করিমগঞ্জ - এপ্রিল ১৫, ২০১৯

করিমগঞ্জে সিরিয়াল শিশু ধর্ষণের হোতা কানন মিয়া এখন কারাগারে

অবশেষে পুলিশের হাতে ধরা খেলো করিমগঞ্জে সিরিয়াল শিশু ধর্ষণের হোতা কানন মিয়া (৫২)। বিজ্ঞ আদালত ধর্ষককে কারাগারে প্রেরণের নির্দেশ দিয়েছে।

জানা গেছে, ফুঁসলিয়ে একের পর এক শিশুকে যৌন নিপীড়ন আর ধর্ষণকালে এলাকায় আলোচিত ছিলো কানন মিয়ার নাম। করিমগঞ্জ উপজেলার বারঘড়িয়া ইউনিয়নের তুলশিয়া গ্রামের মৃত আবু তাহেরের ছেলে। বয়স পঞ্চাশোর্ধ হলেও সে এক বর্বর সিরিয়াল শিশু ধর্ষক।

রোববার (১৪ এপ্রিল) সন্ধ্যায় প্রতিবেশী পঞ্চম শ্রেণির ছাত্রী ধর্ষণের অভিযোগে পুলিশ এলাকাবাসীর সহায়তায় ধর্ষক কানন মিয়াকে আটক করে। এরপরই বেরিয়ে আসতে থাকে তার পাশবিক নানা কুকীর্তির ঘটনা।

সূত্র জানায়, তুলশিয়া গ্রামের পঞ্চম শ্রেণি পড়ুয়া শিশুটিকে (১১) শনিবার (১৩ এপ্রিল) বিকালে বাড়ির সামনে থেকে ঘাস কেটে দেয়ার প্রলোভন দেখিয়ে প্রতিবেশী কানন মিয়া পাশের ধান ক্ষেতে নিয়ে যায়। সেখানে সে শিশুটিকে জোরপূর্বক ধর্ষণ করে। এতে শিশুটি গুরুতর আহত হয়ে পরিবারের লোকজনকে ঘটনাটি জানালে শিশুটিকে প্রথমে করিমগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স ও পরে কিশোরগঞ্জ ২৫০ শয্যাবিশিষ্ট জেনারেল হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। শিশুটি বর্তমানে কিশোরগঞ্জ ২৫০ শয্যাবিশিষ্ট জেনারেল হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছে।

করিমগঞ্জ থানার ওসি মমিনুল ইসলাম মুক্তিযোদ্ধার কণ্ঠকে জানান, এ ব্যাপারে মেয়েটির মা বাদী হয়ে করিমগঞ্জ থানায় মামলা দায়ের করেছেন। অভিযুক্ত কানন মিয়াকে গ্রেপ্তারের পর জিজ্ঞাসাবাদের জন্য আদালতে ৭ দিনের রিমান্ড আবেদনসহ সোমবার (১৫ এপ্রিল) চালান দেয়া হয়েছে। আদালত রিমান্ড শুনানির তারিখ নির্ধারণ করে আসামিকে কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ দেয়ার পর তাকে কারাগারে পাঠানো হয়েছে।

ওসি মমিনুল ইসলাম আরো জানান, অভিযুক্ত কানন মিয়া এর আগেও এলাকায় এরকম ভাবে ফুঁসলিয়ে একাধিক শিশুকে নিপীড়ন ও ধর্ষণের ঘটনা ঘটিয়েছে বলে এলাকাবাসী তাকে জানিয়েছেন। সেসব অভিযোগও খতিয়ে দেখা হচ্ছে। স্থানীয় এলাকাবাসী সিরিয়াল শিশু ধর্ষক কানন মিয়ার সুষ্ঠু বিচারের দাবী জানিয়েছেন।


আরও পড়ুন