কুলিয়ারচর - এপ্রিল ১৭, ২০১৯

কুলিয়ারচরে ‘‘মহাসড়ক অবরোধ! ১২ ছাত্র সহ ২০ জন আহত’’

ব্যাবসায়ী ও শিক্ষার্থীদের মধ্যে ধাওয়া-পাল্টাধাওয়া

কিশোরগঞ্জের কুলিয়ারচরে ব্যাবসায়ী ও শিক্ষার্থীদের মধ্যে ধাওয়া পাল্টাধাওয়ার ঘটনায় ১২ ছাত্র সহ অন্তত ২০ জন আহত হয়েছে। বুধবার (১৭ এপ্রিল) সকাল ১০ টার দিকে উপজেলার ছয়সূতী বাসস্ট্যান্ডে এ ঘটনা ঘটে।

উপজেলার ছয়সূতী ইউনিয়ন উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মোঃ মোস্তাকুর রহমান বাদল অভিযোগ করে বলেন, গত ১৬ এপ্রিল মঙ্গলবার বিকেলে ছয়সূতী বাসস্ট্যান্ডস্থ চা দোকানদার লাল মিয়া ও তার ভাই ডালিম মিয়া মিলে চা দোকান বাকীর টাকা নিয়ে ছয়সূতী ইউনিয়ন উচ্চ বিদ্যালয়ের দপ্তরী মোঃ মস্তু মিয়াকে বেধম মারধর করে। পরে স্থানীয়রা তাকে গুরুতর আহত অবস্থায় উদ্ধার করে প্রথমে কুলিয়ারচর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে ভর্তি করে। পরে কর্তব্যরত চিকিৎসক আরও উন্নত চিকিৎসার জন্য মস্তু মিয়াকে ভাগলপুর জহুরুল ইসলাম মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতালে প্রেরণ করে। এ ঘটনার সংবাদ পেয়ে পরদিন বুধবার সকাল ১০ টার দিকে বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা ক্ষিপ্ত হয়ে লাল মিয়ার দোকানে হামলা চালাতে গেলে বিদ্যালয়ের সহকারি প্রধান শিক্ষক হরি চরণ দাস তাদের ফিরিয়ে আনে। পরে দোকান মালিক সহ স্থানীয় ব্যবসায়ীরা বিদ্যালয়ের ভিতর ইট-পাটকেল ছুঁড়তে থাকলে শিক্ষার্থীরা আরও ক্ষিপ্ত হয়ে লাল মিয়া, ডালিম ও কাসেমের মিষ্টির দোকানে গিয়ে ভাংচুড় করে। পরে শিক্ষার্থী ও ব্যাবসায়ীদের মধ্যে ধাওয়া-পাল্টাধাওয়ার ঘটনা ঘটে। এ সময় ইট-পাটকেলের আঘাতে বিদ্যালয়ের ১০ম শ্রেণির ছাত্র নিলয় দেবনাথ, ৯ম শ্রেণির ছাত্র তাপস চন্দ্র সূত্রধর, মামুন মিয়া (মাখন), মোবারক হোসেন রানা, মোঃ নিরব, ৮ম শ্রেণির ছাত্র আপন মিয়া, ৭ম শ্রেণির ছাত্র স¤্রাট, ৬ষ্ট শ্রেণির ছাত্র এমদাদ, রাতুল হাসান ফাইম, হৃদয়, শাহাদৎ হোসেন নয়ন ও আশিক খান আহত হয়। এ ছাড়া তিনি আরো বলেন, ব্যাবসায়ীরা ছয়সূতী বাসস্ট্যান্ডস্থ তার বাসায় হামলা চালিয়ে ভাঙচুর করে।

অপর দিকে বাসস্ট্যান্ড বাজার ব্যাবসায়ী পরিচালনা কমিটির সভাপতি শাহানুর রহমান বলেন, ধাওয়া পাল্টা ধাওয়ার ঘটনায় দোকানদার মস্তো মিয়া, আলম মিয়া ও সাদির মিয়া সহ অন্তত ৮ জন আহত হয়।

স্থানীয়রা আহতদের উদ্ধার করে কুলিয়ারচর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স ও ভাগলপুর জহুরুল ইসলাম মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতলে নিয়ে যায়। এ ঘটনায় প্রায় আধাঘন্টা ভৈরব-ময়মনসিংহ মহাসড়ক অবরোধ থাকায় যান চলাচল বন্ধ ছিল। সংবাদ পেয়ে কুলিয়ারচর থানা পুলিশ ঘটনাস্থলে উপস্থিত হয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে ও যানচলাচল স্বাভাবিক করে।

এ ব্যাপারে বিদ্যালয় পরিচালনা পর্ষদের সভাপতি মোঃ জসিম উদ্দিন লিটনের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি দপ্তরী ও শিক্ষার্থীদের উপর হামলার ঘটনার তীব্র নিন্দা জানিয়ে ঘটনার সাথে জড়িতদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবী করেন।

কুলিয়ারচর থানার অফিসার ইনচার্জ আব্দুল হাই তালুকদার ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে বলেন, এ ঘটনায় এখনো লিখিত কোন অভিযোগ পাইনি। অভিযোগ পেলে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে।


আরও পড়ুন