায় ফুল, বেলপাতা, ধান, দুর্বা, ডাব, আম,বিভিন্ন ধরনের ফল সহ বিভিন্ন উপাচার নিয়ে মন্ত্র পড়ে পাপমুক্তির আশায় শনিবার  স্নান করেন পুণ্যার্থীরা।


আরও পড়ুন