দেশের খবর - মে ৪, ২০১৯

উনারা যদি প্রধানমন্ত্রীকে বলেন, আমিতো আছিই : রেলমন্ত্রী

আপনাদের প্রাণেরদাবী ১২ কিলোমিটার রেলপথ আনতে এখানে দুইজন নেতা আছেন।প্রতিমন্ত্রী আশরাফ আলী খান খসরু ও সাংসদ মানু মজুমদারকে উদ্দেশ্য করে বলেন উনারা যদি প্রধানমন্ত্রীকে বলেন আমিতো আছিই। যত দ্রুত সম্ভব এই রেলপথ নির্মাণ কাজের প্রকল্প গ্রহণ করা হবে।

শুক্রবার (৩মে) বিকেলে ক্ষুদ্র ণৃ গোষ্ঠী কালচারাল একাডেমী বিরিশিরি এর আয়োজিত ওয়ানগালা উৎসবএ প্রধান অতিথির ভাষণে রেলপথমমন্ত্রী নূরুল ইসলাম সুজন এই কথা বলেন।

ভাষণের শুরুতে তিনি জানান, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের বাংলাদেশ বিনির্মাণে সকলেরমত একজন কর্মী হিসেবে কাজ করছেন।নিজের রাজনৈতিক জীবনের স্মৃতিচারণ করে ছাত্রলীগ, যুবলীগ করে কিভাবে আজ পঞ্চগড় জেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি হয়েছেন তাও তুলে ধরেন। মঞ্চে উপবিষ্ট নেত্রকোনা ১ আসনের সাংসদ মানু মজুমদার যখন বঙ্গবন্ধু কে স্বপরিবারে হত্যার প্রতিবাদ করায় ফাঁসির আসামী তখন তিনি মিছিল করে মুক্তি চেয়েছেন বলেন।

এই বৈচিত্র্যময় দেশ সকল ধর্মের মানুষের উল্লেখ করে তিনি সকলকেই বঙ্গবন্ধুর রাজনৈতিক দর্শন সম্পর্কে ধারণা দেন।সবাইকে বঙ্গবন্ধুর অসমাপ্ত আত্মজীবনী পড়তে বলেন। প্রতিকূল আবহাওয়া কে উপেক্ষা করে যে জনস্রোত আজ একাডেমী প্রাঙ্গণে এসেছে তাই সবাই কে অভিনন্দন জানিয়ে অনুষ্ঠানের উদ্ভোধন ঘোষণা করেন সাংসদ মানু মজুমদার এমপি।

সাংসদ বলেন, আমি চাইছি রেল লাইন আসুক দুর্গাপুরে।আমার নির্বাচনী প্রতিশ্রুতি বাস্তবায়নে এই এলাকার উন্নয়নে আমি কাজ করে যাচ্ছি ও যাবো। প্রধানবক্তা প্রতিমন্ত্রী খসরু এই দুর্গাপুরের বালি যে সাধারাণ বালু নয় তাই এটা নিয়ে গবেষণা করা প্রয়োজন বলে তিনি মন্তব্য করেন। তিনিও দুর্গাপুর পর্যন্ত রেলপথ জরুরি বলে তুলে ধরেন। পবিত্র কুরআন,গীতা,বাইবেল পাঠে অনুষ্ঠানের আনুষ্ঠানিকতা শুরু হয় বিকেল ৩ টা ১০ মিনিটে। তারপর মঞ্চে আমন্ত্রিত অতিথিগণকে ফুল দিয়ে ও উত্তরিয়,কটি, ব্যাচ পড়িয়ে বরণ করে আদিবাসী ছেলে-মেয়েরা। রেলপথমন্ত্রী নূরুল ইসলাম সুজন,মৎস্য ও প্রাণী সম্পদ প্রতিমন্ত্রী আশরাফ আলী খান খসরু ও স্থানীয় সাংসদ মানু মজুমদার কে মকুট পড়িয়ে সম্মানিত করেন নকমা এডলফ মারাক।ওয়ানগালা কে কেন্দ্র করে প্রকাশিত স্মরণিকা উন্মোচন করেন রেলমন্ত্রী। নকমা এডলফ মারাক ওয়ানগালা ড্রাম বাজিয়ে অনুষ্ঠানে মঙ্গল কীর্তন করেন।

অনুষ্ঠানের মঞ্চে জেলা প্রশাসক,এসপি, আওয়ামীলীগ সভাপতি সেক্রেটারি, কলমাকান্দা -দুর্গাপুর এর উপজেলা চেয়ারম্যান,দুর্গাপুর পৌরসভা মেয়র, ইতিহাসবিদ ও গবেষক মতীন্দ্র নাথ মারাক সহ আমন্ত্রিত অতিথিগণ উপস্থিত ছিলেন।

অনুষ্ঠানের সভাপতি জেলা প্রশাসক মঈনউল ইসলাম সমাপনী ভাষণে রেলমন্ত্রীর দৃষ্টি আকর্ষণ করে বলেন, এই রেলপথ নির্মাণে একটি পর্যবেক্ষণ করা হয়েছিল যার প্রতিবেদন এখনও পাননি।প্রতিবেদন পেলে কাজ অনেকটাই এগিয়ে যাবে বলে তিনি বিশ্বাস করেন।ক্ষুদ্র ণৃ গোষ্ঠীর প্রতি শুভেচ্ছা জানিয়ে তিনি আলোচনা অনুষ্ঠানের সমাপ্তি ঘোষণা করেন। অনুষ্ঠান শুরর আগে কেএনসিএ বিরিশিরি প্রাঙ্গণে মন্ত্রী ও সাংসদকে পুলিশবাহিনী সম্মাননা প্রদান করেন। প্রাঙ্গণে অতিথিগণ গাছের চারাও রোপন করেন।

ওয়ানগালার অনুষ্ঠান হলেও রেলমন্ত্রীকে পেয়ে রেললাইন এর দাবি মুখ্য হয়ে উঠে। ওয়ানগালা অনুষ্ঠানে যোগ দিতে আসা অতিথিদের কে স্বাগত জানাতে দেখা গেছে স্থানীয় ছাত্রলীগ,যুবলীগ ও আওয়ামী লীগ নেতাকর্মীদের।যুবলীগ সহ সভাপতি সুমন চৌধুরী পাভেল এর নেতৃত্বে মোটর শোভাযাত্রা করা হয়।

অন্যদিকে নেত্রকোনা সরকারি কলেজের সাবেক ছাত্রনেতা তুহিনময় বিশ্বাসের পক্ষ থেকে বাদ্যবাজনা বাজিয়ে একটি মিছিল শুভেচ্ছাবার্তা জানায়। কেএনসিএ পরিচালক শরদিন্দু হাজং স্বপন অনুষ্ঠান কে কেন্দ্র করে উপস্থিত সকলকেই প্রাণঢালা অভিনন্দন জানায়।


আরও পড়ুন